১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ২:৪১

গোপনাঙ্গের রোগ থেকে নিজেকে সুরক্ষিত রাখুন

স্বাস্থ্য বার্তা ডেস্কঃ কমবেশি প্রত্যেক মহিলাই এই সমস্যার শিকার। লজ্জায় গোপন রাখেন। কীভাবে ছড়ায় গোপনাঙ্গের সংক্রমণ? বন্ধ্যত্ব এড়াতে সতর্ক থাকবেন কীভাবে? জিনিয়া সরকারকে জানালেন উডল্যান্ডস হসপিটালের গাইনোকলজিস্ট ও ইনফার্টিলিটি বিশেষজ্ঞ ডা. ইন্দ্রনীল সাহা। যে কোনও বয়সেই মাত্রাতিরিক্ত স্রাব হওয়া চিন্তার কারণ হয়। বেশিরভাগ মহিলাই এই ব্যাপারে উদাসীন। কেউ বা লজ্জায় সমস্যা গোপন করেন। এমন করবেন না। ঠিকমতো যত্ন না নিলে, পরিচ্ছন্ন না থাকলে হতে পারে ইনফেকশন। ভ্যাজাইনাল ইনফেকশনের নানা কারণ ও লক্ষণ রয়েছে।

সংক্রমণের সময়: মহিলাদের যোনি থেকে যে কোনও বয়সেই স্বাভাবিক নিয়মে স্রাব নিঃসৃত হয়। ১৮ বছরের পর থেকে এই নিঃসৃত বস্তুর মাত্রা নির্ভর করে ঋতুচক্রের গতিবিধির উপর। যোনিপথে অল্প ব্যাকটিরিয়ার উপস্থিতি স্বাভাবিক। যখনই অস্বাভাবিক মাত্রায় সাদা স্রাব নিঃসৃত হতে থাকে তখনই বোঝা উচিত তা সংক্রমণের লক্ষণ। ১২-১৮ বছর বয়সিদের ফাংগাল ইনফেকশন, ক্যানডিডা হতে পারে। এত কম বয়সে যৌনজীবনে সক্রিয় হলে তা থেকেও সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকে। ৫-১০ বছর বয়সে অনেক সময় কোনও ফরেন বডি যেমন, টুকরো খেলনা, বা কোনও শক্ত জিনিসের আঘাত থেকে যোনিতে সংক্রমণ হতে পারে। সদ্যোজাতর জন্মের প্রথম ২-৩ সপ্তাহের মধ্যে অনেক সময় ভ্যাজাইনাল ডিসচার্জ হতে থাকে। কখনও কখনও যোনি পথে হঠাৎ রক্তের উপস্থিতি দেখা যায়। গর্ভাবস্থায় মায়ের শরীরে ইস্ট্রোজেন হরমোনের মাত্রা বেশি থাকায়, শিশুর শরীরেও এই হরমোনের মাত্রা বেশি থাকে। কিন্তু জন্মের পর অর্থাৎ জঠর থেকে বেরনোর পরই শিশুর শরীরে ইস্ট্রোজেনের মাত্রা কমে যায়। এই হরমোনের তারতম্যের কারণেই সদ্যজাতর কিছুদিনের মধ্যে যোনি থেকে হঠাৎ ব্লিডিং শুরু হতে পারে। এটি কোনও সংক্রমণ নয়। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

আড়ালে কী? মূলত ইস্ট ইনফেকশন অথবা সেক্সুয়াল ট্রান্সমিটেড ডিজিজ (এসটিডি) থেকে প্রাপ্তবয়স্কদের যৌনাঙ্গে সংক্রমণ বেশি হয়। এসটিডি-র মূল কারণ অসুরক্ষিত যৌনজীবন, একাধিক যৌন সঙ্গী। যৌন মিলনের ক্ষেত্রে পার্টনারের কোনও ইনফেকশন থাকলে তা থেকেও সঙ্গিনীর সংক্রমণ হতে পারে। যাঁরা চাকরি করেন, বাড়ির বাইরের শৌচালয় ব্যবহার করেন তাঁরা বেশি ইস্ট ইনফেকশনে আক্রান্ত হন। যাঁদের ডায়াবেটিস অনিয়ন্ত্রিত, তাঁদের ক্যানডিডা ইনফেকশনের প্রবণতা খুব বেশি থাকে। ডায়াবেটিস থাকলে তা নিয়ন্ত্রণে রাখুন। ১৮ বছর বয়সের পর বেশিরভাগক্ষেত্রেই সংক্রমণের জন্য দায়ী ভ্যাজাইনাল হাইজিন ঠিকমতো মেনে না চলা। আবার প্রয়োজনের চেয়ে বেশি মাত্রায় ভ্যাজাইনাল হাইজিন মেনে চললে তাও বিপদ ডেকে আনে।

