২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ১১:০৩
সর্বশেষ খবর
মুরাল ভাই

মুরাল ভাইয়ের মতো মানুষের জন্ম হোক জগতের কল্যাণে

শুভানন্দ পুরীঃ মানব সেবার এক অনন্য নাম ও ত্যাগী মহান পুরুষ, দক্ষিণেশ্বর আদ্যাপীঠের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মুরাল ভাই।

১৯৪৫ সালের ৩ জানুয়ারি বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী থানার ঐতিহ্যবাহী কালীপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তাঁর পিতার নাম স্বর্গীয় অক্রুর চৌধুরী এবং মাতার নাম স্বর্গীয়া স্বর্ণলতা চৌধুরী। মুরাল ভাই এর পূর্বাশ্রমে নাম ছিল মুরাল চৌধুরী। মুরাল ভাই এর একমাত্র বড়ভাই দুলাল কান্তি চৌধুরী বাঁশখালী থানার স্কুল ইন্সপেক্টর ছিলেন। একমাত্র আদরের বোন খুকুরানী বর্তমানে স্বর্গবাসী।

মুরাল ভাইয়ের বয়স যখন মাত্র ছয়, তখন তিনি তাঁর পিতাকে হারান। দশ বছর বয়স যখন তাঁর, তখন তাঁর গর্ভধারিনী জননীও ইহলোকের মায়া ত্যাগ করে নিজের সন্তান-সন্ততিদের অকূল সাগরে নিক্ষেপ করে পরলোকগমন করেন। পিতৃ মাতৃহীন মুরাল ভাইকে তাঁর বড়োভাই দুলাল কান্তি চৌধুরী পিতামাতার সমান স্নেহচ্ছায়া দিয়ে প্রতিপালন করেন।

মুরাল ভাই চট্টগ্রামের বাঁশখালী থানার কালীপুর এজহারুল হক স্কুল থেকে এস.এস.সি পাশ করেন। সাতকানিয়া ডিগ্রি কলেজ থেকে আই.এস.সি, কানুনগোপাড়ার স্যার আশুতোষ কলেজ থেকে পদার্থ বিদ্যায় অনার্স সহ বি.এসসি পাশ করেন এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৮ সালে এম.এসসি ডিগ্রি লাভ করেন।

আশৈশব বিবেকানন্দের আদর্শে উদ্বুদ্ধ ও পরিচালিত মুরাল ভাই বর্তমানে সেবার এক অনন্য নাম। যিনি জীবনের তিয়াত্তরটি বছর কাটিয়ে দিলেন মানবের কল্যাণে, বিশ্বমানবের সেবায়। কিন্তু মা-বাবাকে শৈশবে হারানোর ব্যথা বেদনা কোনো দিনই ভুলতে পারেননি মুরাল ভাই।

এম.এসসি পাশ করার পর একটি ভাবনা মুরাল ভাইয়ের মনে জাগল যে এই সংসারটা সত্যিই মায়াময় কিন্তু তা সত্ত্বেও কেউই এই পৃথিবীতে চিরদিন থাকবে না। তাঁর মা-বাবাও চলে গেছেন অকালে। তাঁকে একদিন চলে যেতে হবে। সুতরাং তাঁর দ্বারা এই মায়াময় সংসারে আবদ্ধ থেকে কোনো মহৎ কার্য সিদ্ধ হবে না। তাঁকে এই মায়াডোর ছিন্ন করে বৃহত্তর জগতে পাড়ি দিতে হবে। বৃহৎ জগৎ সংসার যাঁকে ডাকে, সে কী কখনো ক্ষুদ্রতর গণ্ডীতে আবদ্ধ থাকতে পারেন? না পারেন না। তাই তো বড়দার স্নেহমায়া মমতার গণ্ডী পেরিয়ে ঘর থেকে পথে পা বাড়িয়ে আজ প্রায় পঁয়তাল্লিশ বছর ধরে সমাজের অগণিত মানুষের সেবা করার লক্ষ্যে পরিভ্রমণ করে বেড়াচ্ছেন সারাবিশ্বে। তিনি এমন একজন অসাধারণ মানুষ যিনি মুক্তকণ্ঠে উচ্চারণ করতে পারেন যে, তাঁর শুধু একটাই ধর্ম এবং সেটা হলো মানব ধর্ম। তাঁর শুধু একটাই জাতি, সেটা হলো মানব জাতি। তাঁর গর্বিত উচ্চারণ, আমি বাংলার সন্তান। বাংলাদেশ আমার প্রাণের দেশ।

