২১শে জুন, ২০১৮ ইং | ৭ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ২:০৬
সর্বশেষ খবর

আন্তর্জাতিক যোগ দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে যোগ প্রদর্শন ও আলোচনা সভা

প্রাণতোষ তালুকদারঃ রাজধানী ঢাকার রবীন্দ্র সরোবর, ধানমন্ডি লেকে আন্তর্জাতিক যোগ দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে যোগ প্রদর্শন ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

রবীন্দ্র সরোবর, ঢাকার ধানমন্ডি লেকে আন্তর্জাতিক যোগ দিবস উদ্যাপন উপলক্ষ্যে যোগ প্রদর্শন ও আলোচনা সভা অদ্য ২০ জুন, ২০১৬ ইং তারিখ সকাল ৬.৩০ মিনিট থেকে ৮.৩০ মিনিটের মধ্যে শেষ হয়েছে।

আন্তর্জাতিক যোগ দিবস উদ্যাপন উপলক্ষ্যে যোগ প্রদর্শন ও আলোচনা সভায় সম্মানিত আলোচকবৃন্দ ছিলেন ‘শংকর তালুকদার’, সাবেক ছাত্র নেতা ও সমাজকর্মী, প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ যোগ সোসাইটি। তপন কুমার নাথ, চিকিৎসা মনোবিজ্ঞানী, উপ-সচিব, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। ড. আলমাসুর রহমান, মটিভেশনাল স্পিকার ও সহ-সভাপতি, বাংলাদেশ যোগ সোসাইটি। জাফর সাদেক খান-সদস্য, বাংলাদেশ যোগ সোসাইটি। রজত রায়, যোগ প্রশিক্ষক ও নির্বাহী সদস্য, বাংলাদেশ যোগ সোসাইটি। রঞ্জনা রায়, যোগ প্রশিক্ষক, বাংলাদেশ যোগ সোসাইটি এবং আরো অনেকে বক্তব্য দেন।

বক্তব্যে ‘শংকর তালুকদার’ বলেছেন যে আগামীকাল ২১শে জুন, ২০১৬ ইং তারিখে আন্তর্জাতিকভাবে যোগ দিবস উদ্যাপন উপলক্ষ্যে যোগ প্রদর্শন হবে এবং সারা বিশ্বেই এর প্রচার শুরু হয়ে গেছে এবং এর সুফলও বয়ে এনেছে। যোগ ব্যায়াম করলে মানুষ রোগমুক্তি লাভ করে ও সুস্থ থাকে এবং সৃষ্টিকর্তার সাথেও একটি ভাল সম্পর্ক তৈরি হয়। যোগের মাধ্যমে মানুষের দেহে অনাবিল আনন্দ ও শান্তি এবং সুখ আসে।

তিনি সকল মানুষকে যোগ সাধনার অভ্যাস গড়ে তুলতে বলেন, শরীরকে সুস্থ ও সবল রাখতে হলে যোগ ব্যয়াম করার পরামর্শ দেন। পৃথিবীতে সুন্দরভাবে জীবন-যাপন করতে হলে যোগের মাধ্যমে শরীর সুস্থ থাকবে এবং কাজ-কর্মে অগ্রগতি লাভ করবেন। জীবনে সুখী হবেন। যোগব্যায়াম রোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণই শুধু করে না রোগ নিরাময়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ভারত উপ-মহাদেশে এর উদ্ভাবন হলেও আজ সারা বিশ্বে যোগ চর্চার বিকাশ ও জনপ্রিয়তা লাভ করেছে।

অধ্যাপক ডা. গোবিন্দ চন্দ্র দাস এর কথা জীবনযাপনে যোগব্যায়াম রোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণই শুধু করে না রোগ নিরাময়ে গুরুত্বর্পূণ ভূমিকা রাখে। ভারত উপ-মহাদেশে এর উদ্ভাবন হলেও আজ সারা বিশ্বে যোগ চর্চার বিকাশ ও জনপ্রিয়তা লাভ করেছে।

