সর্ব শেষ খবর
২৫শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং | ১৩ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ভোর ৫:৫১

সরকার ও নির্বাচন কমিশনের কাছে প্রত্যাশা

বর্তমান প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) গত মার্চে দায়িত্ব নেওয়ার পর কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন করেছেন। এখন রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠানের জোর প্রচারণা চলছে। এর মধ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নেতৃত্বে নির্বাচন কমিশনের অন্য দায়িত্বশীলরা রাজনৈতিক দল, সুধী সমাজ ও অন্যান্য সংগঠনের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেছেন আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন কীভাবে সুষ্ঠু ও নির্বিঘ্ন করা যায় এসব প্রসঙ্গে। আমিও ওই সংলাপ পর্বে অংশগ্রহণ করেছিলাম। দলমত নির্বিশেষে সবাইকে ডেকে নির্বাচন কমিশনারের পক্ষে ওই উদ্যোগের জন্য আমরা অবশ্যই সিইসিকে সাধুবাদ জানাই। সংলাপ পর্বে বসে মনে হয়েছিল তাদের লক্ষ্য হচ্ছে একটি অবাধ, প্রশ্নমুক্ত, গ্রহণযোগ্য নির্বাচন জাতিকে উপহার দেওয়া। কিন্তু সংলাপ-উত্তর প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কিছু কিছু কথায় মনে হয়েছে, আসলে ওই সংলাপ পর্ব ছিল শুধু আনুষ্ঠানিকতা মাত্র। এমনটি মনে হওয়া কিংবা মনে করা একেবারেই অনাকাঙ্ক্ষিত কিংবা অনভিপ্রেত। কিন্তু বিদ্যমান পরিস্থিতি এমনটিই আমাদের সামনে তুলে ধরেছিল।

কথা প্রসঙ্গে এক পর্যায়ে তিনি বলেছিলেন, ‘সরকার যেভাবে চাইবে সেভাবে নির্বাচন হবে।’ এটি খুব বিপজ্জনক কথা। ভয়ানক কথা। যদি তাই হয় তাহলে তো সংলাপের আর কোনো প্রয়োজনই ছিল না। পরে শুনেছি এই কথাটার নানা রকম ব্যাখ্যা। যা হোক, তিনি কী পরিপ্রেক্ষিতে কথাটা বলেছিলেন তা তো আর আমরা জানি না। সেই প্রসঙ্গে আর নতুন করে কিছু আলোচনাও করতে চাই না। আমাদের প্রত্যাশা তার কিংবা তাদের কাছে অনেক- শুধু এ কথাটাই পুনর্বার স্মরণ করিয়ে দিতে চাই। তার এবং তাদের কাছে আমরা অবশ্যই প্রত্যাশা করি যে, তিনি এবং তার সহযোগীরা একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ, প্রশ্নমুক্ত, গ্রহণযোগ্য নির্বাচন জাতিকে উপহার দিতে সক্ষম হবেন এবং এই নির্বাচনটি হয়ে থাকবে দৃষ্টান্তযোগ্য। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে রংপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশনের সামনে এই নির্বাচনও একটি বড় চ্যালেঞ্জ। এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে নির্বাচন কমিশন তাদের ওপর জনগণের আস্থা পুষ্ট করতে পারে। সরকার নির্বাচনের ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনের সহায়ক শক্তি মাত্র, মুখ্য শক্তি কিন্তু নির্বাচন কমিশন। সরকার বিতর্ক থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য ইতিবাচক অনেক কিছু করতে পারে এবং আস্থার পরিবেশ সৃষ্টির ক্ষেত্রে ব্যাপক ইতিবাচক ভূমিকা পালন করতে পারে।

