পাক-ভারত স্বপ্নের ফাইনাল আজ

স্পোর্টস ডেস্ক: ক্রিকেটীয় দৃষ্টিকোণ থেকে দেখলে ভারত ও পাকিস্তানের ক্রিকেট লড়াই এখন আর ততটা জমজমাট নয়। লাভের আশায় এ দুটি দেশের খেলা প্রায় প্রতিটি টুর্নামেন্টেই ফেলতে চায় আইসিসি। এই শতকের শুরু থেকেই পাকিস্তান তাদের ক্রিকেট-ঐতিহ্য ভুলতে বসেছে। এখন যেটা রয়েছে, সেটাকে সেই ঐতিহ্যের কঙ্কাল বললেই বোধ হয় সবচেয়ে ভালো হবে।ঠিক উল্টো পথে ভারতের ক্রিকেট।

২০০০ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে হারের দুই বছর পরই ট্রফিটা উদ্ধার করে ভারত। ২০০৩ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপের ফাইনালেও খেলে দলটি। এরপর ২০০৭ সালে টি-টোয়েন্টির শিরোপাও যায় দেশটিতে। ২০১১ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপও জেতে দলটি। এর মধ্যে পাকিস্তানের সাফল্য বলতে ২০০৯ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয়।

তবে ফাইনালে ভারত-পাকিস্তান ক্রিকেট সব সময় উত্তেজনা ছড়ায়। ২০০৭ সালের হৃদস্পন্দন থামিয়ে দেওয়া সেই লড়াই তো এখনো সবার চোখে ভাসে।

আজ লন্ডনের কেনিংটন ওভালে আর একটি স্বপ্নের ফাইনালে এ দুটি দেশ। আবার উত্তেজক আরেকটি ফাইনাল দেখার আশায় সারা বিশ্ব।ওভালে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায় শুরু হচ্ছে যুগের সবচেয়ে বড় ক্রিকেটীয় লড়াইয়ের সম্মুখ সমর।

মাঠের লড়াইয়ের আগেই অবশ্য দুই দেশের সাবেক ক্রিকেটার,সমর্থকরা হুঙ্কার ছেড়েছেন। কথার লড়াইয়ে কেউ কারো চেয়ে কম যান না। সাবেক স্পিনার হরভজন সিং ভারতকে ফেভারিট মনে করলেও ওয়াসিম আকরাম নিজ দেশের পক্ষেই পতাকা ওড়াচ্ছেন।মাঠের লড়াইয়ে অংশ নেওয়া সেনারা অবশ্য এখন পর্যন্ত শান্তির পতাকা উড়িয়ে যাচ্ছেন। কেউ কারো বিপক্ষে রা পর্যন্ত করছেন না। বিরাট কোহলি ও সরফরাজের মুখেপ্রতিপক্ষ সম্পর্কে কীর্তন শোনা গেলেওকোনো কটুবাক্য শোনা যায়নি।ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি তো ‘ফাইনাল’ শব্দটাই মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলেছেন। জানালেন, আর দশটা ম্যাচের মতোফাইনালেও জয়ের জন্য খেলবে তাঁর দল।

ম্যাচ-পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে কোহলি বলেন, ‘আর অন্য ম্যাচের মতো এটিও একটি ম্যাচ। বেশি ভাবার কিছু নেই। অন্যদিনের মতো আজও অনুশীলন করেছি আমরা। খুব বেশি চাপ নিচ্ছি না। ফলাফল নিয়ে কেউ গ্যারান্টি দিতে পারবে না। এইম্যাচের পরেও অনেক ম্যাচ খেলতে হবে আমাদের।’এ ছাড়া ফাইনাল ম্যাচের আগে সবাইকে শান্ত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন ভারত অধিনায়ক।

কোহলি আরো বলেন, ‘কোনো ম্যাচের আগে রেকর্ড বা পরিসংখ্যান কাজে লাগে না, এগুলো নিয়ে আমরা আলোচনাও করি না। সেই দিন আপনি কেমন খেলেন, সেটারওপরই জয়-পরাজয় অনেকখানি নির্ভর করে। আপনি যদি ভালো খেলেন, তাহলে জয়ের কাজটা অনেকটাই সহজ হয়ে যায়। আমরা সেটাই করছি।কোনো পরামর্শ বা উপদেশ দলের ওপর চাপ বাড়িয়ে দেয়। সেগুলো থেকে বিরত থাকার চেষ্টা করছি আমরা।’

ফাইনালের চাপ নিতে নারাজ পাক অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদও। তিনি বলেন, ‘ভালো খেলে ফাইনালে এসেছি আমরা। এটা ফাইনাল ম্যাচ হলেও অন্য নকআউট ম্যাচগুলোর মতোই। বেশি চাপ নিলে পারফরম্যান্সে প্রভাব পড়বে। তাই কোনোরকমের চাপ নিচ্ছি না।’ফাইনালে খেলার কৌশল প্রসঙ্গে সরফরাজ বলেন, ‘এই টুর্নামেন্টে আমরা আগ্রাসী ক্রিকেট খেলেছি এবং ফাইনালে আমাদের মনোভাব বদলাবে না।’ সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মোহাম্মদ আমিরকে ছাড়াই মাঠে নামে পাকিস্তান। তবে ফাইনালের জন্য ফিট হয়ে উঠেছেন পাক পেসার।

কোচ মিকি আর্থার জানালেন, ফাইনালে আমিরকে নিয়েই মাঠে নামবে তাঁর দল। সে ক্ষেত্রে শাদাব খান বা ফাহিম আশরাফকে একাদশের বাইরে চলে যেতে হবে।গত আসরেও এই টুর্নামেন্টের ফাইনালে খেলেছিল ভারত। চার বছর কোহলির দলের সামনে টানা ‘ডাবল’ জয়ের সুযোগ। অন্যদিকে এবারই প্রথম ফাইনালে উঠেছে পাকিস্তান। প্রথমবারই বাজিমাত করতে চেষ্টার কমতি রাখবেন না পাক ক্রিকেটাররাও।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*