বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস

বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস-২০১৭ উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিং-এ মাননীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রীর বক্তৃতা

বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস ২০১৭ উদযাপনের প্রস্ত্ততি হিসাবে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আপনাদের সবাইকে স্বাগত জানাচ্ছি।

আগামী ৩১ মে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস। বরাবরের মত স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেল, তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়নে গঠিত জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের টাস্কফোর্স কমিটি এবং বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সংগঠনের উদ্যোগে সারাদেশে ৩১ মে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস উদযাপনের সর্বাত্মক প্রস্ত্ততি গ্রহণ করেছে।

আপনারা জানেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ২০১৬ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত সাউথ এশিয়ান স্পিকার সামিটে বাংলাদেশকে ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত করার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেন। তাঁর নেতৃত্বে বর্তমান সরকার জনস্বাস্থ্য উন্নয়নকে অগ্রাধিকার দিয়ে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করছে। রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে প্রধান্য দিয়ে জাতীয় স্বাস্থ্যনীতি ২০১১ প্রণয়ন করেছে। তামাক নিয়ন্ত্রণ বর্তমান সরকারের নির্বাচনী অঙ্গীকার। জনস্বাস্থ্য ও অর্থনীতির জন্য ক্ষতিকর তামাক ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে সরকার বদ্ধপরিকর।

 

প্রিয় সাংবাদিকবৃন্দ

আপনারা জানেন, বাংলাদেশে ২০০৯ সালের গ্লোবাল এডাল্ট টোব্যাকো সার্ভে (গ্যাটস) অনুযায়ী, ৪৩.৩% (প্রায় সোয়া ৪ কোটি) মানুষ তামাক ব্যবহার করে। ধূমপান ও তামাকের কারণে নানারকম ক্যান্সার, হৃদরোগ, স্ট্রোক, ডায়বেটিস, এজমাসহ নানাবিধ প্রাণঘাতী রোগ সৃষ্টি হয়। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার ২০০৪ সালের একটি গবেষনায় দেখা যায়, তামাক খাতে যেখানে সরকারের বছরে প্রায় ২,৪০০ কোটি টাকা আয় হয়, সেখানে  তামাকজনিত রোগের চিকিৎসা, অকাল মৃত্যু, পঙ্গুত্বের কারণে বছরে প্রায় ৫০০০ কোটি টাকা ক্ষতি হয়। ফলে বছরে নীট ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়ায় ২,৬০০ কোটি টাকা।

বিশ্বে প্রতি ৬ সেকেন্ডে একজন এবং প্রতিবছর ৬০ লক্ষাধিক মানুষ তামাকজনিত রোগে আক্রামত্ম হয়ে মৃত্যুবরণ করে। মৃত্যুর এ ধারা কমিয়ে আনতে বিশ্ববাসী একজোট হয়ে প্রণয়ন করেছে Framework Convention on Tobacco Control, যা জনস্বাস্থ্য উন্নয়নে পৃথিবীর প্রথম আন্তর্জাতিক চুক্তি। উল্লেখ্য, এফসিটিসি অনুমোদন প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশ প্রথম স্বাক্ষরকারী দেশ।

জনস্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে সরকার ২০০৫ সালে ‘‘ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০০৫’’ প্রণয়ন করে। পরে ২০০৫ সালে প্রণীত  আইনটিকে আরো শক্তিশালী ও যুগোপযোগী করে ‘‘ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) (সংশোধন) আইন ২০১৩’’ মহান সংসদে পাশ হয়। সর্বশেষ গত ১৯ মার্চ ২০১৫ তারিখে ‘‘ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ বিধিমালা, ২০১৫’’ প্রণয়ন করা হয়।

সংশোধিত আইনের বিধিমালা অনুযায়ী গত মার্চ ২০১৬ থেকে সব তামাকজাত দ্রব্যের মোড়কে ছবিসহ স্বাস্থ্য সতর্কবাণী প্রদান করা হচ্ছে। যা তামাকের ক্ষতিকর বিষয়ে মানুষকে সচেতন করতে গু্রুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

তামাকের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় সরকার কর্তৃক ২০১৪-২০১৫ অর্থ বছরের জাতীয় বাজেটে প্রথমবারের মত সকল তামাকজাত দ্রব্যের উপর ‘‘স্বাস্থ্য উন্নয়ন সারচার্জ’’ আরোপ করা হয়। সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় অসংক্রামক রোগ ও তামাক নিয়ন্ত্রণের বিষয়কে গুরুত্বের সাথে সম্পৃক্ত করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কর্তৃক ২০১৭-২০২১ সাল পর্যন্ত অসংক্রামক রোগ সংক্রান্ত অপারেশনাল প্ল্যানে তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমের জন্য অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে।

