সর্ব শেষ খবর
১৮ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং | ৫ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:৪০
নিয়োগ দুর্ণীতি

ভূয়া স্কুল সনদ ও জন্ম সনদ দিয়ে চাকুরীঃ এলাকায় ক্ষোভ! ডিসি ও দুর্ণীতি দমনে অভিযোগ প্রেরন

নবীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ নবীগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাজিনা সারোয়ার যাচাই-বাছাই ছাড়াই অনিয়ম ও দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে ভুয়া স্কুল সনদ ও ভূয়া জন্ম সনদ দিয়ে চাকুরী প্রদান করায় জনমনে দেখা দিয়েছে মারাত্মক ক্ষোভ।

এ ব্যাপারে মেধা তালিকায় ৩য় স্থান অর্জনকারী প্রার্থী সিলেট বিভাগীয় কমিশনার,হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও দুর্নীতি দমন কমিশন বরাবরে লিখিত অভিযোগ প্রেরন করছেন।

অভিযোগ সুত্রে জানাযায়,নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ৫৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী পদের মৌখিক পরীক্ষা গত ১৩ ডিসেম্বর নিয়োগ কমিটির সভাপতি নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাজিনা সারোয়ারের কার্যালয়ে অনুষ্টিত হয়। এ পরীক্ষায় নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের ২২ নং করিমপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য মেধা তালিকায় ১ম করিমপুর গ্রামের গিরীন্দ্র দাশের পুত্র দ্বিজেন দাশ,২য় চানপুর গ্রামের হিরা লাল রায়ের পুত্র জগন্নাথ রায় এবং ৩য় চানপুর গ্রামের ব্রজ গোপাল দাশের পুত্র বিশ্বজিত দাশকে দেখানো হয়েছে। কিন্তু চাকুরীর জন্য চুড়ান্তভাবে নির্বাচিত প্রার্থী করিমপুর গ্রামের গিরীন্দ্র দাশের পুত্র দ্বিজেন দাশ মুলত ৫ম শ্রেনীও পাশ না করে নাদামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে প্যাডে প্রদান শিক্ষকের স্বাক্ষর জাল করে সনদ দাখিল করে চাকুরীতে নির্বাচিত হয়।

বিদ্যালয়ে খোজ নিয়ে জানাযায়, করিমপুর গ্রামের গিরীন্দ্র দাশের পুত্র দ্বিজেন দাশ নামের কোন ছাত্র এ বিদ্যালয়ে কখনো পড়াশোনা করে নাই মর্মে প্রদান শিক্ষক প্রত্যয়ন করেন। এছাড়া মেধা তালিকায় ২য় স্থান অর্জনকারী প্রার্থী চানপুর গ্রামের হিরা লাল রায়ের পুত্র জগন্নাথ রায় আবেদন পত্রে দাখিলকৃত জন্ম সনদ ভোটার কার্ডে জন্ম তারিখ১১/৩/১৯৭৭ ইং রয়েছে।

হিসাব অনুযায়ী ঐ প্রার্থীর বয়স হয় প্রায় ৪০ বছর। আর মেধা তালিকায় ৩য় চানপুর গ্রামের ব্রজ গোপাল দাশের পুত্র বিশ্বজিত দাশের শিক্ষাগত সনদ এবং জন্ম সনদ ঠিক থাকার পরও তাকে ৩য় স্থানে রাখা হয়েছে। তাই নিয়োগ বিধি মোতাবেক ১ম ও ২য় স্থানের প্রার্থী বাদ পড়লে ৩য় স্থানে থাকা চানপুর গ্রামের ব্রজ গোপাল দাশের পুত্র বিশ্বজিত দাশ এ পদে চাকুরী পাবার কথা থাকলেও নিয়োগের ক্ষেত্রে টাকার বিনিময়ে চরম দুর্নীতি ও অনিয়মের আশ্রয় নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ কাজ করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

তাই এ অনিয়েমের প্রেক্ষিতে ৩য় স্থানে থাকা চানপুর গ্রামের ব্রজ গোপাল দাশের পুত্র বিশ্বজিত দাশ গত ১৮ ডিসেম্বর নিয়োগ কমিটির সভাপতি নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাজিনা সারোয়ারের কার্যালয়ে লিখি অভিযোগ প্রেরন করেন এবং সিলেট বিভাগীয় কমিশনার,হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও দুর্নীতি দমন কমিশন বরাবরে অনুলিপি প্রেরন করছেন। বিষয়টি নিয়ে নবীগঞ্জে বেশ চাঞ্চল্যের সৃস্টি হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*