২৩শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং | ৮ই কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৩:৫৬
রোহিঙ্গাদের উদ্দেশ্যে যজ্ঞানুষ্ঠান

মৃত রোহিঙ্গাদের উদ্দেশ্যে যজ্ঞানুষ্ঠান, খাবার, চিকিৎসা সেবা এবং ঔষধ বিতরণে রিও

বিশেষ প্রতিবেদকঃ  রির্সাচ এন্ড এম্পাউয়ারমেন্ট অর্গানাইজেশন(রিও)এর সহায়তায় নিরাপরাধ নিহত রোহিঙ্গা মানুষদের আত্মার সদ গতির জন্য, ধর্ম মত নির্বিশেষে এক যজ্ঞানুষ্ঠান এবং সহস্রাধিক লোকের মাঝে খাবারসহ চিকিৎসা সেবা এবং ঔষুধ বিতরণ করেন।

গত ৬ই অক্টোব কক্সবাজার জেলার উখিয়ায় হিন্দু রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মৃত রহিঙ্গাদের উদ্দেশ্যে  যজ্ঞানুষ্ঠান এবং  সহস্রাধিক লোকের মাঝে খাবার সহ চিকিৎসা সেবা এবং ঔষুধ বিতরণ করেন রির্সাচ এন্ড এম্পাউয়ারমেন্ট অর্গানাইজেশন।

গত আগস্ট থেকে মিয়ানমার থেকে চলে আসা মানুষের  ঢল ধেয়ে আসে বাংলাদেশের দিকে, নিরপরাধ এই সমস্ত মানুষের দুঃখ বর্ণনাতীত। দেশের মানুষ থেকে শুরু করে সারা বিশ্ব আজ এই অমানবিক নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্ছার। সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন সংগঠন এই মানুষদের সহায়তার জন্য কাজ করে চলেছেন। সরকারের পাশে থেকে রির্সাচ অ্যান্ড এম্পাউয়ারমেন্ট অর্গানাইজেশন কাজ করতে অঙ্গিকার বদ্ধ।

গত দুই মাসে শত শত মানুষ নিহত হন এবং হাজার হাজার ঘর বাড়ি জালিয়ে দিয়ে রোহিঙ্গাদের তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তারা সব কিছু হারিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে আশ্রয়ের আসায়।

রোহিঙ্গাদের উদ্বাস্তু মিছিলে যোগ হয়েছে নারী শিশু বৃদ্ধ সহ হিন্দু রোহিঙ্গারাও । বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছেন ৫৩২ জন হিন্দু রোহিঙ্গা। তারা তাদের আত্মীয় স্বজনদের হারিয়েছেন। কালো মুখোশধারী সন্ত্রাসীরা তাদের পরিবার পরিজনকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে আগস্ট মাসে।

রির্সাচ এন্ড এম্পাউয়ারমেন্ট অর্গানাইজেশনের চেয়ারম্যান চন্দন সরকার বলেন, রির্সাচ এন্ড অর্গানাইজেশন একটি সমাজ সেবামুলক প্রতিষ্ঠান। বিভিন্ন ছিন্নমুল মানুষদের মাঝে অন্ন বস্ত্র চিকিৎসা সেবা থেকে শুরু করে গরীব ছাত্রদের শিক্ষার ব্যবস্থা করে যাচ্ছেন এই প্রতিষ্ঠান।সরকারের পাশাপাশি এই মানুষদের সহায়তার জন্য আমরা কাজ করে চলেছি। সরকারের পাশে থেকে রির্সাচ অ্যান্ড এম্পাউয়ারমেন্ট অর্গানাইজেশন কাজ করতে অঙ্গিকারবদ্ধ। মানবতাই দেশ জাতিকে এগিয়ে নিতে যেতে পারে আর সেই লক্ষ্যেই প্রতিষ্ঠানটি এগিয়ে যাছে।

 যজ্ঞানুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন শুভানন্দ পুরী মহারাজ এবং তাকে সাহায্য করেন আরও কয়েক জন মহারাজ।

শুভানন্দ পুরী মহারাজ বলেন, প্রত্যেক ধর্ম গ্রন্থই সৎ উপদেশ দেয়। উপদেশ, বিধি নিষেধ পালন চর্চার উপর নির্ভর করে। আমরা যার যার ধর্ম সঠিক পালন করলে পৃথিবী স্বর্গে পরিনত হতো।কিন্তু আমরা কিছু অধার্মিক, ধর্মান্ধ, ধর্মকে পুঁজি করে প্রতি হিংসা ছড়িয়ে পৃথিবীকে প্রতি নিয়ত অশান্ত করে তুলছি। ধর্ম গ্রন্থের উপদেশ, বিধি-নিষেধ পালন করে এই সমাজের সাম্প্রদায়িকতাঁর বিষদাত ভেঙ্গে দিয়ে অসাম্প্রদায়িক দেশ গঠনে সবাই ঐক্য বদ্ধ হই।

রোহিঙ্গাদের চিকিৎসাসেবা

উক্ত অনুষ্ঠানে রির্সাচ এন্ড এম্পাউয়ারমেন্ট অর্গানাইজেশনের চেয়ারম্যান চন্দন সরকার সহ আরও এলাকার সর্বস্তরের মানুষ এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*