১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ২:৪৬

বিয়ের অনুমতি পেতেই কেটে গেল ৭ বছর!

বিনোদন রিপোর্ট: মিরা। ছবি- ইন্টারনেটভারত-পাকিস্তান দুদেশেই পরিচিত মিরা। দেশ দুটির যৌথ উদ্যোগে ২০০৫ সালে ‘নজর’ নামে একটি ছবি করেন তিনি। ভারতে ‘কসক’ নামের ছবিতেও কাজ করেছেন। আর পাকিস্তানে অভিনয়ের পাশাপাশি উপস্থাপনাতেও সরব তিনি। হঠাৎই ২০০৯ সালে তাকে স্ত্রী বলে দাবি করেন আতিক-উর-রহমান নামে ফয়সালাবাদের এক ব্যবসায়ী।

তার মতে, ২০০৭ সালে লোকচক্ষুর আড়ালে বিয়ের অনুষ্ঠান হয়েছিল তাদের। কিন্তু মিরা নাকি কোনোদিন প্রকাশ্যে তাকে স্বামী বলে স্বীকার করেননি। ভক্তদের কাছে বলেছেন, তিনি অবিবাহিত।
এতেই থেমে থাকেননি অখ্যাত এ ব্যবসায়ী। অকাট্য প্রমাণ হিসেবে বিয়ের কাগজপত্রও আদালতে দাখিল করেছিলেন। আর আবেদন জানান, মিরার মেডিকেল পরীক্ষা করে দেখা হোক।
তাকে বিচ্ছেদ না দিয়ে অভিনেত্রী যাতে অন্য কাউকে বিয়ে করতে না পারেন, সে আবদারও ছিল তার।

তবে আতিকের সব আবেদন আমলে নেয়নি পাকিস্তানের লাহোর আদালত।
গত সপ্তাহে বিষয়ে একটি রায় আসে। এখনও চূড়ান্ত রায় ঘোষণা হয়নি। পারিবারিক আদালতে মিরাকে বিয়ের অনুমতি দিয়েছে। সে আদালতের বিচারক বাবর নাদিম বলেন, ‘‘বিয়ের কাবিননামা জাল না সঠিক, তা এখনও বিচারযোগ্য। কিন্তু পরিবার আদালত আইনে মিরাকে বিয়ে করা থেকে কেউ আটকাতে পারবে না।’’

এদিকে মিরা বরবারই আতিককে মানসিক স্থিতিবিহীন মানুষ বলে এসেছেন। নতুন এ রায়ে মিরা নিজের ফেসবুকে লেখেন ‌‘অবশেষে বিচার পেলাম।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*