২৩শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং | ৮ই কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৩:৫৬

ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে গনগ্রেপ্তার ! মার্চে আগাম নির্বাচনের সম্ভাবনা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে আবারো শুরু হয়েছে গ্রেফতার অভিযান। এই অভিযান ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত চলবে বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে। ইতোমধ্যে রাজধানীসহ সারা দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা নতুন করে তথ্য সংগ্রহ সমাপ্ত করেছে। যারা বিরোধী রাজনীতির সাথে জড়িত তাদের বাড়ি বাড়ি তল্লাশি ও তাদের কর্মস্থলে নজরদারি শুরু হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র বলেছে যাদের বিরুদ্ধে মামলা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা আছে এবারের গ্রেফতারের তালিকায় তারা শীর্ষে রয়েছে। ইতোমধ্যে জামায়াতে ইসলামীর শীর্ষ নেতৃবৃন্দ এবং লেবার পার্টির সভাপতিসহ কয়েকজন গ্রেফতার হয়েছেন।

জামায়াতে ইসলামীর আমির মকবুল আহমাদ, সেক্রেটারি জেনারেল ডা: শফিকুর রহমানসহ দলটির আট নেতাকে গ্রেফতারের পর গতকাল তাদের প্রত্যেককে পাঁচ দিনের করে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। গত সোমবার রাতে উত্তরার ৬ নম্বর সেক্টরের একটি বাড়ি থেকে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উত্তরা বিভাগের সদস্যরা জামায়াত নেতাদের গ্রেফতার করেন। গোয়েন্দা পুলিশের অভিযোগ জামায়াত নেতারা নাশকতা সৃষ্টির জন্য মিটিং করছিলেন।

গ্রেফতারকৃত অন্যরা হলেন জামায়াতের নায়েবে আমির মিয়া গোলাম পরওয়ার, চট্টগ্রাম মহানগরী আমির মো: শাহজাহান, চট্টগ্রাম মহানগরী সেক্রেটারি নজরুল ইসলাম, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আমির জাফর সাদেক, সেক্রেটারি জেনারেলের ব্যক্তিগত সহকারী নজরুল ইসলাম এবং বাড়ির মালিক নওশের। এ সময় বাড়ির দারোয়ানকেও গ্রেফতার করা হয়।

এ দিকে গতকাল ২০ দলীয় জোটের শরিক বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা: মোস্তাফিজুর রহমান ইরান এবং ভাইস চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার ফরিদ উদ্দিন ও মাহবুবুর রহমান খালেদকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গতকাল দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে দলের প্রতিনিধি সম্মেলন শেষে বিএনপির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর গাড়িতে ওঠার সময় কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন তাদের গ্রেফতার করেন। এ সময় বিএনপি নেতা রিজভী গাড়ির ভেতরেই ছিলেন।

গত ২৯ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগর জামায়াতের আট শীর্ষ নেতাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ছিলেন জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ শাখার আমির নূরুল ইসলাম বুলবুল, কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের নায়েবে আমির মঞ্জুরুল ইসলাম ভূঁইয়া, কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সেক্রেটারি ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ, কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরার সদস্য আবদুস সবুর ফকির।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মহানগর ছাড়াও জেলা ও থানাপর্যায়ের নেতাকর্মীরাও এই গ্রেফতারের তালিকায় আছেন। ইতোমধ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে নতুন তালিকা প্রস্তুত হয়েছে। ওই তালিকায় নেতাকর্মী ছাড়াও তাদের আত্মীয়-স্বজনের ফোন নম্বর এবং ঠিকানা রাখা হয়েছে। দীর্ঘ দিন যারা এলাকা ছাড়া তাদের ব্যাপারেও খোঁজখবর নেয়া হয়। সূত্র জানায়, ওই তালিকা ধরেই নতুন করে এই গ্রেফতার অভিযান শুরু করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এই গ্রেফতার অভিযান ডিসেম্বর পর্যন্ত চালানোর সম্ভাবনা রয়েছে বলে একাধিক সূত্র থেকে জানা গেছে। যারা তালিকায় রয়েছেন তাদের ব্যাপারে সার্বক্ষণিক নজরদারি করা হচ্ছে।

নতুন করে গ্রেফতার অভিযান শুরুর পরে সরকার বিরোধী দলগুলোর নেতাকর্মীদের অনেকেই আত্মগোপনে চলে গেছেন। রাজধানীর পল্টন এলাকার এক যুবদল নেতার স্বজনরা জানিয়েছেন, ওই যুবদল নেতাকে গ্রেফতারের পর যখন আদালতে উপস্থাপন করা হয় তখন জানা যায় তার বিরুদ্ধে মোট ৩৭টি মামলা রয়েছে। এরপর চারটি মামলায় জামিন হলেও পুলিশ আরো পাঁচটি মামলায় নতুন করে তাকে গ্রেফতার দেখায়। একাধিক ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, একবার পুলিশের হাতে গ্রেফতার হলে মামলার আর অন্ত থাকে না। একটির-পর-একটি মামলায় জড়ানো হয়। সে কারণে অনেকেই আত্মগোপনে যেতে বাধ্য হয়েছেন।

এ দিকে বিরোধীদলীয় নেতাদের গ্রেফতারের কারণে আবারো রাজনৈতিক অঙ্গন অস্থির হয়ে উঠেছে। জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের গ্রেফতারের পর আগামী বৃহস্পতিবার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে দলটি। গ্রেফতারের পর থেকেই দলের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভসহ নানা কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নেমেছে। লেবার পার্টির চেয়ারম্যান গ্রেফতারের সময় তিনি নিজেই আজ চট্টগ্রামে হরতালের আহ্বান করেছেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক শীর্ষ কর্মকর্তা বলেছেন, যাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা আছে এবং মামলা আছে তাদেরকেই শুধু গ্রেফতার করা হচ্ছে। ঢাকা মহানগর পুলিশের মিডিয়া সেলের ডিসি মাসুদুর রহমান বলেছেন, উত্তরা থেকে যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের নামে মামলা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা ছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*