২৩শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং | ৮ই কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৩:৫৬
কুমারী পূজা

কুমারী পূজা কেন করা হয়

কুমারী পূজা সম্পর্কে শ্রীরামকৃষ্ণ পরমহংসদেব বলেছেন, সব স্ত্রীলোক ভগবতীর এক একটি রূপ। শুদ্ধাত্মা কুমারীতে ভগবতীর বেশি প্রকাশ। দুর্গাপূজার অষ্টমী বা নবমীতে সাধারণত ৫ থেকে ৭ বছরের একটি কুমারীকে প্রতিমার পাশে বসিয়ে দেবী প্রতিমা এটা মাতৃভাবের প্রতিই শ্রদ্ধা নিবেদন।

চন্ডীতে বলা হয়েছে-

যা দেবী সর্বভূতেষু মাতৃরূপেণ সংস্থিতা। নমস্তেস্যৈ নমস্তেস্যৈ নমস্তস্য নমঃ নমঃ অর্থাৎ যিনি মায়ের রূপ ধরে যে দেবী বিরাজিত, তাকে পুনঃ পুনঃ নমস্কার করি।

কুমারী কাকে বলে?

এক বছর থেকে ষোল বছর পর্যন্ত অজাতপুস্পবালাকে কুমারী বলে। মাতৃভাব বিকাশের জন্য রামকৃষ্ণ মঠ বিশেষভাবে এ পূজা করে থাকে। দুর্গাপূজার সময় বা জগদ্ধাত্রী পূজার সময় এ পূজা অনেক আগে থেকেই প্রচলিত। ঠিক ঠিকভাবে পূজা হলে মন বিশুদ্ধ হয়, ঈশ্বরের কৃপালাভ হয়। বয়স অনুসারে কুমারীর নানা শাস্ত্রীয় নাম হয়ে থাকে। যেমন –কালিকা, সুভগা, উমা, মালিনী ইত্যাদি। শান্ত, পবিত্র, সর্তশীলা এসব দৈবী সম্পদের অধিকারিণী কুমারীই জগজ্জননীর প্রতিমারূপে গ্রহণে বিধান আছে। ব্রহ্ম ও শক্তি অভিন্ন। যাকে ঈশ্বর, হরি, গড প্রভৃতি বলা হয়, তাকেই মাতৃভাবে সাধনার সময় বলা হয় জগজ্জননী। সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ মানবজাতির ক্ষেত্রে মায়ের নীরব অবদানের ঋণ পরিশোধ করা অসম্ভব। নারী শক্তিরূপিণী। তাঁর সঠিক মূল্যায়নের অভাবে আমাদের অবক্ষয় নেমে আসে। আবার তাঁর উপযুক্ত মর্যাদায় সমাজ হয় কল্যাণমূখী।

স্বামী বিবেকানন্দ বলেছেন –‘মেয়েদের পূজা করেই সব জাত বড় হয়েছে। যে দেশে, যে জাত মেয়েদের পূজা নেই, সে দেশ, সে জাত কখনও বড় হতে পারেনি, কস্মিনকালেও পারবে না।

মনু বলেছেন, ‘যত্র নার্যস্তু পূজ্যন্তে রমন্তে তত্র দেবতা’। যত্রৈতাস্তু ন পূজ্যতে সর্বাস্তত্রাফলাঃ ক্রিয়াঃ। অর্থাৎ যেখানে নারীগণ পূজিতা হন, সেখানে দেবতারা প্রসন্ন। যেখানে নারীগণ সন্মানিত হন না, সেখানে সকল কাজই নিস্ফল’ (মনুসংহিতা, ৩.৫৬)। যেখানে স্ত্রীলোকের আদর নেই, স্ত্রীলোকেরা নিরানন্দে থাকে, সে সংসারে, সে দেশে কখনো উন্নতির আশা নেই। মাটির প্রতিমায় যে দেবীর পূজা করা হয়, তারই বাস্তব রূপ কুমারী পূজা।

কুমারীতে সমগ্র মাতৃজাতির শ্রেষ্ঠ শক্তি –পবিত্রতা, সৃজনী ও পালনী শক্তি,সকল কল্যাণী শক্তি সূক্ষ্মরূপে বিরাজিত তাই কুমারী পূজা। কুমারী প্রতীকে আমাদের মাতৃরূপে অবস্থিত। সর্বব্যাপী ঈশ্বরেরই মাতৃভাবে আরাধনা।

যে জাতির মধ্যে শুদ্ধা, শিক্ষিতা, করুণাময়ী মায়ের সংখ্যা বেশি সে মাতৃজাতির সন্তানেরা সমাজের আদর্শ সন্তান। নিজ নিজ শক্তির বিকাশের জন্য সমগ্র নারী জাতির প্রতি প্রয়োজন নিজের মায়ের শ্রদ্ধা। তাই কুমারী পূজার মাধ্যমে সৃষ্টির সেরা জীব মানুষ শ্রদ্ধা জানায়। যিনি সকল প্রাণীতে মাতৃরূপে আছেন, তাকে প্রণাম। কুমারী পূজার প্রণামে আছে তিনি পরমভাগ্‌নীম এবং ভুবনবাক কুমারীং ভজে। অর্থাৎ কুমারী প্রতীকে জগজ্জনীর পূজায় পরম সৌভাগ্য লাভ হয়। এ কুমারী সমগ্র জগতের বাক্যস্বরূপা, বিদ্যাস্বরূপা। তিনি এক হাতে অভয় এবং অন্য হাতে বর প্রদান করেন।

অন্য ধ্যান আছে –ভদ্রবিদ্যাপ্রকাশিনীম। তিনি সকল শুভ বিদ্যার প্রকাশিকা। তাই মাতৃজাতির প্রতি যথার্থ শ্রদ্ধা দেখিয়ে আমরা আমাদের সমাজ ও জীবনকে মহৎ করে তুলতে পারি।

স্বামী অমেয়ানন্দ, রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশন, ঢাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*