২১শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং | ৭ই কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৩:২০
পটিয়ায় গরু ছাগলের হাট

চট্টগ্রাম পটিয়ায়(থানা হাট) জমে উটছে পাঁটা ছাগলের বাজার

রাজিব শর্মা, চট্টগ্রাম ঃসনাতন ধর্মাবলম্বিদের আসন্ন মনসা পূঁজা উপলক্ষে চট্টগ্রামের সবচেয়ে বড় পাঁঠা ছাগলের বাজার বসেছে দক্ষিণ চট্টগ্রামের সাবেক মহকুমার সদর পটিয়ায়।আজ শুক্রবার পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ ও নতুন থানা হাটে এ পাঁঠা ছাগলের বাজার ঘিরে চলছে উৎসবের আমেজ। বৃষ্টির মধ্যেও চলছে পাঁঠা বিকিকিনি।

জানা যায়, মনসা পূঁজার দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই পাঁঠার ক্রেতাদের উপচে পড়া ভীড়ে পটিয়ার মানুষের দুর্ভোগ বেড়ে গেছে। এ হাটগুলোতে এক একটি পাঁঠা আড়াই থেকে তিন লাখ টাকা পর্যন্ত দামে বিকিকিনি হচ্ছে। পটিয়ায় মনসা পূজাকে ঘিরে গত এক মাসে এ দু-হাটে কোটি কোটি টাকার উপরে পাঁঠা বিক্রয় হয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান। এ হাট দুটি শুধু চট্টগ্রামে নয়, সারা বাংলাদেশে মডেল।

পন্ডীত নিখিল বরণ চক্রবর্ত্তী দি নিউজকে বলেন, শ্রী শ্রী মনসা দেবী পদ্মাবতী, বিষহরী ,নাগমাতা ও লৌকিক সর্পদেবী নামে সনাতন ধর্মে পরিচিতি।সাপের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য সনাতনি সমাজ দেবির পূজা করে থাকে।এই মনসা দেবীর পূজা খুবই ভক্তি ভরে করেন। মনসা তাঁর ভক্ত দের খুব ভালবাসেন কিন্তু যে তাঁর পূজা করতে অস্কীকার করে,তার প্রতি তিনি নির্দয় হন।শ্রাবন মাসে নাগের অর্থাৎ সাপের উপদ্রব থেকে রক্ষা পাওয়ার হিতার্থে মনসা দেবীর পূজায় রত হয় এবং দৃঢ় মনোবলে মনসা পূজা উদ্যাপন বলিদান করে নিজিকে দেবীর পাদপদে (দেবীর পায়ে) আত্তসমর্পন করে পাঁঠা ছাগল,ভেড়া,হাঁস,ফল ,আঁখ,কলা ,কচ্ছপ,বলিদান করা হয়।

চন্দনাইশ উপজেলার বরমা গ্রামের পাঁঠা ছাগল কিনতে আসা ব্যবসায়ী সুমন দেব জানান, পটিয়ায় এবার পাঁঠার ছাগলের বাজার বেশ জমে উঠেছে। আমি নিজেই পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ থেকে ৩০ হাজার টাকা দিয়ে একটি পাঁঠা ক্রয় করি।বৃহত্তর চট্টগ্রামের মধ্যে পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ছাগলের বাজার চট্টগ্রাম জেলার মধ্যে বড় বাজার হিসেবে খ্যাত রয়েছে।

আরো জানা যায়, পটিয়ায় বিভিন্ন পাঁঠার বাজারে পাবনা, কুষ্ঠিয়া, রংপুর, রাজশাহী, দিনাজপুর, ভৈরব, সিলেট, যশোর ও সন্ধীপ থেকে ক্রেতা-বিক্রেতারা এসে তাদের পছন্দের পাঁঠা বিকিকিনি করে থাকে। তাদের দাবি চট্টগ্রাম ছাড়াও দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পাঁঠা ক্রেতা-বিক্রেতারা সড়ক, রেল ও নৌ যোগাযোগসহ সার্বিক অনূকুল পরিবেশ বিদ্যমান থাকায় এখানে তাদের পছন্দের পাঁঠা ক্রয়ে ভীড় করে।

পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠের ইজারাদার দি নিউজকে বলেন, মনসা পূঁজাকে সামনে রেখেই আমরা বেশি দাম দিয়ে প্রতি বছর হাট ইজারা নিয়। বর্তমানে পাঁঠার বাজারে বিদ্যমান সমস্যা সিএনজি, টেক্সি-টেম্পোর সংকট থাকার কারনে এবার লোক সমাগম তুলনামূলকভাবে কম হচ্ছে তেমনি ভাবে পাঁঠা ক্রেতা বিক্রেতাদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে এর ফলে ইজারাদাররা এবার লোকসানের আশংকা করছে।

পটিয়া উপজেলা শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক ও উপজেলায় পূঁজা উপযাপন পরিষদের নেতা মাষ্টার শ্যামল কান্তি দে দি নিউজকে জানান, পটিয়ার ৪০% জনগণ সনাতনী ধর্মাবলম্বী। এখানে মা মনসার পূঁজা দিতে শুধু পাঁঠা ক্রয় নয়, পুরো বছর জুড়ে সনাতনীরা পাঁঠা লালন পালনও করে থাকে। প্রতি বছর তাদের পালিত পাঁঠা ছাড়াও এখানে ভারত থেকেও বেনাপোল স্থল বন্দর দিয়ে পাঁঠা বিক্রয়ের জন্য আনা হয়।

পটিয়া থানার হাটে পাঁঠা বিক্রেতা রানা জানান, আমি শ্রাবণ মাসের মনসা পূঁজাকে সামনে রেখে ৫০টি পাঁঠা বিক্রির জন্য এনেছি। এ মধ্যে ১০টি পাঁঠা আমি এক লাখ টাকার উপরে বিক্রয়ের জন্য দাম হাঁকায় । আমি ও আমার পরিবার তিন/চার বছর পরিশ্রম করে পাঁঠা বিক্রয়ের উপযোগী করে তুলি। বেশি দামে এক একটি পাঁঠা বিক্রয় হলেও এগুলোর লালন-পালন ও খাওয়া-দাওয়ায় বিক্রয়ের সমতূল্য টাকা ব্যয় হয় বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*