নির্বাচনের ক্ষেত্রে এটাই চিরন্তন সত্য যে, কমিশনই মুখ্য প্রতিষ্ঠান। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, নির্বাচন কমিশনের ওপর আমাদের দেশের জনগণের আস্থা এখনও পুরোপুরি প্রতিষ্ঠিত হয়নি। আস্থার সংকট ছিল এবং এখনও আছে। কারণ তাদের অধীনে আগে কখনও কখনও যেভাবে নির্বাচন হয়েছে সেগুলো নিয়ে কথা আছে। তবে তাদের কিছু কিছু বক্তব্য শুনে মনে নতুন আশাও জাগে। এমন প্রেক্ষাপটে এই কমিশনের জন্য রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন একটি টেস্ট কেস বলে আমি মনে করি। যেহেতু তাদের ওপর এখনও জনগণের আস্থা পুরোপুরি প্রতিষ্ঠিত হয়নি, সেহেতু তারা এই নির্বাচনের মধ্য দিয়েই কাজটি করার একটি সুযোগ পেয়েছে। তবে সবচেয়ে বড় কথা হলো, জাতীয় নির্বাচন হলো পুরো ক্ষমতার পালাবদল। এই পালাবদল সামগ্রিক। স্থানীয় নির্বাচনে এমনটি না হলেও এর ইতিবাচক-নেতিবাচক প্রভাব কমবেশি যে হয়ে থাকে তা অস্বীকারের পথ নেই। স্থানীয় নির্বাচনের মধ্য দিয়ে জনমতের প্রতিফলনের একটি ধারা লক্ষ্য করা যায়। অভিযোগ আছে, সরকার গত স্থানীয় নির্বাচনকে প্রভাবিত করার চেষ্টা চালিয়েছিল বলেই নির্বাচন কমিশন সেই নির্বাচন প্রশ্নমুক্ত করতে পারেনি।

আমরা যখন নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংলাপে বসেছিলাম তখনও বিশেষভাবে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের কথা গুরুত্ব সহকারে বলেছি। নির্বাচন কমিশনের গুরুদায়িত্ব হলো সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠান করা। জনগণ যাতে ভীতিমুক্ত বাধাহীনভাবে তাদের মতামতের প্রতিফলন ঘটাতে পারে, একজন প্রার্থী যাতে ন্যায় থেকে বঞ্চিত না হন, এসব নিশ্চিত করাই তো কমিশনের দায়িত্ব-কর্তব্য। এই সাংবিধানিক দায়িত্ব পালনে প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ প্রতিষ্ঠানের অন্য দায়িত্বশীলরা যদি কোনো প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি দাঁড়ান তাহলে তাও সরকারকে জ্ঞাত করা তাদের দায়িত্ব। সরকারের কর্তব্য হলো, এ ক্ষেত্রে তাদের যথাযথ সহযোগিতা করা। সরকার যদি কাঙ্ক্ষিত সহযোগিতা না করে তাহলে পরিবেশ-পরিস্থিতি আরও বৈরী রূপ নেবে, এটিই তো স্বাভাবিক।

সবকিছু নিয়ম কিংবা সংবিধানে যা লেখা আছে সে অনুযায়ীই করতে হবে তা তো নয়। বিদ্যমান বাস্তবতা আমলে নিয়েও অনেক কিছু হয়তো করতে হতে পারে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থায়, যা দেশ-জাতির প্রয়োজনে। সংবিধান তো দেশ-জাতির কল্যাণেই প্রণীত এবং সংশোধনীও আনা হয় সেই নিরিখেই। আমাদের নির্বাচন কমিশনকে আরও ক্ষমতা দিয়ে জনপ্রত্যাশা মোতাবেক সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রকৃতই দাঁড় করাতে পারলে বিদ্যমান অনেক সমস্যারই নিরসন সম্ভব হতো। অতীতে সিটি করপোরেশন নির্বাচন ভালো হয়েছে, কিন্তু পরবর্তী সময় উপজেলা নির্বাচন নির্বাচনী সংস্কৃতিকে একেবারে নষ্ট করে দিয়েছে। ভোটকেন্দ্র দখল, ব্যালট পেপার ছিনতাইসহ নেতিবাচক অনেক কিছুই ঘটেছে। অনেক কেন্দ্রে ভোটাররা ভোটকেন্দ্রেই যেতে পারেননি। ফলে বলা যাবে না যে, সেই নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, প্রশ্নমুক্ত হয়েছিল। এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটুক তা কোনোভাবেই কাম্য নয়। রংপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের মধ্য দিয়ে এই কমিশন (যদিও কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন তারা করেছে) একটা অন্যরকম দৃষ্টান্ত স্থাপন করুক। এই দৃষ্টান্ত আগামী জাতীয় নির্বাচনের জন্য হয়ে উঠুক অনুপ্রেরণামূলক। এমনটি হলে তা সরকারের জন্যও মঙ্গলজনক। এতে সরকারের লাভই হবে বলে মনে হয়, ক্ষতি নয়।

