২১শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং | ৭ই কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৩:২১

ভারতের রাজনীতিবিদ রুপা গঙ্গোপাধ্যায় বাংলাদেশের হিন্দু নির্যাতনকে কি ছোট করে দেখেনি সেদিন!

ভারতের রাজনীতিবিদ রূপা গঙ্গোপাধ্যায় বাংলাদেশের শাসক দল আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন শেষে ঢাকা থেকে ফিরে গিয়ে ভারতীয় সাংবাদিকদের বলেন যে সে দেশে হিন্দুরা নিরাপদে আছে। আমি তাঁর এ কথার প্রতিবাদে ট্যুইট করে বলেছিলাম – Most probably what Rupa said is not true। আমি জানি যে সংখ্যালঘুরা মোটেই নিরাপদে নেই। তবুও রূপা যেহেতু রাজ্যসভার সাংসদ তাই সৌজন্যবশতঃ তাঁর ঐ ফালতু কথার কড়া প্রতিক্রিয়া দিইনি।

রূপা যে ভুল বলেছিলেন তার জবাব মাত্র দিন কয়েক পরই পেয়ে গেছেন।এরপর তো রুপা চাইলে পারতো বাংলাদেশের হিন্দু নির্যাতনের কথা। কিন্তু টু শব্দ ও করেননি সেই রাজনীতিবিদ। তাই বুঝা গেল যে বাংলাদেশের হিন্দু মরলে ভারত শুধু দুঃখবাদ জানাবে। এই ছাড়া আর কিছুই করবে না এইসব লোকদেখানো রাজনীতিবিদরা।

বাংলাদেশের হিন্দুরা আজকের নির্যাতনের শিকার না, সেই বৃটিশ, ভারত ছাড়াও পাকিস্তান সরকারের সময় থেকে নির্যাতনের শিকার। আজ যে পশ্চিমবঙ্গের ভাদুড়িয়া হামলা বা দাঙ্গা , আসামের বোমা হামলাসহ যে ঘটনা ঘটছে এতে রুপা’র মতো অনেক স্বার্থবাদী রাজনীতিবিদদের হাত নেই তিনি বলতে পারবে? আওয়ামীলীগের মিটিংয়ে এসে সেদিন ওনি আওয়ামীলীগ না হয়ে অন্যদৃষ্টিকোণে বাংলাদেশের হিন্দুদের অবস্থান দেখতে পারতো।

গত ৩০শে অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলায় এবং হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর বাজারে হিন্দুদের বাড়ি-ঘর লুটপাট এবং মন্দির ও বিগ্রহ ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি ঘটে দু’দিন আগে একজন হিন্দু যুবকের ফেসবুকে দেওয়া ইসলাম-বিদ্বেষী একটি পোষ্ট-এর প্রতিক্রিয়ায়। রসরাজ নামের সেই যুবক ফটো এডিট করে কাবার গায়ে শিবের ছবি জুড়ে দেয়।

উক্ত ঘটনায় ক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা ছেলেটিকে মারধর করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। তবুও তারই জেরে নিরপরাধ ও নিরীহ হিন্দু  জনগণ ভয়াবহ হামলার শিকার হলেন। ‘উল্টা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত’ ও ‘খাঁটি আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত’ নামে দু’টি মুসলিম মৌলবাদী সংগঠনের নেতৃত্বে কয়েকশো সশস্ত্র মুসলমান উক্ত হামলা চালায়। হামলায় হিন্দুদের মারধর, তাঁদের বাড়ি-ঘর লুটপাট, মন্দির ও বিগ্রহ ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে অবাধে। পুলিশ যথারীতি আসে অনেক বিলম্বে, তার আগে দেড় ঘণ্টা ধরে চলে তাণ্ডব।

মুসলমানদের হাতে সংখালঘুরা আক্রান্ত হলে তাদের বাঁচাতে পুলিশ কোনও তৎপরতা দেখায় না, বাংলাদেশে এটাই দস্তুর। বিএনপি কিংবা আওয়ামী লীগ, সরকারে যারাই থাক, পুলিশের কাজের এই ধারা কম বেশী একই থাকে। আর বিলম্বে এসে পুলিশ যা করে তাতে সংখ্যালঘুরা আশ্বস্ত হওয়ার বদলে আরও বেশী আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েন। কারণ, পুলিশ সাধারণত সন্ত্রাসী হানার ঘটনাকে লঘু করে দেখায় এবং হামলাকারীদের আড়াল করে থাকে। নাসিরনগর ও মাধব বাজারের ঘটনাতেও কোনও ব্যতিক্রম ঘটেনি।

