দশমিনায় ২৬ টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী নিয়োগে নিয়োগ বানিজ্য।

বিশেষ প্রতিবেদক,মু.নজরুল ইসলাম। পটুয়াখালী­ জেলার দশমিনা উপজেলায় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোতে চলছে দপ্তরীকাম নৈশপ্রহরী নিয়োগ প্রক্রিয়া।এ পর্যায়ে উপজেলার মোট ২৬টি স্কুলে নিয়োগ পাবে ০১ জন করে ২৬ জন দপ্তরীকাম নৈশপ্রহরী ।অত্র নিয়োগ সংক্রন্ত সকল প্রস্তুতি ইতিমধ্যে সম্পন্ন করেছেন দশমিনা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস।

উপজেলা নির্বহী অফিসার মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামানকে (অতিরিক্ত দায়িত্ব)বাছাই কিমিটির সভাপতি করে নিয়োগ পরীক্ষার জন্য ১৩,১৪ ও ১৫ জুন ২০১৭ দিন তারিখ ঠিক করা হয়েছে অনেক আগেই।যার অনুলিপি ইতিমধ্যে চলে গেছে সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তর গুলোতে ।আশায় বুক বেধে প্রস্তুতিও নিয়েছেন সকল পরীক্ষর্থী ।হঠাৎসব কিছু ওলট-পালট করে দিল একটি বদলির আদেশ।

দশমিনা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ আবুল বাশারের বদলি।চাকুরী জীবনে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে বদলি হবার রিতি-নীতি মেনেই সম্নয়কারী চাকুরীতে চাকরী করতে হবে এটাই নিয়ম।তবে সে বদলির দিন ক্ষন আছে ।রয়েছে অনেক বিধিবিধান।

জুন মাস হচ্ছে সরকারী দপ্তর গুলোর হিসেব নিকেসের মাস,দেখাগেছে ১লা জুন থেকে ৩০জুন পর্যন্ত দিন রাত কাজ করেও দাপ্তরিক কাজ শেষ করা যায় না ।তার উপরে ঈদের মাস হওয়ায় এ বারের জুন মাসটি অন্য দশটি জুনের চেয়ে অনেক গুরুত্বপুর্ণ ।তাই দেখা গেছে এ বদলিকে কেন্দ্র করে উপজেলার হাজার হাজার প্রাথমিক শিক্ষক/কর্মচারী পরেছেন বেকায়দায়। ঠিক সেই মুহুর্তে কি কারনে একজন দপ্তর প্রধানকে মাত্র সল্প সময়ের নোটিশে দশমিনা থেকে কলাপারায় পাঠালেন কতৃপক্ষ এখন জনমনে প্রশ্ন, কি কারনে হঠাৎ করে এমন একটি বদলির আদেশ।

কোন অভিযোগ ছাড়াই কি কারনে দশমিনা উপজেলা শিক্ষা অফিসার বদলি হলেন তা জানেনা শিক্ষা অফিসার মোঃ আবুল বাশার নিজেও।তিনি এ প্রতিনিধিকে বলেন,আমার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ নাই। তবে আমার মনে হয়,আমি থাকলে হয়তো যে ২৬টি স্কুলে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী নিয়োগ চলছে , হয়তো সেখানে বানিজ্য করার কোন সুযোগ থাকবে না।

মুলতঃ এ ছাড়া আমার বিরুদ্ধে এই মূহুর্তে আর কোন অভিযোগ বা অপরাধ দেখছিনা ।অথচ যাহাকে দশমিনায় বদলি করা হয়েছে,তাহাকে গত ৩০মে ২০১৭ খ্রীঃ তারিখে কর্মস্থল দেয়া হয় বরগুনা সদরে।তাই ভুক্তভোগীদের জানার ইচ্ছে,যা এখন অনেকেরই প্রশ্ন কোন অসুভ শক্তির অবৈধ হস্তক্ষেপে কোন অসৎ উদ্দেশ্য হাসিল করার জন্য আমতলি উপজেলার সহকারী শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসার) মুঃ জাহিদ উদ্দিনকে রাতারাতি প্রোমোশন দিয়ে দশমিনায় বদলির আদেশ দিলেন তাহা কাহারোই বোধগম্য নহে।বিষয়টি সংশ্লিস্ট বিভাগকে ভেবে দেখার জোড় দাবী দশমিনার ভুক্তভোগী মহলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*