সর্ব শেষ খবর
১৮ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং | ৫ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:২৬

আমরা নির্বাচন করব : খালেদা জিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘আমরা নির্বাচন করব, চাইলেও বাইরে রাখা যাবে না। তবে শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন হবে না। নির্বাচন হতে হবে নিরপেক্ষ নির্দলীয় সহায়ক সরকারের অধীনে।’

আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটশন মিলনায়তনে ছাত্রদলের ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

খালেদা জিয়া আরো বলেন, ‘দেশে গণতন্ত্র নেই, বৈধ সরকার নেই, আইনের শাসন, কথা বলার অধিকার নেই। তার প্রমাণ একটু আগে দেখলাম। অনেকদিন ধরে ছাত্ররা আলোচনা সভার প্রস্তুতি নিয়েছে। অনুমতি দিয়েছে, ভাড়াও নিয়েছে। অথচ হঠাৎ করে হলরুমে তালা লাগিয়ে দিল। এটা কেমন আচরণ? আজকে দেশ এক ব্যক্তির দখলে, দেশ পিছিয়ে যাচ্ছে। আওয়ামী লীগ তার জন্য দায়ী। গুম, খুন বেড়েছে, দ্রব্য মূল্য বেড়েছে। মানুষের অভাবের শেষ নেই।’

বিএনপি নেত্রী বলেন, ‘২০১৪ সালের নির্বাচনে এরা তো ভোটই পায় নাই। এদের তো পার্লামেন্টে থাকার যোগ্যতাও নাই। কাজেই পার্লামেন্টে ভেঙে দিতেই হবে। আমরা নির্বাচনের দল, আমরা নির্বাচন করব। বাইরে রাখতে চাইলেই রাখা যাবে না। নির্বাচন করব আমরা- সেই ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। আমরা নির্বাচন করব, কিন্তু সেই নির্বাচনটা হতে হবে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে, হাসিনার অধীনে নয়। সেই নির্বাচনই এ দেশে হবে। কারণ সারা পৃথিবী বুঝে গেছে হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠু নির্বাচন হয়নি, হবে না। সেটা মানুষ বুঝেছে।’ তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগকে মানুষ বিশ্বাস করে না। তারা মানুষের ভোটে না, অন্যের কাঁধে ভর করে ক্ষমতায় এসেছে বারবার। অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসে মানুষ নির্যাতন করছে। বিএনপি মানুষের ভোটে ক্ষমতায় আসে। অন্যের ওপর নির্ভর করে নয়।’

বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, ‘পদ্মা সেতুর স্বপ্ন দেখাচ্ছে সরকার। কিন্তু পদ্মা সেতু আওয়ামী লীগের আমলে হবে না। এ সেতু জোড়া তালি দিয়ে বানানো হচ্ছে। এ সেতুতে কেউ উঠবেন না।’ এ সময় তিনি বলেন, ‘ভারত আমাদের স্বাধীনতার সময় সাহায্য করেছে। ভারতকে আমরা বন্ধুর মতো দেখতে চাই। বন্ধু হয়ে থাকতে চাই সবসময়।’

খালেদা জিয়া বলেন, ‘দেশের পুলিশ খারাপ নয়, আওয়ামী লীগ পুলিশকে খারাপ বানাচ্ছে। পুলিশ নিজেদের কাজ করুক। তবে আমার অনুরোধ, আমার ছেলেদের ধরবেন না। যারা জেলে আছে ছেড়ে দিন। পুরো দেশটি আজ কারাগার হয়ে গেছে। আমরা সবাই বন্দি। শুধু শেখ হাসিনা এবং তার ছেলে মুক্ত।’ তিনি ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের শুধু ছবি তুলে আন্দোলনে আছে, তা না দেখিয়ে মনপ্রাণ উজাড় করে আন্দোলনে নামার আহ্বান জানান।

‘তোমরা ঐক্য, ঈমান, শৃঙ্খলা ঠিক রাখলে সব কিছু জয় করা সম্ভব। শুধু স্লোগান দিলে হবে না। স্লোগানের ধারা পরিবর্তন করতে হবে। আগের স্লোগান দিলে হবে না। সময়ের প্রেক্ষাপট অনুযায়ী তা পরিবর্তন করতে হবে। তোমরা এগিয়ে চলো। ২০১৮ সাল হবে গণতন্ত্রের বছর’, বলেন খালেদা জিয়া।

খালেদা জিয়া যাওয়ার পর ছাত্রদলের ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভার জন্য ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তন খুলে দেয় কর্তৃপক্ষ। এর আগে মিলনায়তনের সামনে অবস্থান নিয়ে দুপুর থেকে বিক্ষোভ করতে থাকে ছাত্রদল। বিকাল সাড়ে ৪টায় সমাবেশস্থলে আসেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

এ সময় বাইরে অবস্থান করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। মহাসচিবের বক্তব্যের সঙ্গে সরকারবিরোধী স্লোগান দিতে থাকে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা।

অবশেষে বিকেল ৫টা ২৩ মিনিটে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের মিলনায়তন খুলে দেয় কর্তৃপক্ষ।

ছাত্রদলের সভাপতি রাজীব আহসান বলেন, ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের সাধারণ সম্পাদকের কাছ থেকে দুই মাস আগে হল রুমে আলোচনা সভা করার অনুমতি নিয়েছিলাম এবং নির্দিষ্ট পরিমাণ ভাড়াও আদায় করেন তাঁরা। কিন্তু আজকে তাঁরা আলোচনা সভা করার অনুমতি দিচ্ছেন না।

অনুষ্ঠানে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় নেতাকর্মী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান আমান উল্লাহ আমান, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সৈয়দ মুয়াজ্জেম হোসেন আলাল, হাবিব-উন নবী খান সোহেল, প্রচার সম্পাদক শহিদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*