১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:১৪
৩২০ রানে অলআউট বাংলাদেশ

৩২০ রানে অলআউট বাংলাদেশ

স্পোর্টস ডেস্কঃ দ্বিতীয় সেশনটি শুরু হয়েছিল অনেক আশা নিয়ে। উইকেটে জমে গিয়েছিলেন মুমিনুল-মাহমুদুল্লাহ। তবে সেশন শেষ হতে হতে উড়ে গেলো বাংলাদেশের বড় সংগ্রহের আশা। এ সেশনে ৬ উইকেট হারিয়ে ৩২০ রানেই গুঁড়িয়ে গেছে সফরকারীরা। এতে ১৭৮ রানে এগিয়ে থেকে ব্যাট করতে নেমেছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

আগের দিনের ৩ উইকেটে ১২৭ রান নিয়ে ব্যাট করতে নামেন মুমিনুল ও তামিম। শুরুটা বেশ সতর্কতার সঙ্গেই করেন তারা। খেলতে থাকেন দারুণ আস্থার সঙ্গে। রাবাদা-মরকেলের গতি ও বাউন্সের সামনে ছিলেন অবিচল। তবে হঠাৎই ছন্দপতন ঘটে তামিমের ব্যাটে। রাবাদা-মরকেলের রিভার্স সুইং, বাউন্স দক্ষতার সঙ্গে সামলালেও ফেলুকওয়ায়োর বাজে বলে গ্ল্যান্স করতে গিয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন তিনি। তা দারুণ ক্ষিপ্রতায় ধরেন কুইন্টন ডি কক। ফেরার আগে ৬ চার ও ১ ছক্কায় ৩৯ রান করেন বাংলাদেশ ড্যাশিং ওপেনার।

তামিম ফিরে গেলেও চোয়ালবদ্ধ হয়ে লড়ে যান মুমিনুল। তাকে যোগ্য সঙ্গ দেন মাহমুদুল্লাহ। তাদের ব্যাটে দারুণ লড়ছিল বাংলাদেশও। এবার থেমে যান মুমিনুল নিজে। সকাল থেকে সামলেছেন রাবাদা-মরকেল-ফেলুকওয়ায়োর গতি, বাউন্স ও সুইং। তবে আউট হয়েছেন একেবারে সাদাসিধে বলে। দলীয় ২২৭ রানে কেশব মহারাজের বলে ফরোয়ার্ড শর্ট লেগে এইডেন মার্করামের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি। ফেরার আগে ১৫০ বলে ১২ চারে ৭৭ রানের লড়াকু ইনিংস খেলেন পয়েট অব ডায়নামো।

এ নিয়ে অনন্য কীর্তি গড়েন মুমিনুল। দক্ষিণ আফ্রিকায় খেলেন বাংলাদেশের কোনো ব্যাটসম্যান হিসেবে সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। এর আগে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ রানের ইনিংস ছিল ওপেনার আল শাহরিয়ারের। ২০০২ সালে ইস্ট লন্ডনে তিনি খেলেন ৭১ রানের দুরন্ত ইনিংস।

এরপর সাব্বির রহমানকে নিয়ে দলকে টেনে তোলার চেষ্টা করেন মাহমুদুল্লাহ। সাব্বিরও সেই যাত্রায় যোগ্য সহযোদ্ধার মতো ভূমিকা রাখেন। তারা এগুচ্ছিলেনও বেশ। এতে বড় সংগ্রহের স্বপ্ন দেখতে শুরু করে বাংলাদেশ। তবে সেই যাত্রায় স্তব্ধ হয়ে যান সাব্বির। দলীয় ২৯২ রানে ডুয়ান অলিভিয়ের লেন্থের বলে বড় শট খেলতে গিয়ে স্টাম্পিং হয়ে ফেরেন তিনি। ফেরার আগে করেন ৪ চার ও ১ ছক্কায় ৩০ রান।

সহযোদ্ধা হারিয়ে মাঠে বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে পারেননি মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। তবে সাকিব আল হাসানের বিশ্রামে দলে পাওয়া সুযোগটাকে দারুণভাবে কাজে লাগান তিনি। তার লড়াকু ‍ফিফটিতে ভর করে ফলোঅন এড়ায় বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত দলীয় ৩০৪ রানে মরকেলের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন মিস্টার কুল। ফেরার আগে ১১ চার ও ১ ছক্কায় ৬৬ রান করেন এ মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান।

মাহমুদুল্লাহ ফিরে গেলে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে বাংলাদেশ। দলীয় স্কোর বোর্ডে আর মাত্র ১ রান যোগ হতেই রানআউট হয়ে ফেরেন তাসকিন। এর মিনিট পাঁচেক পরই রাবাদার শিকার হয়ে ফেরেন মিরাজ। এতে বাংলাদেশের রানের ব্যবধান কমার স্বপ্ন ভেস্তে যায়। শেষ পর্যন্ত ৩২০ রান তুলতে গুটিয়ে যায় সফরকারীরা। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে মহারাজের শিকার হয়ে ফেরেন শফিউল। অপর প্রান্তে ১০ রানে অপরাজিত থাকেন মুস্তাফিজ।

দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে কেশব মহারাজ নেন সর্বোচ্চ ৩ উইকেট। ২টি করে উইকেট শিকার করেন মরনে মরকেল ও কাগিসো রাবাদা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ৮৯.১ ওভারে ৩২০(মুমিনুল ৭৭, তামিম ৩৯, মাহমুদুল্লাহ ৬৬, সাব্বির ৩০, মিরাজ ৮, তাসকিন ১, শফিউল ২, মুস্তাফিজ ১০*; মরকেল ২/৫১, রাবাদা ২/৮৪, মহারাজ ৩/৯২, অলিভিয়ের ১/৫২, ফেলুকওয়ায়ো ১/১৮, মার্করাম ০/১৩)।

দক্ষিণ আফ্রিকা ১ম ইনিংস: ৪৯৬/৩ (ডি.)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*