কলকাতার দক্ষিণেশ্বরের আদ্যাপীঠে রামকৃষ্ণ সংঘে যখন প্রথম গিয়ে দেখলেন শত শত অনাথ ছেলেমেয়ে, বৃদ্ধ-বৃদ্ধা সংঘের আশ্রমে প্রতিপালিত হচ্ছে, তখন তাঁদের দেখে মুরাল ভাইয়ের হৃদয় বিগলিত হলো। তাঁদের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়লেন। তাঁদের সেবায়, তাঁদের যত্নে, তাঁদের শিক্ষাদীক্ষায় নিজেকে সম্পন্ন নিয়োজিত করলেন।

১৯৭০ সালেই মুরালভাই চট্টগ্রাম থেকে কলকাতায় চলে যান। তাঁর কিছুদিন পরেই বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়েছিল। আর পাঁচজন বাঙালির মতো মুরাল ভাইও স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন। মায়ের বন্ধন দশা দেখে ব্যথিত চিত্তে দেশমাতৃকার বন্ধন মোচনের জন্য নিজের জীবনকে বাজি রেখেছিলেন দেশমাতৃকার চরণ তলে। তবে সন্ন্যাস জীবন গ্রহণ করার জন্য ওসব আর মনে ঠাঁই দিতে চান না মুরাল ভাই। যেহেতু তিনি বর্তমানে সন্ন্যাস জীবনযাপন করছেন সুতরাং সব ভাইই তো তাঁর ভাই। সবাইকে ভ্রাতৃত্বের সুদৃঢ় বন্ধনে আবদ্ধ করাই সন্ন্যাসীর ধর্ম।

মুরাল ভাই সবসময়ই শ্রী শ্রী সারদা মায়ের সরল মনের সহজ কথা ভাবেন। সারদা মা বলতেন, যদি শান্তি চাও তাহলে কারো দোষ দেখো না। দোষ দেখবে নিজের আর সকলকে আপন করতে শেখো। এই কারণেই মুরাল ভাই পূর্ব জীবনের ঐ ভাবধারাটা মন থেকে একেবারেই মুছে ফেলতে সক্ষম হয়েছেন এবং তিনি সদাসর্বদাই চেষ্টা করে চলেছেন আগের জীবনের সবকিছু ভুলে থাকতে।

মুরাল ভাই এর আদ্যাপীঠ আশ্রমে পাকাপাকি থাকার যখন চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়ে গেল, এবার প্রয়োজন হলো দীক্ষা নেবার। বেলুড়মঠের দশম সভাপতি শ্রী শ্রী স্বামী বীরেশ্বানন্দ মহারাজজীর কাছে মুরাল ভাই দীক্ষা নিলেন। দীক্ষা শেষে মুরালী চৌধুরী হলেন মুরাল ভাই। সবার প্রিয় মুরাল ভাই।