জাতীয় নির্বাচন নিয়ে এখনই আরও বলিষ্ঠভাবে নির্বাচন কমিশনকে ভাবতে হবে। নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে আলাপকালে আমরা সেসব বলেছি। আইডি কার্ডের কাজটা দ্রুত শেষ করতে হবে। আমরাই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় প্রথমে আঙুলের ছাপ দিয়ে, ছবি দিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র করিয়েছি। এই এনআইডি কার্ড অনেক বড় অর্জন। তাতে অনেক সুবিধা হয়েছে। জাল ভোট এর মাধ্যমে বহুলাংশে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়েছে। এরপর রয়েছে আইন-শৃঙ্খলার বিষয়টি। আইন-শৃঙ্খলার বিষয়ে এখনই গভীর মনোযোগ দিতে হবে। খুন, গুম, অপহরণ ইত্যাদি দুস্কর্ম কিন্তু সমাজবিরোধীরা প্রায়ই ঘটিয়ে চলেছে। জননিরাপত্তা নিয়ে নানা মহলে সঙ্গতই উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে। মানুষ শঙ্কিত। নির্মোহ অবস্থান নিয়ে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতিকল্পে, জননিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে চালাতে হবে সাঁড়াশি অভিযান। তারপর সীমানা নির্ধারণের কাজটি সম্পন্ন করা দরকার দ্রুততার সঙ্গে। এক কথায় আস্থার যে সংকট রয়েছে তা কাটাতে সরকার ও নির্বাচন কমিশন উভয়ের সামনেই রয়েছে অনেক চ্যালেঞ্জ

নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের বিষয়ে বহুবিধ মত রয়েছে। এ ব্যাপারে ঐকমত্যের প্রয়োজন। নির্বাচন কমিশনকে এ ব্যাপারে দৃঢ় সিদ্ধান্তে উপনীত হতে হবে সব দিক বিবেচনা করে বিদ্যমান বাস্তবতা আমলে নিয়ে। একই সঙ্গে দৃষ্টি দিতে হবে যাতে সমতল ভূমি নিশ্চিত হয়। সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ, প্রশ্নমুক্ত, গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য সর্বাগ্রে প্রয়োজন সমতল ভূমি নিশ্চিত করা। এটি যে সিডিউল ঘোষণার পর করলেও চলবে তা কেন। এটি যত আগে নিশ্চিত হবে ততই মঙ্গল। গণতন্ত্রে বহু মত-পথ থাকবে এবং তা থাকুক। কিন্তু সংঘাত-সহিংসতা তো গণতন্ত্রে কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। এসবই যে শুধু নির্বাচন কমিশনের কাজ তাও নয়। এসব ব্যাপারে সরকার এবং রাজনৈতিক দলগুলোর ভূমিকা ও দায়দায়িত্ব কম নয়। নির্বাচন কমিশনকে বিতর্কমুক্ত করতে হলে, আস্থার দিকে পুষ্ট করতে হলে সরকারকে ব্যাপক ইতিবাচক ভূমিকা পালন করতে হবে। যেমন সমতল ভূমি নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে সরকারের ভূমিকাই এখন অন্তত মুখ্য।

নির্বাচন কমিশনকে স্বাধীন ও শক্তিশালী করার ব্যাপারে এযাবৎ কথাবার্তা, আলোচনা-পর্যালোচনা কম হয়নি। একটা কথা মনে রাখা দরকার, একটা সম্মানজনক বিধিবিধান ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে একটি রাষ্ট্রের সবকিছু সম্পন্ন হওয়া উচিত। নির্বাচন কমিশন শক্তিশালী ভূমিকা পালন করুক, শুধু এ কথা বললেই তো হবে না, সেরকম প্রেক্ষাপট কতটা বিদ্যমান তাও আমাদের আমলে নেওয়া প্রয়োজন। আমরা আশা করব, নির্বাচন কমিশন তাদের সাংবিধানিক মর্যাদাবলে ক্ষমতা বলয় প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে অনড় থেকে দেশ-জাতির বৃহৎ স্বার্থে নিজেদের অবস্থান নিশ্চিত করার জন্য নিজেরা লড়বে।

এম হাফিজউদ্দিন খান, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

WordPress spam blocked by CleanTalk.