সর্ব শেষ খবর
১৮ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং | ৫ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:৪৭

রাত থেকে সমস্যা হতে পারে ইন্টারনেটে

প্রযুক্তি ও ওয়েব ডেস্কঃ দেশের প্রথম সাবমেরিন কেবল (এসইএ-এমই-ডব্লিউই-৪) মেরামত কাজের জন্য সোমবার (২৩ অক্টোবর) মধ্যরাত থেকে তিন দিনের জন্য বন্ধ থাকবে। ব্যান্ডউইথের ঘাটতির কারণে ইন্টারনেটের গতি এ সময়ে কম হতে পারে।

সাবমেরিন কেবলের মালিক প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি লিমিটেড (বিএসসিসিএল) ও ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান সূত্রে এ তথ্য জানা যায়। এর আগে রোববার রাত থেকে এ সমস্যা হতে পারে বলেও জানিয়েছিল বিএসসিসিএল।

বিএসসিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মশিউর রহমান গণমাধ্যমকে জানান, আবহাওয়া খারাপ থাকার কারণে রোববার রাতে কাজ শুরু করা হয়নি। তবে আজ (সোমবার) রাত থেকে কাজ শুরু করা হবে এতে কিছু সমস্যা হতে পারে, তবে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কাজ শেষ করা হবে।

এ কর্মকর্তারা আরও জানান, সম্প্রতি চালু হওয়া দ্বিতীয় সাবমেরিন কেবল ভারত থেকে আমদানি করা ব্যান্ডউইটথ দিয়ে ইন্টারনেট ঘাটতি মেটানোর চেষ্টা করা হবে। বর্তমানে দেশে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইটথের দৈনিক চাহিদা ৪৫০ জিবিপিএস প্রতি সেকেন্ড। এর মধ্যে প্রথম সাবমেরিন কেবল থেকে ২৫০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইটথ পাওয়া যায়। বাকি ২০০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইটথ ভারত থেকে আইটিসি (ইন্টারন্যাশনাল টেরেস্ট্রিয়াল কেবল) কোম্পানির মাধ্যমে আমদানি করা হয়।

এর আগে প্রথম ২২ সেপ্টেম্বর থেকে মেরামত শুরু করার কথা থাকলেও পরে আরেক দফা সময় বদল করা হয়। মোট দুবার কাজ পিছানো হয়েছে বলে জানান বিএসসিসিএল। এই কেবলের ল্যান্ডিং স্টেশন কক্সবাজারে অবস্থিত। ল্যান্ডিং স্টেশন থেকে ১১৫ কিলোমিটার দূরে একটি রিপিটার প্রতিস্থাপনের জন্য এ মেরামতকাজ চলবে বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশ ২০০৫ সালে প্রথম সাবমেরিন কেবলের (সাউথ ইস্ট এশিয়া-মিডিল ইস্ট-ওয়েস্টার্ন ইউরোপ-৪) সঙ্গে সংযুক্ত হয়। ২০০৫ সালে চালুর পর প্রথমবারের মতো এ সাবমেরিন কেবল সম্পূর্ণ বন্ধ করে দিয়ে এর মেরামত করা হবে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বর থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হয়েছে দ্বিতীয় সাবমেরিন কেবল।

ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন আইএসপিএবির সভাপতি এম এ হাকিম জানান, মেরামত কাজের জন্য প্রথম সাবমেরিন কেবল বন্ধ থাকার বিষয়টি বিএসিসিএল থেকে জানানো হয়েছে। এতে দেশের ইন্টারনেটের গতির ওপর কিছুটা প্রভাব পড়বে, তবে তা সাময়িক সময়ের জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*