জঙ্গিবাদ বিরোধী মুসলিমদের হত্যার ষড়যন্ত্র উজিরপুরে 

২০ মে উজিরপুরে কয়েকটি মাদ্রাসা থেকে হেযবুত তওহীদের বিরুদ্ধে একটি উস্কানিমূলক ফতোয়া সম্বলিত বেনামী লিফলেট  বিতরণ করে জনগণের মধ্যে ধর্মোন্মাদনা সৃষ্টির অপচেষ্টা চালানো হয়। উগ্র ইসলাম বিরোধী শান্তির প্রচারক হেযবুত তওহীদ নামে এই ইসলামী  অরাজনৈতিক ধর্মীয় সমিতির  অপরাধ তারা প্রকাশ্যে প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে জঙ্গিবাদ, ধর্মান্ধতা, সাম্প্রদায়িকতা,অপরাজনীতির বিরুদ্ধে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষাগুলো জেলাগুলির সর্বত্র তুলে ধরছে এবং জাতির অপরাধ প্রবণতার  বিরুদ্ধে  ঐক্যের সপক্ষে মানবতাবাদী প্রচার করে যাচ্ছে যে কর্মকাণ্ড ইসলামী ধর্মব্যবসায়ীদের স্বার্থহানি করছে এবং তারা তাদের নিয়ন্ত্রিত মাদ্রাসা মসজিদসহ বিভিন্ন ধর্মস্থানকে অপব্যবহার করে  মানুষে মানুষে ঘৃণা বিদ্বেষ ছড়িয়ে মানুষ ক্ষেপিয়ে তুলছে।

গতকাল আসরের নামাজের পর উজিরপুর শিকদারপাড়া মেজর জলিল নূরাণী মাদ্রাসা, কালিবাড়ি মুসলিমপাড়া মাদ্রাসা, উজিরপুরআলীয়া মাদ্রাসা, উজিরপুর কওমী মাদ্রাসার অজ্ঞাতনামা ২৫-৩০ জন শিক্ষার্থী ৫/৬ টা দলে বিভক্ত হয়ে “হেযবুত তওহীদ একটি কুফুরী সংগঠন” শিরোনামের একটি হ্যান্ডবিলের আনুমানিক ৭/৮শ কপি স্থানীয় বাজারগুলোর দোকানে দোকানে এবং সাধারণ মানুষের মাঝে দ্রুত বিলি করে স্থান ত্যাগ করে।এই একই হ্যান্ডবিল বিতরণ করে কতিপয় মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষক ও কয়েকটি ধর্মভিত্তিক দলের স্থানীয় সন্ত্রাসীরা গত ১৪ মার্চ ২০১৬ নোয়াখালীতে হেযবুত তওহীদ সদস্যদের বাড়িঘর লুটপাট করে ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়েছে, ভস্মীভূত করেছে, বহু সদস্যের অঙ্গহানী ঘটিয়েছে, দুই জনকে নৃশংসভাবে জবাই করে, হাত পায়ের রগ কেটে, চোখ উপড়ে হত্যা করেছে, পেট্রোল দিয়ে তাদের দেহ জ্বালিয়ে দিয়েছে, উদ্ধারকারী আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর উপর এবং থানাতেপর্যন্ত হামলা চালিয়েছে। 

এখন উজিরপুরের কিছু এলাকায় ঐ লিফলেটটিই বিতরণ করে একই ধরনের পৈশাচিক ঘটনা সংঘটনের অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে। উক্ত লিফলেট বিতরণের সঙ্গে জড়িত সকলকে আইনের আওতায় না আনা হলে যে কোন সময় আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটার সমুহ সম্ভাবনা রয়েছে। অ-রাজনৈতিক আন্দোলন হেযবুত তওহীদের সদস্যরা বিগত ২২ বছর যাবৎ দেশের প্রচলিত আইন মান্য করে শান্তিপূর্ণ উপায়ে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, ধর্মব্যবসা, অপ-রাজনীতি ও সাম্প্রদায়িক উন্মাদনা সৃষ্টির বিরুদ্ধে জনসচেতনতা সৃষ্টির মাধ্যমে জাতিকে সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে ঐক্যবদ্ধ করার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা করে যাচ্ছে।    গত বছর ১৪ মার্চ এই একই হ্যান্ডবিল বিতরণ করে নোয়াখালীতে তাণ্ডব চালানো হয়, দুজন হেযবুত তওহীদ সদস্যকে প্রকাশ্য দিবালোকে জবাই করে হত্যা করা হয়। বরিশালেও অনুরূপ ঘটনা ঘটানোর ষড়যন্ত্র চলছে। হুমকির সামনে পড়া এই সংগঠনের বক্তব্য যে এখনও যদি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর তরফে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হয় তাহলে সম্ভাব্য বিপর্যয় এড়ানো যেতে পারে। এবিষয়ে গতকাল বরিশালে একটি সাংবাদিক সম্মেলনও থেকে এই তথ্য প্রেসের সামনে এসেছে।  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*