সুরক্ষিত থাকতে:

মাসিকের সময় কাপড় নয়, স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার করুন।
ট্যাম্পনের ব্যবহার যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলা উচিত। দীর্ঘ সময় ধরে এটি ব্যবহার করলে সংক্রমণের সম্ভাবনা খুব বেশি।
প্রস্রাব করার পরে, যোনি জল দিয়ে পরিস্কার করে নেওয়া উচিত।
পরিষ্কার ও সুতির অন্তর্বাস ব্যবহার করুন।
স্নান করার সময় শুধু জল দিয়ে যোনি পরিষ্কার করুন। খুব বেশি পরিষ্কার রাখতে সাবানের ব্যবহার না করাই ভাল। সাবানে অ্যাসিড বা ক্ষার থাকায় তা থেকে ভ্যাজাইনার ক্ষতি হয়। সংক্রমণের প্রবণতা বাড়ে। কোনও ধরনের পারফিউম বা অ্যান্টিবায়োটিক তেল, লোশন ব্যবহার না করাই উচিত।
সংক্রমণের লক্ষণ থাকলে নিজে থেকে কোনও ওষুধ না খেয়ে, দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
সবসময় সুরক্ষিত যৌন মিলন করুন।

মেনোপজের পর: ৪০-৪৫ বছর বয়সি মহিলাদের মেনোপজের পর যোনি থেকে রক্তপাত হলে সাবধান। তা সার্ভিক্স ক্যানসার অথবা জরায়ুর ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে। এই বয়সে শরীরে ইস্ট্রোজেন হরমোনের মাত্রা কমে যাওয়ার জন্য ভ্যাজাইনাল ইনফেকশনের সম্ভাবনা খুব বেশি থাকে। তাই অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ ছাড়াও হরমোন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপি করা দরকার।

ডাক্তারের পরামর্শ নিন:

স্বাভাবিকভাবে যোনি পথে যে ডিসচার্জ হয় তার রং সাদা হবে। যদি এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে লালচে, হলদে কিংবা সবুজ রঙের স্রাব নিঃসৃত হয় তবে তা সংক্রমণের লক্ষণ হতে পারে।
স্রাবের গন্ধ আঁশটে হলে সতর্কতা জরুরি।
স্রাবের ধরন পিচ্ছিল না হয়ে যদি দীর্ঘদিন ধরে ঘন ধরনের হতে থাকে, তবে তা ভয়ের কারণ হতে পারে।
অতিমাত্রায় স্রাব।
প্রস্রাবের সময় জ্বালা, যোনি লাল হওয়া, যৌন মিলনের পর কিছুদিন ধরে হঠাৎ হঠাৎ রক্তপাত সংক্রমণের লক্ষণ।
মনে রাখুন:

যে কোনও ধরনের স্রাব ক্ষরণ সাত দিনের বেশি হলে তা অবহেলা করবেন না।
কখনও এই ধরনের সমস্যার ক্ষেত্রে ওভার দ্য কাউন্টার ওষুধ খাওয়া বা অ্যান্টিবায়োটিক ও ক্রিম ব্যবহার করা চলবে না।
এই ধরনের গোপন সমস্যার অবহেলা না করে চিকিৎসকের সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করে পরামর্শ নিন।
১২-১৮ বছর বয়সি মেয়ের খুব বেশিমাত্রায় সাদাস্রাব নিঃসৃত হচ্ছে কি না তা অবশ্যই মায়ের খেয়াল রাখা উচিত। একইসঙ্গে নজরে রাখতে হবে মেয়েটি কোনওভাবে যৌন হেনস্তার শিকার হচ্ছে কি না।
বারবার ইনফেকশন হলে তা থেকে ফ্যালোপিয়ান টিউব ব্লক হতে থাকে। যা মহিলাদের বন্ধ্যাত্বের কারণ হতে পারে। তাই সতর্কতা অত্যন্ত জরুরি।
সার্ভিক্স ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে যৌনজীবন শুরু হওয়ার পর থেকেই তিন বছর অন্তর প্যাপস্মিয়ার টেস্ট করানো অত্যন্ত জরুরি। এই টেস্ট করে সার্ভিক্সের মধ্যে কোনও ক্যানসার সেল তৈরি হচ্ছে কি না তা বোঝা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*