২৬শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং | ১৩ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ১০:০৬

অস্তিত্ব নেই হিন্দু সন্ত্রাসের, এই পরিসংখ্যানই তার প্রমাণ

প্রতিবেশী ডেস্কঃ সন্ত্রাসের কোন ধর্ম নেই। এই বক্তব্যটার বহুল প্রচার হলেও, ভারতের একাধিক তথা-কথিত বুদ্ধিজীবী, সেকুলার বলে দাবি করা বাম ও ডানপন্থী রাজনৈতিক দলগুলো এবং এক শ্রেণীর মিডিয়া কিন্তু সার্বিক ভাবে ওই বক্তব্য-কে সমর্থন করে না। যদিও তাদের কখনোই সেটা স্বীকার করতে দেখা যায়ে নি। খেয়াল করলেই দেখা যায়ে, ওনারা সন্ত্রাসের সঙ্গে অন্য কোন ধর্মের যোগ খুঁজে না পেলেও, সনাতনী হিন্দু ধর্মের সঙ্গে সন্ত্রাসের যোগ খুঁজে পায়ে। মাঝে মাঝেই সন্ত্রাসের সঙ্গে সনাতনী হিন্দু ধর্মের নাম জড়িয়ে দেওয়ার বৃথা চেষ্টা করতেই থাকেন। গোটা দেশকে অসহিষ্ণু বলে প্রচার করে ঘুরপথে সনাতনী হিন্দু সমাজকে টার্গেট করে থাকেন। মজার বিষয় হল এদের মুখে একবারের জন্যেও কিন্তু সনাতনী হিন্দু ধর্ম ছাড়া অন্য কোন ধর্মের সঙ্গে সন্ত্রাসের যোগাযোগ স্থাপন করার চেষ্টা করতেও তাদের কোন দিনই দেখা যায়েনি।

কিন্তু সনাতনী হিন্দু ধর্ম বা সমাজ কি সত্যই অসহিষ্ণু? সত্যই কি এই ধর্মের সঙ্গে সন্ত্রাসের যোগ রয়েছে? নিচের ছোট্ট পরিসংখ্যানটি দেখলেই যদিও পরিষ্কার ভাবে বোঝা যাবে সনাতনী হিন্দুরা কতটা সন্ত্রাসবাদী বা অসহিষ্ণু,
ভারতে প্রায়ে ৩.৫ লক্ষ্য মসজিদ রয়েছে, যা পৃথিবীর অন্য কোন দেশে নেই। এমন কি সৌদি আরব তথা কোন ১০০% মুসলিম অধ্যুসিত দেশেও নেই।
ভারতের মুসলমানদের একটি সংগঠনের প্রধান মাদানি বলেছিলেন, মুসলমানদের জন্য ভারতবর্ষই(প্রায়ে ৮০% হিন্দু অধ্যুসিত) সব থেকে বেশি নিরাপদ।
যেখানে মাত্র ২% খৃষ্টানদের(ভারতের মোট জনসংখ্যার) জন্য দিল্লীতেই রয়েছে প্রায়ে ২৭১ টি চার্চ, সেখানে খৃষ্টান জনবহুল(৯০%-র বেশি) দেশ আমেরিকার রাজধানী ওয়াশিংটনে রয়েছে মাত্র ২৪ টি চার্চ। ইতালির মিলান শহরে রয়েছে রয়েছে ৬৮ টি চার্চ এবং লন্ডনে রয়েছে ৭১ টি চার্চ।

পৃথিবীর অন্য কোন দেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ধর্ম পালনের জন্য এত বিরাট সংখ্যাতে ধর্মস্থান তৈরি করতে দেওয়া হয়েছে বলে মনে হয়ে না। ভারতের সংখ্যালঘুরা কিন্তু বিনা বাধাতে তা করতে পেরেছে, কারণ ভারতীয় সংস্কৃতি ঘৃণা শেখায়ে না, অন্যকে আক্রমণ করতে শেখায়ে না। তবে অবশ্যই, আক্রান্ত হলে আত্মরক্ষা করতে শেখায়ে এই সংস্কৃতি। আমরা সকলেই জানি এই ভারতীয় সংস্কৃতির ভিত্তিটাই হল হিন্দু সনাতনী ধর্ম এবং সংস্কৃতি। এর পরেও অদ্ভুত ভাবেই ভারতের বাম এবং তথাকথিত সেকুলার দল গুলো শুধুমাত্র সনাতনী হিন্দু ধর্মের সঙ্গে সন্ত্রাসের নাম জড়াতে চায়ে। যদি প্রায়ে ৮০% হিন্দু সনাতনী দেশের সমাজ সত্যই অসহিষ্ণু হত, যদি সত্যই সনাতনী হিন্দু সন্ত্রাসবাদ থাকতো, তবে কি কখনোই প্রায়ে ৮০% সনাতনী হিন্দুর দেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা এতটা নিশ্চিন্তে থাকতে পারতো? তারা কি প্রচুর পরিমাণে নিজেদের ধর্মস্থান গুলো তৈরি করতে সক্ষম হত?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

WordPress spam blocked by CleanTalk.