২৩শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং | ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | সকাল ৮:০১

শেখ রেহানাকে নিয়ে গুঞ্জন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মস্থান গোপালগঞ্জে বইতে শুরু করেছে নির্বাচনী হাওয়া। আওয়ামী লীগের দুর্গ খ্যাত এ জেলার পাঁচ উপজেলা নিয়ে গঠিত তিন সংসদীয় আসন। সব আসনেই স্বাধীনতা-পরবর্তী সময় থেকে রয়েছে আওয়ামী লীগের একচেটিয়া আধিপত্য। বরাবরই এসব আসনে বিজয়ী হয়েছেন নৌকার প্রার্থীরা।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় যত এগিয়ে আসছে, গোপালগঞ্জের প্রার্থী ও ভোটারদের মাঝে ততই জোরালো হচ্ছে নির্বাচনী আলোচনা। মুকসুদপুর ও কাশিয়ানী উপজেলার একাংশ নিয়ে গঠিত গোপালগঞ্জ-১ আসন। স্বাধীনতা-পরবর্তী সব নির্বাচনেই এ আসনে জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা। তবে এরশাদ সরকারের বিতর্কিত একতরফা নির্বাচনে জতীয় পার্টির প্রার্থীকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী করা হয়েছিল। দীর্ঘদিন ধরে এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী লে. কর্নেল (অব) ফারুক খান। সে কারণে নেতাকর্মীদের মাঝে চাপা ক্ষোভ থাকলেও প্রকাশ্যে কোনো কোন্দল নেই। তবে এবার নির্বাচনের আগেভাগেই এ আসনে খোদ বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ রেহানা প্রার্থী হয়ে আসতে পারেন বলে গুঞ্জন উঠেছে। এতে নেতাকর্মীদের মাঝে দেখা দিয়েছে আনন্দ-উচ্ছ্বাস।

জেলার অন্য ২টি আসনে নির্বাচনের আমেজ তেমন না থাকলেও এ আসনটিতে বইছে নির্বাচনী হাওয়া। হাটবাজার আর রাস্তাঘাট ছেয়ে গেছে রংবেরঙের পোস্টার, ব্যানার আর ফেস্টুনে।

মুকসুদপুর উপজেলার এক পৌরসভা ও ১৬ ইউনিয়ন এবং কাশিয়ানীর সাত ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত গোপালগঞ্জ-১ আসন। ৫১৮ দশমিক ৭০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১০ হাজার ৩শ ৩৫ জন। এর মধ্যে মহিলা ভোটার ১ লাখ ৫৫ হাজার ২শ ৮২ জন ও পুরুষ ১ লাখ ৫৫ হাজার ৫৩ জন। এ আসনে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ রেহানা ছাড়াও আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য লে. কর্নেল (অব) ফারুক খান এমপি, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য মুকুল বোস ও সংরক্ষিত আসনের এমপি উম্মে রাজিয়া কাজল। বিএনপি থেকে সম্ভাব্য প্রার্থী দলটির কেন্দ্রীয় নেতা সেলিমুজ্জামান সেলিম ও জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি এফ ই শরফুজ্জামান জাহাঙ্গীর। জাতীয় পার্টির সম্ভাব্য প্রার্থী দীপা মজুমদার। তবে এলাকার নেতাকর্মী ও সাধারণ ভোটারদের ধারণা, শেখ রেহানা প্রার্থী হয়ে না এলে বরাবরের মতো ফারুক খানের দখলেই থাকবে আসনটি।

সংসদ নির্বাচন প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ফারুক খান বলেন, আমি সব সময় এলাকার জনগণের সঙ্গে আছি, এলাকার উন্নয়নের জন্য কাজ করেছি, তা সবাই দেখেছেন। দলের কাছে আমি মনোনয়ন চাইব এবং আমি আশা করি, দল আমাকেই মনোনয়ন দেবে। তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনা দেশের যে উন্নয়ন করেছেন, সে জন্য তিনি বিদেশেও আন্তর্জাতিকভাবে সুনাম অর্জন করেছেন।

সাংসদ উম্মে রাজিয়া কাজল বলেন, দলের জন্য আমার অনেক ত্যাগ রয়েছে। আমি আগামী নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন চাইব এবং আশা করি দল আমাকে মনোনয়ন দেবে।

বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহসাংগঠনিক সম্পাদক সেলিমুজ্জামান সেলিম বলেন, আমি আগেও দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করেছি, এবারও দলীয় মনোনয়ন চাইব। আশা করি দল আমাকেই মনোনয়ন দেবে। তিনি আরও বলেন, এখানে আমি ছাড়া বিএনপির অন্য কোনো নেতা কারো সঙ্গে কোনো যোগাযেগ রাখেননি। সারা বছর নেতাকর্মীদের নিয়ে দলের জন্য যতটুকু পেরেছি কাজ করেছি। আমরা এখন মুকসুদপুর ও কাশিয়ানীতে সাংগঠনিকভাবে আগের চেয়ে অনেক শক্তিশালী।
গোপালগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি এফ ই শরফুজ্জামান জাহাঙ্গীর বলেন, সামনে অনেক সময় আছে। আগে দেখতে হবে নির্বাচনের কী পরিবেশ হয়। দল নির্বাচনে যায় কিনা। বিএনপি নির্বাচনে গেলে আমি গোপালগঞ্জ-১ এবং গোপালগঞ্জ-২ আসন থেকে দলীয় মনোনয়ন চাইব। যেখান থেকেই মনোনয়ন পাব, সেখান থেকেই নির্বাচন করব। তবে সুযোগ-সুবিধার কারণে গোপালগঞ্জ-১ আসন থেকে নির্বাচন করতে আগ্রহী তিনি।

মুকসুদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আতিকুর রহমান মিয়া বলেন, নেত্রী শেখ রেহানাকে এ আসনে মনোনয়ন দিলেও আমরা খুশি, ফারুক খানকে দিলেও আমরা খুশি। তবে এ দুজনের বাইরে কাউকে প্রার্থী দিলে আমিও প্রার্থী হব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

WordPress spam blocked by CleanTalk.