সর্ব শেষ খবর
২৪শে আগস্ট, ২০১৭ ইং | ৯ই ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | সকাল ১০:৫৮
ঠাকুরগাঁওয়ে ভারি বর্ষণ

ঠাকুরগাঁওয়ে ভারি বর্ষণ ও বন্যায় দুই শতাধিক মানুষ পানিবন্দি

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: গত দুইদিনের অবিরাম ভারি বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পানির ঢলে তলিয়ে গেছে ঠাকুরগাঁওয়ের ৫ উপজেলার কয়েক হাজার ঘর-বাড়ি।
শনিবার ভোর থেকে হঠাৎ প্রবল বৃষ্টির কারণে প্লাবিত ঘর-বাড়িতে প্রায় ৩ শতাধিক মানুষ আটকে পড়েছে। ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় লোকজন এখন পর্যন্ত শতাধিক মানুষ উদ্ধার করেছেন বলে প্রশাসন জানিয়েছেন।
জেলা প্রশাসক ও ফায়ার সার্ভিস বাড়িতে আটককে পড়া মানুষকে উদ্ধার কাজ অব্যাহত রয়েছেন।
এ ছাড়া দূরের কিছু মানুষ আটককে পড়ায় রংপুর সেনাবাহিনী সহযোগিতা চেয়েছেন বলে জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল জানান।
প্লাবিত মানুষ গুলো শিশু, ঘর-বাড়ি, আসবাবপত্র, গবাদি পশু নিয়ে বিপাকে পড়েছেন। অনেকে রাস্তায় পাশে গবাদি পশুসহ আশ্রয় নিয়েছেন।
ঠাকুরগাঁও শহরের আশেপাশের কয়েকশ’ পরিবার বাড়ি-ঘর ছেড়ে  উঁচু ও নিরাপদ ৮টি স্থানে আশ্রয় দেওয়া হয়ে বলে জেলা প্রশাসক সূত্র জানা গেছে ।
শহরের বেশিরভাগ অঞ্চল প্লাবিত হঠাৎপাড়া, ডিসি বস্তি, সরকার পাড়া ও খালপাড়া, সদর উপজেলার আকচা, রায়পুর, মোহাম্মদপুর, সালন্দর, শুকানপুকুরী ও বালিয়াডাঙ্গী ও রাণীংশকৈল উপজেলায়  আশেপাশের অনেক এলাকার বাড়ি-ঘর এখন পানির নিচে। অনেক এখনো বাড়িতে আটকে পড়েছেন। মানুষ বাড়ি-ঘর ছেড়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নিয়েছেন বলে প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে।
জেলার বিভিন্ন নদীর পানি বিপদ সীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। টাঙ্গন নদীর পানি বিপদ সীমার ৪০ মিলি ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।
জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল জানান, গত দুই দিনের ভারি বর্ষণে জেলার প্রায় ৩০০ ঘর বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মানুষ নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রে নেওয়ার জন্য প্রশাসন ও ফায়ার সার্ভিস কাজ করছে। বাকিদের উদ্ধারের জন্য সেনাবাহিনীর সহযোগতিা চাওয়া হয়েছে। বর্তমানে দূগর্তদের জেলায় প্রয় শতাধিক আশ্রয় কেন্দ্রে থাকার জায়গা ও ত্রানের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*