১৬ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং | ৩রা মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:২০
মূর্তি পূজা

কেন মূর্তিতে প্রাণ নেই

সনাতন ধর্মের সকাম উপাসক লোকেরা এই দেবদেবীকে শক্তি রূপে অত্যন্ত ভক্তিপূর্বক পূজা করেন কেউ কেউ আশীর্বাদ পান, পূণ্য পান, ফল পান তাই লোক সংখ্যা কমে গেলেও দিন দিন পূজা বেড়ে যাচ্ছে। আমাদের বাংলাদেশে সংখ্যালঘু হিসেবে সনাতন ধর্মের মানুষ কত সেবা ভক্তি দিয়ে আড়ম্বর করে মূর্তি পূজা করেন আর সংখ্যাগুরু কিংবা খারাপ লোকগুলো সেই মূর্তি ভেঙ্গে ফেলে।

তাই আমার এত দিন জমানো ক্ষোভ ছিল যে, এই দেবদেবী যদি মানুষের চেয়ে বেশি শক্তি থাকে তবে মুর্তি ভাংগার সময় তিনি কেন তার প্রকাশ দেখাতে পারেন না???

আমরা ঠাকুর প্রতিষ্ঠা করি, কিন্তু ঠাকুরের প্রাণ প্রতিষ্ঠা করিনা। মাটির ঠাকুর মাটিই থাকেন। ঠাকুরের প্রাণ প্রতিষ্ঠা করতে হবে, তবেই ঠাকুর জাগ্রত হবেন, কথা কবেন। আমি নিজেরও প্রাণ প্রতিষ্ঠা(স্থির) করিনি। মৃম্ময় ঠাকুরকে চিন্ময় করতে হলে নিজেকে স্থির হতে হবে। ব্রহ্মকে জানিয়া সম্যকপ্রকারে সিদ্ধি হয়; অর্থাৎ সমাধিতে থাকিয়া অন্য কিছু করুক আর না করুক, যে আপনার আত্মাকে আত্মদ্বারা জয় করিয়াছে, সেই ব্রাহ্মণ। তিনি প্রাণ প্রতিষ্ঠার অধিকারী।

প্রাণরূপে বিদ্যমান তিনি, সর্বত্র সমান। প্রাণই ঈশ্বর, প্রাণই বিষ্ণু, প্রাণই ব্রহ্মা। সমস্ত লোক প্রাণেতেই ধৃত আছে, সমস্ত জগৎই প্রাণময়। আমরা প্রাণ সমুদ্রে ডুবে আছি। ঠাকুরের প্রাণ প্রতিষ্ঠা করতে হবে। তার আগে প্রাণ-ক্রিয়া করে নিজের প্রাণ প্রতিষ্ঠা স্থির করতে হবে। তবেই প্রাণে প্রাণ মিলন হবে। দেখ মাটির ঠাকুরের প্রাণ, পাথরের ঠাকুরের প্রাণ, নারায়ণ শিলায় প্রাণ, অশ্বত্থ বৃক্ষের মধ্যে সবিতৃমণ্ডল মধ্যবর্তী নারায়ণ। তা না দেখতে পেলে পৌত্তলিকাই সার হবে।

আজ যোগীরাজ শ্রীশ্রী শ্যামাচরণ লাহিড়ীর কৃপার মাধ্যমে সমাধান পেয়ে ধন্য হলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*