১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:১৫
কবিরাজের তৈরী মদ খেয়ে মৃত

বেনাপোলে কবিরাজের তৈরী মদ খেয়ে মৃত ২, অসুস্থ ৪

বেনাপোল প্রতিনিধি :যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের শাখারীপোতা বাজারে স্থানীয় এক কবিরাজের তৈরি মদ পান করে বিষক্রিয়ায় দুইজনের মৃত্যু ও চারজন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। অসুস্থদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পরপরই কবিরাজ গা ঢাকা দিয়েছেন।

মৃত দুই ব্যক্তির স্বজনরা একে ‘স্বাভাবিক মৃত্যু’ বলে দাবি করছেন। তবে স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ বাজার কমিটির সদস্যরা
কবিরাজের তৈরি মদ পানে তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান। এ ঘটনায় শাখারিপোতা গ্রামে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

স্থানীয়রা বলছেন, শাখারিপোতা বাজারের কবিরাজ মহিউদ্দিন স্পিরিট, অ্যালকোহল ও কিছু কেমিক্যাল মিশিয়ে মদ তৈরি করেন। এরপর তার তৈরি মদ স্থানীয় শাখারিপোতা গ্রামের মৃত ইউনুছ আলীর ছেলে কামরুল হাসান ঝড় (৪৫), মৃত আব্দুস ছাত্তারের ছেলে ইদ্রিস আলী ইদে (৫০), আয়নাল হকের ছেলে খোরশেদ আলম (৪০), মোসলেম আলী (৫৫), মোমরেজ (২৬) ও আরিফুল ইসলামকে (৩০) বিনা মূল্যে সরবরাহ করেন। কবিরাজের বানানো মদ পান করে তখনই ঝড় ও ইদে অসুস্থ হয়ে পড়েন। সোমবার রাতেই ইদে মারা যান। মঙ্গলবার সকালে মারা যান ঝড়। গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ায় বুধবার খোরশেদ আলীকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বাকিরা গোপনে চিকিৎসা নিচ্ছে বেসরকারি ক্লিনিকে।

এ ঘটনায় শাখারিপোতা এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। ময়নাতদন্ত ছাড়াই ইদে ও ঝড়কে বাড়ি এনে দাফন করেছেন তাদের স্বজনরা। ঘটনার পরপরই কবিরাজ মহিউদ্দিন এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছেন।
এলাকাবাসীর সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার সন্ধ্যায় শাখারীপোতা বাজারে গিয়ে দেখা যায়, বাজারের দক্ষিণ পাশে টিনের ঘরে কবিরাজ মহিউদ্দিনের ‘হজরত খানজাহান হোমিও অ্যান্ড হারবাল চিকিৎসালয়’। এই দোকানে তৈরি মদই পান করতে দিয়েছিলেন তিনি।

মৃত্যুর খবরের পর থেকে মহিউদ্দিন কবিরাজের দোকান বন্ধ রয়েছে। ঘটনার ব্যাপারে মহিউদ্দিন কবিরাজের সাইনবোর্ডে লেখা দুটি মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলেও তা বন্ধ পাওয়া যায়।
মৃত কামরুল হাসান ঝড়ের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, সবাই চুপচাপ বসে আছেন। সাংবাদিকদের দেখে কিছু একটা গোপন করার চেষ্টা করছেন তারা।
মৃতের চাচা শফি উদ্দিন জানান, ঝড়ের মৃত্যু স্বাভাবিকভাবেই হয়েছে। একই দাবি করেন ইদ্রিস আলী ইদের স্বজনেরাও।

এ দিকে শাখারীপোতা বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক রেজাউল ইসলাম চান্দু বলেন, ‘মহিউদ্দিন কবিরাজের দোকান থেকে তৈরি মদ পানে বিষক্রিয়ায় এদের মৃত্যু হয়েছে।’
তিনি আরো জানান, দীর্ঘ দিন ধরে মহিউদ্দিন এই বাজারে কবিরাজি করছেন। তবে দেড় মাস আগে থেকে তিনি মদ তৈরি করে বিক্রি শুরু করেন বলে এখন শোনা যাচ্ছে। তার এই মদ বিক্রির জন্য ১০-১২ জন সেলসম্যান রয়েছেন। তার খরিদ্দার, ৩-৪শ’।

এ ব্যাপারে বাহাদুরপুর ইউপি সদস্য লুৎফর রহমান মিন্টু বলেন, ‘আমি বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছি। তবে খোঁজ খবর নিয়ে জেনেছি আমার ওয়ার্ডের দুইজনের মদ পানে মৃত্যু হয়েছে। সঠিক কারণ এলাকায় ফিরলে বলতে পারবো।’

বেনাপোল পোর্ট থানার এসআই মফিজুর রহমান জানান, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ঘটনা শোনার পরপরই ঘটনাস্থলে যাওয়া হয়। দুইজনের মৃত্যু ও একজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে এলাকার লোকজন জানিয়েছেন। তবে মৃত্যের |স্বজনেরা মৃত্যুকে স্বাভাবিক বলে দাবি করেছে। থানায় কেউ অভিযোগও করেনি। ‘তবে কবিরাজকে আটক করতে পারলে বিষয়টি পরিষ্কার হবে। তাকে আটক করার চেষ্টা চলছে৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*