অন্নদা ঠাকুর বলতেন, সকলের নামের পাশে যেন ভাই কথাটি থাকে। মুরালী চৌধুরী শ্রী শ্রী অন্নদা ঠাকুরের আদর্শ অনুসরণ করে তার পূর্বনাম পরিবর্তন করে মুরাল ভাই-এ রূপান্তরিত হলেন। এইভাবেই তাঁর ব্রহ্মচারী সাধন জীবনের প্রায় ৪৭টা বছর অতিক্রান্ত হতে যাচ্ছে এবং তাঁর সমগ্র জীবনের প্রায় সত্তরটা বছর তিনি অতিবাহিত করলেন মানব সেবা ও নানাবিধ মানব কল্যাণমুখী কর্মের মাধ্যমে। মুরাল ভইয়ের দীক্ষাগুরু স্বামী বীরেশ্বানন্দ মহারাজ স্বয়ং সারদ মায়ের দীক্ষিত সন্তান ছিলেন। সহজেই অনুমেয় তাঁর মতো এক সদগুরুর কাছে দীক্ষা নেওয়া রীতিমতো সৌভাগ্যের ব্যাপার।
মুরাল ভাই তাঁর সমগ্র জীবনে শ্রীরামকৃষ্ণ-সারদামা-স্বামী বিবেকানন্দ-অন্নদা ঠাকুরের স্বপ্ন সার্থক করার আপ্রাণ প্রয়াসে উৎসর্গীকৃত।

সত্তরোর্ধ জীবনে তিনি অধ্যাত্ম জীবনযাপনের পাশাপাশি আপামর জনসাধারণের কল্যাণের জন্য, মঙ্গলের জন্য নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। বালকাশ্রমের সার্বিক কল্যাণের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন। আহার নিদ্রা বিশ্রাম ভুলে গেছেন। আদ্যাপীঠের জন্য তাঁর সব ভালোবাসা উজাড় করে দিয়েছেন। বালকাশ্রম, বালিকাশ্রম যদি তাঁর ধ্যান, জ্ঞান, প্রেম হয় কিন্তু আধ্যাপীঠের প্রতি তাঁর দায়িত্ব ও কর্তব্য ততোধিক। তাঁর ওপর আরোপিত সমস্ত দায়িত্ব তিনি নীরবে এবং অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে পালন করে চলেছেন। কেউ জানতে পারেন না একই সঙ্গে তিনি এতোগুলি গুরুত্বপূর্ণ কাজ কেমন করে সামলাচ্ছেন। ঐশ্বরিক ক্ষমতা না থাকলে এইসব কাজ প্রায় একা হাতে সামলানো সহজ ব্যাপার না। মুরাল ভাইয়ের দীর্ঘ কর্মময় জীবন।

তাঁর চেয়েও দীর্ঘ স্মরণীয় তাঁর স্নেহময়, কর্মময় ব্যক্তিত্ব। কিসে মানুষের কল্যাণ হবে, মঙ্গল হবে, কীভাবে দুঃখীর চোখের জল মোছানো যাবে এই হলো তাঁর জীবন সাধনা। কী করে একজন দুর্গত মানুষকে সামান্য শান্তি ও আশ্বাস দেওয়া যাবে এই চিন্তায় ব্যস্ত হয়ে উঠতেন তিনি। সন্ন্যাসীর নির্মোহ জীবনযাপন তিনি করেন, তা সত্ত্বেও মানুষের কল্যাণে তিনি জীবনভর সেবাব্রত পালন করে চলেছেন গভীর নিষ্ঠায়, তাঁর কর্ম উদ্যোগ অপরকে প্রাণিত করছে। সকলের কাছে তাঁর প্রিয় পরিচয় মুরাল ভাই। শুধু ভারতবর্ষের নয়, দেশে বিদেশেও তিনি পরিভ্রমণ করেছেন অনেকবার। তাঁর একটি মাত্র লক্ষ্য সারা পৃথিবীতে ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণের, সারদা মায়ের, স্বামী বিবেকানন্দের তথা শ্রী শ্রী অন্নদা ঠাকুরের জীবনাদর্শ প্রচার করা। আমারও প্রার্থনা মানবতার সেবায় মানুষের কল্যাণে তিনি জয়ী হোক। সমগ্র পৃথিবীর মানুষের কল্যাণে তিনি আরো এগিয়ে যান।

মানবতার জয় হোক, মানুষের মুক্তি হোক। অনাথ, এতিম শিশুরা যেন একবারও না খেয়ে থাকতে না হয় এই পৃথিবীতে। পৃথিবীর প্রতিটি প্রান্তে মুরাল ভাইয়ের মতো মানুষের জন্ম হোক মানুষের কল্যাণে।

 

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.