২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৪:১৬
সর্বশেষ খবর

বিচার ব্যবস্থা নিয়ে এত বাড়াবাড়ি ভালো না

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকী বলেছেন, বিচার ব্যবস্থা নিয়ে এত বাড়াবাড়ি ভালো না।প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে যেভাবে অগ্রসর হচ্ছে, সেই পদ্ধতিটিও ঠিক নয়।এটা নিয়ে অনেক পানি ঘোলা হবে। তিনি এখনও বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি। তার বিরুদ্ধে নিয়ম মতো অভিযোগ আসতে হবে। সেটা কোর্টের মাধ্যমে আসতে হবে।

সোমবার (১৬ অক্টোবর) সন্ধ্যায় মোহাম্মদপুরের নিজ বাড়িতে সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন কাদের সিদ্দিকী।
প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার ছুটিতে যাওয়া, পরে তার বিরুদ্ধে ১১টি অভিযোগ তোলা-এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘বিচার ব্যবস্থা নিয়ে এত বাড়াবাড়ি ভালো না। এ ব্যাপারে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। বাংলাদেশের একটি কৃষ্টি-সভ্যতা আছে। তাতে আমরা অন্যের অসুখ-বিসুখে খুব সচেতন থাকি। এক্ষেত্রে প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার ক্যান্সার নিয়ে যেভাবে বলা হয়েছে, তা বাঙালি কৃষ্টি ও সভ্যতা সমর্থন করে না। প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে যেভাবে অগ্রসর হচ্ছে, সেই পদ্ধতিটিও ঠিক নয়। এটা নিয়ে অনেক পানি ঘোলা হবে।’

তিনি বলেন, ‘সৌভাগ্য বা দুর্ভাগ্যবশত তিনি হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক। দু’দিন পরে এমনও হতে পারে, গ্রামে হিন্দুদের ঘর-বাড়ি দখল করা হবে। তাদের মেয়েদের নিয়ে যাওয়া হবে, শহরে হয়তোবা এমন হবে না। কারণ, এখানে প্রচুর হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক এবং তাদের অফিস-আদালত আছে। কিন্তু গ্রামে হিন্দুরা যথার্থই নির্যাতিত। যেহেতু দেশে রাজনীতি নাই। রাজনীতি একটি সমাজের প্রধান মানদণ্ড।

দেশে একতরফা রাজনীতি হয়ে যাওয়ায়, কোনও ভারসাম্য নেই। প্রধান বিচারপতির পদে থাকতে তার নামে দুর্নীতির অভিযোগ অতীতে এসেছে বলে মনে হয় না। তিনি এখনও বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি। তার বিরুদ্ধে নিয়ম মতো অভিযোগ আসতে হবে। সেটা কোর্টের মাধ্যমে। কিন্তু তাকি এসেছে? শুনলাম, রাষ্ট্রপতির কাছে তার বিরুদ্ধে ১১টি অভিযোগ এসেছে। রাষ্ট্রপতির কাছে অভিযোগ যাওয়ার একটি পদ্ধতি আছে। রাষ্ট্রপতি ইচ্ছা করলে কারও অভিযোগ নিতে পারেন না, বা কাউকে অভিযুক্তও করতে পারবেন না।

রাষ্ট্রপতি সবকিছু করেন প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শক্রমে। কোনও কোনও পরামর্শ তাকে লিখিত আকারেও নিতে হয়। এটা সংবিধানে স্পষ্ট করে বলা আছে। তাহলে প্রধানমন্ত্রীর কাছে কি প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো লিখিত আকারে গিয়েছে? প্রধানমন্ত্রী কি রাষ্ট্রপতির কাছে অভিযোগগুলো পাঠিয়েছেন? আর যদি অন্য কারও কাছ থেকে রাষ্ট্রপতির কাছে অভিযোগ আসে, তিনি (অভিযোগকারী) কি সেই অভিযোগুলো প্রধান বিচারপতির নামে দিতে পারেন? সংবিধান কি তা অনুমোধন করে?

