১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:১৭
হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ

সংখ্যালঘুরা রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ পদ প্রাপ্তি এবং পদায়নে বঞ্চনার শিকার

বিশেষ প্রতিবেদকঃ প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার ধর্মপরিচয় নিয়ে সরকারের ভেতরে এবং ক্ষমতাসীন দলের নেতৃত্বাধীন জোটের একটি অংশ সাম্প্রদায়িক উসকানি সৃষ্টি করতে তৎপর এবং সংখ্যালঘুরা রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদ প্রাপ্তি এবং পদায়নে বঞ্চনার শিকার হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে এসব অভিযোগ করা হয়। সংগঠনের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক রাণা দাশগুপ্ত।

লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করা হয়, সরকারি দল ও জোটের একাংশের বিভিন্ন সাম্প্রদায়িক বক্তব্য, মন্তব্য ও উক্তি সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী এবং সচেতন নাগরিকদের মধ্যে নেতিবাচক বার্তা পৌঁছে দিয়েছে, যা কোনোভাবে কাম্য না। রাণা দাশগুপ্ত বলেন, প্রধান বিচারপতিসংক্রান্ত বিষয়টি সামনে এনে সরকারের ভেতরে ‘ঘাপটি’ মেরে থাকা প্রতিক্রিয়াশীল মহলবিশেষ বিভেদ, বৈষম্য ও সাম্প্রদায়িক উসকানি সৃষ্টি করছে।

সংবাদ সম্মেলনে রাণা দাশগুপ্ত বলেন, আগের মতো আবারও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকদের বঞ্চিত করা হচ্ছে। এর ফলে পদোন্নতি ও উচ্চ পদে পদায়নে ‘ধর্মীয় পরিচয়’ মুখ্য বিষয় হিসেবে এখন কাজ করছে। এতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকেরা শঙ্কা বোধ করছে। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একজন ‘জ্যেষ্ঠ সচিব’ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বিষয়ে ‘অপতৎপরতা’ চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি।

‘জ্যেষ্ঠ সচিব’-এর নাম কী, তা জানতে চাইলে সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হয়, গণমাধ্যমে তাঁর নাম কয়েকবার এসেছে। সংগঠনের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমকর্মীদের নাম খুঁজে বের করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

প্রধান বিচারপতির বিষয়ে আপনাদের বক্তব্য কী—এক সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের জবাবে রাণা দাশগুপ্ত বলেন, ‘প্রধান বিচারপতির বিষয়ে আমাদের কোনো বক্তব্য নেই। তাঁর ধর্মপরিচয় নিয়ে যেসব বিষয় সামনে আসছে এবং অপতৎপরতা চলছে, সেই বিষয়টি আমাদের মূল উদ্বেগের কারণ।’

প্রধান বিচারপতির এক মাসের ছুটি এবং তাঁর দেশে থাকা না-থাকা নিয়ে আপনাদের সংগঠনের বক্তব্য কী—এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ বিষয়ে তাঁদের সংগঠনের কোনো বক্তব্য নেই। তাঁরা মূলত প্রধান বিচারপতির ধর্মপরিচয় নিয়ে যাতে সব সংখ্যালঘুর ওপর কোনো দায় চাপানো না হয়, সে বিষয়টি নিয়ে কথা বলতেই আজকের সংবাদ সম্মেলন করছেন।

সংবাদ সম্মেলনে ঐক্য ন্যাপের সভাপতি পঙ্কজ ভট্টাচার্য বলেন, তাঁদের লিখিত বক্তব্যে কোনো দ্ব্যর্থবোধকতা নেই। সবকিছু সুচিন্তিতভাবে লেখা। এখানে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে, তার ভিত্তি আছে বলে তিনি দাবি করেন।

হিন্দু বৌদ্ধ ঐক্য পরিষদের সভাপতি হিউবার্ট গোমেজ, সংসদ সদস্য উষাতন তালুকদার, সংস্কৃতিকর্মী সঞ্জীব দ্রং প্রমুখ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*