জাতিসংঘ ২১ জুনকে আন্তর্জাতিক যোগ দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছে এবং ১৯০টি দেশের ২৬০টির বেশি শহরে তা পালিত হচ্ছে। যোগব্যায়ামকে জীবনযাপনের অংশ করে তুলুন, দেহ-মনের সুস্থতা ও শান্তি নিশ্চিত হবে।

ওজন কমানো, শক্তিশালী নমনীয় শরীর, উজ্জ্বল ত্বক, শান্ত মন, ভালো স্বাস্থ্য ইত্যাদি যা কিছু আমরা পেতে চাই সব কিছুর চাবি আছে যোগাসনে। এতে অনেকরকম শারীরিক সমস্যা যথা উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, করোনারি আর্টারি ব্লকেজ ইত্যাদি রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব এবং শরীরিক, মানসিক ও অধ্যাত্মিকভাবে সুস্থ জীবন কাটানো সম্ভব। যোগ হল এক জীবনদর্শন, যোগ হল আত্মানুশাসন, যোগ হলে এক জীবন পদ্ধতি। যোগ শুধু বিকল্প চিকিৎসা পদ্ধতিই নয়, বরং যোগের প্রয়োগ ব্যধিকে নির্র্মূল করে। এটি এক বিধাধা প্রদত্ত শুধু শরীরেই নয়, সমস্ত মানসিক রোগেরও চিকিৎসা শাস্ত্র। যোগ অ্যালোপ্যাথির মতো কোনো চিকিৎসা নয়, বরং রোগের মূল কারণকে নির্মূল করে আমাদেও ভেতর থেকে সুস্থ কওে তোলার এক উপায়। নিয়মিত যোগভ্যাসের অসংখ্য উপকারিতার মধ্যে কয়েকটি নিয়ে আলোচনা করা যাকÑ

ফিটনেস :  শারীরিকভাবে সুস্থ মানেই কিন্তু পুরোপুরি ফিট থাকা নয়। তখনই পুরোপুরি ফিট যখন মানসিক, আধ্যাত্মিক, শারীরিক ও সামাজিকভাবেই আপনি সুস্থ থাকবেন। আপনার আবেগ থাকবে আপনার নিয়ন্ত্রণে। কথায় বলে, রোগের অনুপস্থিতি কিন্তু স্বাস্থ্য নয়, স্বাস্থ্য হল জীবনের বহুমুখী বহিঃপ্রকাশ। আপনি কতটা আনন্দ এবং উৎসাহের সঙ্গে জীবনকে উপভোগ করতে পারছেন সেইটাই কিন্তু আপনার স্বাস্থ্যেও প্রমাণ। যোগাসন আপনাকে দেয় পরিপূর্ণ স্বাস্থ্য। আপনাকে সর্বদা ফিট রাখে শারীরিক, মানসিক, আধ্যাত্মিক সবভাবেই।

স্ট্রেস বা চাপ কমায় : সারাদিনের কাজের চাপে আমরা সবাই কমবেশি কাহিল হয়ে পড়ি। কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পর ক্লান্ত লাগে। অনেক সময়ই মেজাজ খারাপ থাকে। এর কারণ স্ট্রেস। শারীরিক এবং মানসিক দু’ভাবেই অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়ি। যোগাসন এর থেকে মুক্তি দেয়। যোগাসন, প্রাণায়াম এবং ধ্যান কওে স্ট্রেসকে দূরে রেখে প্রাণোচ্ছল জীবনযাপন করা সম্ভব।

মানসিক শান্তি : মানসিক শান্তি যে না চায়? মানসিক শান্তি পাওয়ার জন্য আমাদের কতই না প্রচেষ্টা। আমরা সুন্দও জায়গায় ঘুরতে যাই, ভাল গান শুনি, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে মধ্যে সময় কাটাতে চাই তবে নিয়মিত মানসিক শান্তি পাওয়ার জন্য এত কিছু করার দরকার নেই। নিয়ম করে একটু যোগাসন, ধ্যান, প্রাণায়াম, নিউরোবিক ইত্যাদির মাধ্যমে মনোঃসংযোগ এবং মানসিক শান্তি উভয়ই বাড়ানো সম্ভব। অভ্যাস করে দেখুন, নিশ্চিত ফল পাবেন।