কাদের সিদ্দিকী বলেন,‘এখন যদি একজন সাধারণ বিচারপতিকে অপসারণ করতে জুডিশিয়াল কাউন্সিল লাগে। তাহলে একজন প্রধান বিচারপতির নামে অভিযোগ আনতে কিছুই লাগবে না! আর আইনমন্ত্রী বলে বসবেন, তার স্বপদে ফিরে আসা কঠিন। এটাতো বিচারের আগেই শাস্তি। জিনিসগুলো ভালো হচ্ছে না। ভালোভাবে যাচ্ছে না। এদেশে আমরা মনে হয়, ৫০ থেকে ৬০ লাখ হিন্দু ভোটার। তার প্রায় ৯০ শতাংশ নৌকা মার্কার প্রার্থীরাই পেয়ে থাকেন। এবার এসব কারণে যদি ৯ শতাংশও না পায়, তার ফলাফলটা কী হবে।’

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের প্রসঙ্গটি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ভালো শোনা যাক বা খারাপ শোনা যাক, ২০১৪ সালে নির্বাচন হয় নাই। ভারত আমাদের বন্ধু হলেও ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস ২০১৪ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে যেভাবে সাহায্য করছে, তা আওয়ামী লীগের জন্য ভালো হয় নাই। নির্বাচনে কংগ্রেসের সহায়তা আওয়ামী লীগের মতো একটি জনপ্রিয় দলকে মানুষের কাছে অপ্রিয় করে দিয়েছে।’

শোনা যাচ্ছে, আপনি ফের আওয়ামী লীগে ফিরে যাচ্ছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘আপিন এটা প্রশ্ন করতে পারেন। এটা আপনার প্রশ্ন। তবে আওয়ামী লীগে আবার যোগদান করা-না করা সময়ই বলে দেবে। এটা নিয়ে এখন কিছু বলতে চাই না।’

বিএনপি সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন চায়, অন্যদিকে আওয়ামী লীগ দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের কথা বলছে। আপনার দল কোন ব্যবস্থায় আগামী নির্বাচন চায়? এই প্রশ্নে কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘দেশ পরিচালনা করতে গেলে, দেশের প্রয়োজনে কখনও কখনও চাড়ালের সঙ্গে সংলাপে বসতে হয়।আগামী নির্বাচনটা আওয়ামী লীগ এবং তাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ।

বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন আওয়ামী লীগের জন্যই সবচেয়ে বেশি দরকার। পৃথিবীতে বহু মানুষ বহু বছর ক্ষমতায় ছিলেন। কর্নেল গাদ্দাফি ৪২ বছর ক্ষমতায় ছিলেন। এ পৃথিবীতে নাদির শাহ, মুসোলিনি, হিটলার এ রকম বহু শাসকের জন্ম হয়েছে। অনেকে বহু বছর শাসন ক্ষমতা পরিচালনা করেছেন। গণতান্ত্রিক সমাজের সৌন্দর্য হচ্ছে- শাসকরা ক্ষমতা ছাড়ার পরে সমাজে সম্মানের আসনে থাকেন। কেউ কেউ অতিরিক্ত করতে গিয়ে যতক্ষণ ক্ষমতায় থাকেন, ততক্ষণ সম্মানের আসনে থাকেন।

আর যেই মাত্র ক্ষমতা হাতছাড়া হয়, তখন থেকে অপমানিত হন। আর যা-ই হোক, আমি আওয়ামী লীগের জন্য এটা চাই না। আমার বোন শেখ হাসিনার জন্য তো অবশ্যই চাই না। আমি যখন বঙ্গবন্ধুর হত্যার কথা ভাবি, যেভাবে তার পরিবারকে হত্যা করা হয়েছে এটা ভাবি, তখন আমি সহজ থাকতে পারি না। আমি কারও অপমান কামনা করি না।’

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.