১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:০৫
শরীয়তপুরে টিসিবি’র কার্যক্রম বন্ধ

শরীয়তপুরে টিসিবি’র কার্যক্রম বন্ধ

সৈকত দত্ত ॥  দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি স্বল্প আয়ের মানুষের দুর্গতি। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে উৎসব এলে পণ্যের বা সেবার দামে ছাড় দেওয়া হয়। ফলে উৎসবের আনন্দ উপভোগ করে সাধারণ মানুষ। আমাদের দেশে নিম্ন-আয়ের মানুষ দ্রব্যের মূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে বাজারে যেতে ভয় পায়। উৎসব এলে পণ্যের দাম আরও বেড়ে যায়। ফলে নিম্ন-আয়ের মানুষের জন্য উৎসব যেন মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা। প্রতিবছর রমজান মাস এলেই নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়ে দফায় দফায়। পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও বাড়তি চাহিদাকে কেন্দ্র করে বাড়ে ব্যবসায়ীদের মজুদ প্রতিযোগিতা।

খোলাবাজারে বিক্রি করার জন্য সরকার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) মাধ্যমে সাশ্রয়ী মূল্যে পণ্যসামগ্রী সরবরাহ করছে। পবিত্র রমজান উপলক্ষে মে মাসের ১৫ তারিখ থেকে এ কার্যক্রম শুরু হয়েছে সারা দেশে। কিন্তু শরীয়তপুরের কোথায়ও এ কার্যক্রম নেই। ফলে জেলার স্বল্প আয়ের মানুষ বেশি দামে নিত্য প্রয়োজনীয় সব দ্রব্য ক্রয় করতে বাধ্য হচ্ছে।

জেলা শহরের মধ্যে প্রতিদিন দুটি ট্রাকে করে চিনি, সয়াবিন তেল, মসুর ডাল ও ছোলা বিক্রি করার কথা। শরীয়তপুর জেলায় টিসিবি’র নয়জন পরিবেশক রয়েছেন। লোকসান হওয়ার ভয়ে কোনো পরিবেশক টিসিবি থেকে পণ্য উত্তোলন করে সরবরাহ করছেন না।

শরীয়তপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্র জানায়, জেলায় টিসিবি’র নয়জন পরিবেশক রয়েছেন। যাঁদের মধ্যে আটজন পরিবেশকের লাইসেন্সের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে। জেলা সদরে টিসিবির পণ্য বিক্রি করার জন্য নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল মদিনা ট্রেডার্স, হিমালয় ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল, রাহাত এন্টারপ্রাইজ ও খান ট্রেডার্সকে। এদের মধ্যে একমাত্র রাহাত এন্টারপ্রাইজের লাইসেন্সের মেয়াদ রয়েছে।

পবিত্র রমজান উপলক্ষে স্বল্প আয়ের মানুষের হাতে পণ্যসামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয় টিসিবির মাধ্যমে গ্রাম পর্যায়ে পণ্যসামগ্রী সরবরাহ করছে। জেলা সদরে প্রতিদিন দুটি ট্রাকে করে পণ্যসামগ্রী বিক্রি করার কথা। প্রতিটি ট্রাকে প্রতিদিন বিক্রি করার জন্য একজন পরিবেশককে ৪০০ কেজি চিনি, ৩০০ কেজি মসুর ডাল, ৩০০ লিটার সয়াবিন তেল ও ৪০০ কেজি ছোলা বরাদ্দ দেওয়া হয়। প্রতি কেজি চিনি ৫৫ টাকা, মসুর ডাল ৮০ টাকা, ছোলা ৭০ টাকা ও সয়াবিন তেল ৮৫ টাকা লিটার দরে বিক্রি করার কথা। একজন ক্রেতা সর্বোচ্চ ৪ কেজি চিনি, ৩ কেজি মসুর ডাল, ৫ কেজি ছোলা ও ৫ লিটার সয়াবিন তেল কিনতে পারবেন।

বর্তমানে শরীয়তপুরের হাটবাজার গুলোতে প্রতি কেজি চিনি ৭২ টাকা থেকে ৭৫ টাকা, মসুর ডাল ৯০ টাকা থেকে ১২০ টাকা, ছোলা ৮৫ টাকা থেকে ৯০ টাকা ও সয়াবিন তেল ১০৫ টাকা দরে বিক্রি করা হচ্ছে।

টিসিবির পরিবেশকেরা জানান, টিসিবির সরবরাহ করা পণ্য বরিশাল কার্যালয় থেকে শরীয়তপুরে আনতে অনেক খরচ। বরিশাল থেকে পণ্য আনার জন্য ট্রাকভাড়া ১০/১২ হাজার টাকা, পণ্য ওঠানো-নামানোর খরচ হয় প্রতি মেট্রিক টনে ৫০০ টাকা। আর টিসিবি থেকে প্রতি কেজিতে খরচসহ ব্যবসা দেওয়া হয় সাড়ে চার টাকা। প্রতি ট্রাকের ১ হাজার ৪০০ কেজিতে পাওয়া যায় ৬ হাজার ৩০০ টাকা। আর খরচ হয় ১১/১৩ হাজার টাকা। প্রতি ট্রাকে ডিলারের লোকসান হবে ৫ হাজার টাকা থেকে সাড়ে ৬ হাজার টাকা।

টিসিবির শরীয়তপুর সদরের পরিবেশক রাহাত এন্টারপ্রাইজের মালিক জাকির হোসেন বলেন, ‘ছয় বছর যাবৎ টিসিবির লাইসেন্স করেছি। এ সময়ে আট লাখ টাকা লোকসান হয়েছে। এখন আর পারছি না, তাই এক বছর যাবৎ টিসিবি থেকে কোনো পণ্য উত্তোলন করছি না।’

সদর উপজেলার আংগারিয়া ইউনিয়নের গয়াতলা এলাকার পরিবেশক মদিনা ট্রেডার্সের মালিক মহসিন উদ্দিন বলেন, ‘টিসিবি এক কেজি পণ্যের বিপরীতে সাড়ে চার টাকা দিচ্ছে। আমাদের পণ্যসামগ্রী এনে বিক্রি করতে খরচ হচ্ছে সাড়ে ছয় টাকা থেকে সাত টাকা। আমরা কেন লোকসান দেব?’

শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুদুল হোসাইন খান বলেন, ‘শরীয়তপুরে টিসিবির কার্যক্রম কোথাও চালু হয়নি। অনেক দূর থেকে টিসিবির মালামাল আনতে হয়। তাই ডিলাররা লোকসানের ভয়ে টিসিবির মাল উত্তোলন করেনি। জেলায় টিসিবির নয়জন ডিলার রয়েছে। এর মধ্যে আটজন ডিলারের লাইন্সেস এর মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে। নতুন ডিলার নিয়োগে টিসিবি উদাসীন। তাই রমজান মাসে শরীয়তপুর জেলায় কোথাও টিসিবির ডিলারের মাধ্যমে স্বল্প আয়ের মানুষের মধ্যে সাশ্রয়ী মূল্যে পণ্যসামগ্রী সরবরাহ করা যায়নি।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*