পুলিশ যথারীতি ‘আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত’-কে আড়াল করে দোষ চাপিয়েছে ‘দুষ্কৃতীদের’ ঘাড়ে এবং আক্রান্ত বাড়ি-ঘর ও মন্দিরের সংখ্যা দেখিয়েছে যথেষ্ট কম করে। নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল কাদের বলেছেন যে দুর্বৃত্তরা কুড়িটি বাড়ি ও পাঁচটি মন্দির ভাঙচুর করেছে। কিন্তু স্থানীয় সাংবাদিক মাসুদ হৃদয় বলেছেন যে নাসিরনগরের আটটি হিন্দু পাড়ায় (দত্তপাড়া, ঘোষপাড়া, গাংকুলপাড়া, মহাকালপাড়া, কাশিপাড়া, নমশুদ্রপাড়া, মালিপাড়া ও শীলপাড়া) অন্তত তিনশোটি বসতঘর এবং দশটি মন্দিরে ভাঙচুর ও লুটপাট চালানো হয়েছে।

অন্য একটি সংবাদ সূত্র বলেছে, ক্ষতিগ্রস্ত মন্দিরের সংখ্যা ১৫টি। মাসুক আরও জানিয়েছেন, যখন লুটপাট ও ভাঙচুর চলছিল তখন ঘটনাস্থলের আধ কিমি দূরে ‘আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত’-এর বিক্ষোভ সমাবেশ চলছিল। সেই সমাবেশ থেকেই যে হিন্দুদের উপর আক্রমণ করার জন্য প্ররোচিত করা হচ্ছিল তা বলা বাহুল্য। তাছাড়া নাসিরনগর কেন! সংসদ নির্বাচনের পরদিন যে অভয়নগর পল্লীতে আগুনসহ সারাদেশে যে পরিমাণ রাজনীতিবিদদের হিংসার শিকারে বাংলাদেশের মন্দির, বাড়িঘর হামলা হয়েছেন তা বাংলাদেশের গণমাধ্যম, অনলাইন এ্যাক্টভিস্টরা চোখে আঙ্গুল দিয়ে বুঝিয়ে দিলেও তা বাংলাদেশের বন্ধুরাষ্ট্র ভারতের চোখের অঘোচরে রয়ে যায়।

আর আজ যে পার্বত্য চট্টগ্রামের রাঙামাটির লংধুতে আদিবাসীদের উপর হামলা ও প্রশাসনিক ভাবে ঢিলেঢালাও ভাবে দেখছে, তাদের করা মামলার কি কার্যকর হয়েছে বা হবে, হিন্দু নির্যাতন নিয়ে জাতিসংঘ, বিশ্ব হিন্দু পরিষদসহ বিভিন্নরাষ্ট্রের সংঘটনগুলো নৈতিবাচক উদ্বেগ জানালেও বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্র ভারত নীরবে ঘুমাচ্ছে।

একটু বুঝিয়ে বলি, তৎকালীন বিএনপি জোট সরকার থাকাকালীন চট্টগ্রামের বাঁশখালি, সাধনপুর ১১ জনকে পুড়িয়ে হত্যার মতো জঘন্য গটনা ঘটলেও বাদীপক্ষ আদালতে বিচারকদের কাছে ভিখারির মতো গিয়েছেন, কি ফল হল এই মামলার? যারা পুড়েছেন, এরা কারা? অধ্যক্ষ গোপাল মুহুরী হত্যা, কি বিচার হলো? হত্যাকারী এরা কারা? এইধরনের নিন্দনীয় ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটছে, তা কি ভারতের রুপা গাঙ্গুুলী খতিয়ে দেখছে? না। তাহলে বলা যায় সাংবাদিকদের কলম ধামাচাপা দেওয়ার জন্য রুপার মতো এসব রাজনীতিবিদরা এইদেশে আসে, ঘটনাকে খতিয়ে দেখার জন্য নয়।

তরুণ লেখক ও সাংবাদিক রাজিব শর্মা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*