২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৭:০৬
নতুন পৃথিবী

পৃথিবীর মতো অবিকল সৌরমণ্ডলের সন্ধান লাভ

নিউজ ডেস্কঃ পৃথিবীর সৌরমণ্ডলের মতোই আরো একটি সৌরমণ্ডলের খোঁজ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার নাসার পক্ষ থেকে এক ঘোষণায় এ তথ্য জানানো হয়েছে। তারা বলছে, এটা একটা ঐতিহাসিক ঘটনা। খবর সিএনএনের।

নাসা বলছে, চেহারায় অবিকল আমাদের মতো ওই সৌরমণ্ডলেরও গ্রহের সংখ্যা আটটি। শুধু তাই নয়, ২ হাজার ৪৪৫ আলোকবর্ষ দূরে, ‘ড্রাকো’ নক্ষত্রপুঞ্জে থাকা সেই সৌরমণ্ডলের গ্রহগুলো ঠিক আমাদের সৌরমণ্ডলের মতো সাজানো। এর আগে আমাদের সৌরমণ্ডলের মতো অবিকল চেহারার আর কোনো নক্ষত্রমণ্ডলের হদিস মেলেনি।

নাসার অ্যাস্ট্রোফিজিক্স ডিভিশনের জ্যোতির্বিজ্ঞানী পল হার্টজ বলেছেন, অবিকল আমাদের সৌরমণ্ডলের মতো চেহারার এই সৌরমণ্ডলে সাতটি গ্রহের হদিস আগেই মিলেছিল। এবার জানা গেল সেখানে রয়েছে অষ্টম গ্রহ। যার নাম ‘কেপলার-৯০-আই’। এই গ্রহটিকে দেখতে অবিকল পৃথিবীর মতো। সেটি তার নক্ষত্রকে প্রদক্ষিণ করে ১৪.৪ পার্থিব দিনে। তবে সেটি তার নক্ষত্রের (কেপলার-৯০) বেশি কাছে বলে তার গা পুড়ে যাচ্ছে অনেক বেশি তাপে। তাপমাত্রা অন্তত ৮০০ ডিগ্রি ফারেনহাইট।

নাসা বলছে, যেহেতু এই সৌরমণ্ডলের চেহারা আমাদের মতোই, তাই সেখানে প্রাণের হদিস পাওয়ার জোরালো সম্ভাবনা রয়েছে। শুধু তাই নয়, ওই সৌরমণ্ডলের আরেকটি গ্রহ ‘কেপলার-৯০-এইচ’ তার নক্ষত্র থেকে ঠিক সেই দূরত্বেই রয়েছে, আমাদের পৃথিবী সূর্য থেকে রয়েছে যতটা দূরে। ওই গ্রহটিতে পানি তরল অবস্থায় থাকতে পারে বা পৃথিবীর মতো পুরু বায়ুমণ্ডলও থাকতে পারে সেখানে। ফলে প্রাণের সৃষ্টি বা তার টিকে থাকার পক্ষে সহায়ক হয়ে উঠতে পারে গ্রহটির পরিবেশ।

নাসা আরো জানিয়েছে, প্রায় আমাদের সৌরমণ্ডলের চেহারারই আরো একটি নক্ষত্রমণ্ডলের সন্ধান পেয়েছেন তারা। যার নক্ষত্রের নাম ‘কেপলার-৮০’। আর সেই সৌরমণ্ডলে যে ভিন গ্রহটির হদিস মিলেছে সম্প্রতি, তার নাম ‘কেপলার-৮০-জি’। এই ভিনগ্রহটি ওই সৌরমণ্ডলের ষষ্ঠ গ্রহ। ফলে আগামী দিনে ওই সৌরমণ্ডলে আমাদের মতোই আটটি বা তার বেশি গ্রহের হদিস মিললেও মিলতে পারে। চলতি বছরই ‘ট্রাপিস্ট’ নক্ষত্র মণ্ডলের হদিস মিলেছিল, যেখানে গ্রহের সংখ্যা সাত। সেখানে পৃথিবীর পানি বা বায়ুমণ্ডল আছে, এমন অন্তত তিনটি গ্রহের সন্ধান পাওয়া গেছে।

ভিনগ্রহ খুঁজতে এবং ভিনগ্রহে প্রাণের সন্ধান পেতে ২০০৯ সালে নাসা মহাকাশে পাঠিয়েছিল কেপলার স্পেস টেলিস্কোপ। সেই টেলিস্কোপ ২০১৩ সাল পর্যন্ত পৃথিবীর মতো ‘বাসযোগ্য’ প্রায় আড়াই হাজার ভিনগ্রহ আবিষ্কার করেছে। এর আগেও প্রচুর ভিনগ্রহ আবিষ্কৃত হয়েছে। সেগুলো নিয়ে আমাদের জানা ভিন গ্রহের সংখ্যা প্রায় হাজার চারেক। কিন্তু এতোদিন কোনো ভিনগ্রহের নক্ষত্রমণ্ডলেই আমাদের সৌরমণ্ডলের মতো আটটি গ্রহের সন্ধান মেলেনি।

এই আবিষ্কারটি সম্ভব হয়েছে গুগলের মেশিন লার্নিং পদ্ধতির সাহায্যে। যার নেতৃত্বে রয়েছেন গুগলের সিনিয়র সফ্‌টওয়ার ইঞ্জিনিয়ার ক্রিস্টোফার শ্যালু ও টেক্সাস বিশ্ববিদ্যালয়ের সাগান পোস্ট ডক্টরাল ফেলো অ্যান্ড্রু ভ্যানডারবার্গ।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.