প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় : নিয়মিত যোগাভ্যাস আমাদের শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। চারদিকে এখন এত দূষণ যে সবসময় নানারকম জীবাণু আমাদের শরীরে প্রবেশ করছে এবং ক্ষতি করার চেষ্টা করছে। এদেও বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য শরীরের অভ্যন্তরীণ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি থাকা দরকার। যোগাসন রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে টিস্যু এবং পেশিকে শক্তি দেয়। শ্বেতকণিকাগুলোকে আরও উজ্জীবিত করে প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। শ্বাস-প্রশ্বাসের টেকনিক এবং ধ্যানও এতে সাহায্য করে।

এনার্জি বাড়ায় : দিন শেষে আমরা ক্লান্ত হয়ে পড়ি। বাড়ি ফেরার পর এনার্জি অবশিষ্ট থাকে না। মাত্র কয়েক মিনিটের যোগাভ্যাস কিন্তু সারাদিনের পরেও এনার্জিও জোগান দেবে। সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে কিছুক্ষণ যোগাসন করলে কাজের ফাঁকেও ফ্রেশ আর এনার্জেটিক থাকা যাবে।
সুস্থ্য সুন্দর সম্পর্ক : যোগভ্যাস আমাদের কাছে মানুষ অর্থাৎ বাবা, মা, বন্ধু, স্বামী, স্ত্রী, আত্মীয়, পরিজন অফিস কলিগ সবার সঙ্গেই সম্পর্ক ভাল রাখতে সাহায্য কওে। সুস্থ, রিল্যাক্সড মন সবসময় সম্পর্কেও খুটিনাটিগুলোকে ভাল বুঝতে পারে। আর সম্পর্কেও বিষয়টি যেহেতু খুব স্পর্শকাতর তাই অত্যন্ত সাবাধানতার সঙ্গে বিষয়টির প্রতি লক্ষ্য রাখা উচিত।

যোগাভ্যাস একটি নিয়মিত অভ্যাস। দু’দিন করে ছেড়ে দিল হবে না, নিয়মিত অভ্যাসে ও মাধ্যমেই এর সুফল পাওয়া সম্ভব। নিজে নিজে অভ্যাস না করে একজনর ট্রেনারের অধীনে এগুলো অভ্যাস করা ভালো। এখন ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যোগব্যায়াম চর্চাকেন্দ্র গড়ে উঠেছে। হলিস্টিক হেলথ কেয়ার সেন্টার সফলতার সঙ্গে যোগব্যায়াম পরিচালনার জন্য অনেক রাজধানীবাসীর কাছে প্রিয় হয়ে উঠেছে (বিশেষ কওে ধানমন্ডি থেকে হলিস্টিক ডায়াবেটিস ক্লাব) প্রয়োজন বুঝে ট্রেনার নির্দেশ দিয়ে থাকেন ঠিক কোন ধরনের আসনগুলো করা উচিত। এর পাশাপাশি নানারকম রোগ যোগাসনের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। যেমনঃ উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, হার্টেও সমস্যা, অ্যাজমা, বদহজম, কোষ্ঠ্যকাঠিন্য, মাইগ্রেন, দুশ্চিন্তা এবং অবসাদ ইত্যাদি। বিশেষ কয়েকটি যোগাসন (প্রাণায়াম, মেডিটেশন, নিউরোবিক জিম ও আকুপ্রেসার) নিয়মিত অভ্যাসের  মাধ্যমে এই ধরনের রোগগুলো থেকে সহজেই মুক্তি পাওয়া যেতে পারে। এবং অনেকেই ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, উচ্চ কলোস্টোরল ও অ্যাজমা নিয়ন্ত্রণে রেখেছেন।

পরিশেষে সকল বক্তরা বাংলাদেশের সকল জনগণকে যোগ ব্যায়াম অভ্যাস করার কথা বলে আন্তর্জাতিক যোগ দিবস উদ্যাপন উপলক্ষ্যে যোগ প্রদর্শন ও আলোচনা সভার পরিসমাপ্তি ঘটান।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.