১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:০৪

চেহারা যেনো এই আদালতে কেউ না দেখে

কোনো কাগজে সই করিনি। ছুটিতেও যাচ্ছি না। যা ঘটেছে বিচার বিভাগের চরম অবমাননা। ধংস করা হয়েছে বিচার ব্যবস্থা। এর কঠোর বিচার হওয়া প্রয়োজন।” জানালেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা।

সরেজমিনে জানা গেল, বিচারপতির বাসভবনে ঢুকে পড়ে একদল অস্ত্রধারী লোক। তার নিজেদের সরকারী সেনা গোয়েন্দা সংস্থার পরিচয় পত্র দেখায়। বাইরে ২০/২৫জন অস্ত্রধারী থাকে, ভেতরে ঢোকে ৮/১০ জন। তার মধ্যে একজন নেতৃত্ব দিয়ে প্রধান বিচারপতির অফিসে ঢুকে বিচারপতি সিনহার সাথে কর্কশ ভাষায় বলতে থাকেন- “তোকে ছুটি দেয়া হয়েছে এক মাসের। তুই জয়েন করেছিল কেনো? প্রাণে বাঁচতে চাইলে চলে যা। রিটায়ার্মেন্ট পর্যন্ত তোর চেহারা যেনো এই আদালতে কেউ না দেখে। তবে তুই বাঁচতে পারবি এক শর্তে তা হলো রায়ের পর্যবেক্ষন বাদ দিতে হবে স্বপ্রনোদিত হয়ে। অন্যথায় মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত হও।”

প্রধান বিচারপতির বাসভবনে একদল অস্ত্রধারী লোকের হানা দেয়ার পরে প্রধান বিচারপতি তার স্টাফ, এবং সহকর্মীদের এ কথা জানান।

অস্ত্রধারী লোকেরা প্রায় ঘন্টাখানেক ঐ বাড়ির ভিতরে থাকে। পরে বেরিয়ে যায়। যাওয়ার পর থেকে এটর্নী জেনারেল মাহবুবে আলম, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, এবং রাষ্ট্রপতির অফিস থেকে জানানো হয়, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র সিনহা কাল থেকে এক মাসের ছুটিতে যাচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে আনিসুল-মাহবুবে এই চক্রটি অস্ত্রধারীদের সঙ্গে পূর্ন যোগসাজসে কাজ করছেন।

জানা গেছে, প্রধান বিচারপতির বাড়িতে গোয়েন্দা সংস্থার লোক দিয়ে অস্ত্র সহ ঢুকে হুমকি ও হানা দেয়ার ঘটনাটি পরিচালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদে কর্মরত অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল তারিক সিদ্দিক, নবম পদাতিক ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল আকবর।

বিকালে সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট জয়নুল আবেদিন ও সম্পাদক ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকনের নেতৃত্বে আইনজীবি সমিতির বেশ কিছু নেতা এসে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সাক্ষাতের চেষ্টা করেন। কিন্তু ফটকের বাইরে প্রচুর আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থার লোকেরা তাদের ভিতরে ঢুকতে দেয়নি। এতে প্রতীয়মান হয়, বিচারপতি সিনহাকে গৃহবন্দী করা হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির এমন ছুটি চাওয়া নজিরবিহীন ঘটনা বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদিন। সোমবার বিকালে সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির এক ব্রিফিংয়ে জয়নুল আবেদিন এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরছেন না এবং সরকারী গোয়েন্দা সংস্থা প্রধান বিচারপতিকে অস্ত্র ঠেকিয়ে ভয় দিচ্ছে- এ অবস্থায় দেশময় খবর ছড়িয়ে পড়ছে- দেশে অস্বাভাবিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে। যে কোনো সময় সামরিক বাহিনী হস্তক্ষেপ করতে পারে।

আজ ৩রা অক্টোবর দুপুরে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহা ক্যানসারসহ বিভিন্ন ধরনের রোগে আক্রান্ত। এ কারণে তিনি এক মাসের ছুটিতে গেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*