প্রিয় সুধীবৃন্দ

বাংলাদেশের তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম আজকের অবস্থানে আসার পেছনে চিকিৎসকসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ, সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে কর্মরত ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান এবং আপনারা, গণমাধ্যম কর্মী-সবার অবদান রয়েছে।

আইন বাস্তবায়নে যথেষ্ট অগ্রগতি হলেও কয়েকটি ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জ রয়েছে। বিশেষ করে, সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবাণী প্রদানে বিভিন্ন তামাক কোম্পানি আইন লঙ্ঘন করছে বলে গণমাধ্যমে আসছে। তামাকজাত দ্রব্যের বিক্রয়স্থলে (পয়েন্ট অব সেল) তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন সরবরাহ করে আইন লঙ্ঘণে উৎসাহী করছে তামাক কোম্পানিগুলো। এগুলো আইন অনুযায়ী নিষিদ্ধ। ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে এসব অবৈধ বিজ্ঞাপন অপসারণ করতে উদ্যোগ নেয়া হবে।

প্রিয় সাংবাদিকবৃন্দ,

আপনারা জানেন, ১৯৮৭ সালের বিশ্ব স্বাস্থ্য সম্মেলনে প্রতিবছরের একটি দিনকে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস হিসাবে উদযাপন করার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। ১৯৮৮ সাল থেকে ৩১ মে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস প্রতিবছর আলাদা আলাদা প্রতিপাদ্য নিয়ে উদযাপিত হয়ে আসছে। এবছর দিবসটির প্রতিপাদ্য হচ্ছে “Tobacco – a threat to development” অর্থাৎ “তামাক- উন্নয়নের অন্তরায়”

প্রকৃতপক্ষে তামাকের ক্ষতির প্রভাব থেকে জাতি-ধর্ম, বর্ণ-গোত্র কিছুই রেহাই পায় না। এটি মৃত্যু, অক্ষমতা ও দুঃখ-দুর্দশা ডেকে আনে। এতে পরিবার, সমাজ ও জাতি অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। সারা বিশ্বে তামাক ব্যবহারজনিত রোগ, পঙ্গুত্ব, অক্ষমতা ও মৃত্যুর কারণে ব্যয়িত অর্থের পরিমাণ ১.৪ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা কিনা বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে ব্যয় করা যেত। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তে জাতিসংঘে বিশ্ব নেতারা ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিতে Sustainable Development Goals (SDGs)  হিসেবে ১৭ টি উদ্দ্যেশ্য এবং ১৬৭ টি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে। ২০৩০ সালের মধ্যে সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতের লক্ষ্য অসংক্রামক রোগের এক তৃতীয়াংশের অকাল মৃত্যু হ্রাস এবং আন্তর্জাতিক তামাক নিয়ন্ত্রণ চুক্তিএফসিটিসির বাস্তবায়নকে লক্ষ্যমাত্রা হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে। বর্তমান সরকার টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য বদ্ধ পরিকর। এ লক্ষ্যে সরকারের সকল মন্ত্রণালয় ও বিভাগ একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। যেহেতু টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় বিশেষভাবে তামাক নিয়ন্ত্রণের উপর জোর দেয়া হয়েছে, তাই সারা দেশবাসীর সহযোগিতা না পেলে সরকারের একার পক্ষে এ লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হবে না।

আগামী ৩১ মে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস দেশের ৬৪টি জেলায়ই উদযাপন করা হবে। এ লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে সব জেলায় জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনদের বিশব তামাকমুক্ত দিবস উদযাপনের নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

৩১ মে ঢাকায় ওসমানী মিলনায়তনে সকাল ১১টায় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। উক্ত আলোচনা সভায় আমি আপনাদেরকে অংশগ্রহণ করার আমন্ত্রণ জানাচ্ছি।

অনেক সময় ধরে এ বক্তব্য মনোযোগ সহকারে শুনার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। আগামী দিনেও তামাক নিয়ন্ত্রণে আপনারা স্ব স্ব অবস্থান থেকে সক্রিয় ভূমিকা রাখবেন, এ প্রত্যাশা করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*