বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:৩২ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
বেনাপোলে “দৈনিক আলোকিত সকাল” পত্রিকার দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত বিজিবি’র হাতে ভারতীয় ইয়াবা ট্যাবলেটসহ এক পাচারকারী আটক শিশু নির্যাতন বন্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে -লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল ভোলায় আখের ফলন ভাল, দাম কম পূজোর সময় নৃত্যকরতে বাধা দেওয়ায় হিন্দু যুবক খুন সর্ষের মধ্যেই ভুত, পাঁচ বছরের তুহিনের খুনি স্বয়ং তার বাবা ও চাচা শেখ হাসিনাকে মানব প্রেমিক হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে” হাসিনা ডটারস টেল” মুভিতে অবৈধ উপায়ে টাকা আয় করেন ইমরান দাবী প্রাক্তন স্ত্রী রেহামের ভোলার নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাছ ধরায় ১৩ জেলের জেল-জড়িমানা জলে-স্থলে-অন্তরীক্ষে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের বিজয়কেতন -তথ্যমন্ত্রী

দুর্গাপূজার যৌগিক যুক্তি, কিভাবে প্রতিমায় প্রাণ আসবে

দুর্গাপূজার যৌগিক যুক্তি

আমরা সাধারনত দেখি মাটির মূর্তি তৈরি করে দেবীর প্রতিমায় পূজা দেওয়া হয়। আজকাল পূজা পার্বণের ঘটা দিন দিন বেড়েই চলেছে। বাহ্যড়ম্বর খুব বেশী হওয়ায় নিষ্ঠা ও ভক্তিভাব যোজন ক্রোশ দূরে চলে গেছে।

প্রকৃত পূজা করতে হলে ঘরে বসেও হয়। পূজা শব্দের অর্থ ‘প’ অর্থে যোনি বা মূলাধার। ‘উ’ অর্থে বলপূর্বক। ‘জ’ অর্থে কূটস্থে থাকা। অর্থাৎ প্রাণবায়ুকে বলপূর্বক মূলাধার থেকে টেনে কূটস্থে স্থিতি করতে পারলেই প্রকৃত পূজা করা হয়।

আমরা ঠাকুর প্রতিষ্ঠা করি, কিন্তু ঠাকুরের প্রাণ প্রতিষ্ঠা করিনা। মাটির ঠাকুর মাটিই থাকেন। এর ফলে মাটির মূর্তি পৌত্তলিকাই সার তাই অন্য সম্প্রদারের লোকেরা ভাঙ্গলেও কোন প্রতিকার হয় না। কিন্তু যদি মাটির মূর্তিতে প্রাণ প্রতিষ্ঠা করা হয় তবেই ঠাকুর জাগ্রত হবেন, কথা বলবে, ভক্তের ডাক শুনবে, অপকারীকে শাস্তি দিবে।

শাস্ত্রে বলা আছে, “প্রাণই ভগবান-ঈশ”। প্রাণবায়ুর ক্রিয়া অহঃরহ চলছে। তাকে দেখতে না পাওয়ার কারণ নেই। প্রাণরূপে বিদ্যমান তিনি, সর্বত্র সমান। প্রাণই ঈশ্বর, প্রাণই বিষ্ণু, প্রাণই ব্রহ্মা। সমস্ত লোক প্রাণেতেই ধৃত আছে, সমস্ত জগতই প্রাণময়। আমরা প্রাণ সমুদ্রে ডুবে আছি।

প্রাণ-ক্রিয়া করে নিজের প্রাণ প্রতিষ্ঠা স্থির করতে হবে। তারপরে মুর্তিতে ঠাকুরের প্রাণ প্রতিষ্ঠা করে পূজা দিতে হবে। তবেই প্রাণে প্রাণ মিলন হবে। মাটির ঠাকুরে প্রাণ, পাথরের ঠাকুরে প্রাণ, নারায়ণ শিলায় প্রাণ, অশ্বত্থ বৃক্ষের মধ্যে সবিত্বমণ্ডল মধ্যবর্তী নারায়ন দেখতে না পেলে পৌত্তলিকাই সার হবে।

মূর্তি নির্মাণ করে আমরা তাতে প্রাণ প্রতিষ্ঠা করে চিন্ময় দৃষ্টিতে দেখে পূজা করে থাকি। অথচ আমাদের জন্মের সঙ্গেই যে প্রাণ প্রতিষ্ঠিত হয়ে আছে তার দিকে আমরা দৃষ্টি দেই না।

শাস্ত্রে বলা আছে,

উত্তমা সহজক্রিয়া মধ্যমা ধ্যান ধারণা

কনিষ্ঠা অজপা সিদ্ধি মূর্তিপূজা ধমাধম।

অর্থাৎ খুবই নিম্নস্তরের সাধনা হল মূর্তিপূজা। তার চেয়ে বড় হল অজপা। অজপার চেয়েও বড় হল ধ্যান-ধারণা এবং সর্বোত্তম হল সহজ সাধনা বা ক্রিয়াযোগ।

যৌগিক দৃষ্টিতে দূর্গাপূজা

ষষ্ঠীতে দেবীর বোধন অর্থাৎ মূলাধারে কুণ্ডলিনী শক্তির ধ্যান করে কুণ্ডলিনী শক্তির জাগরণ ও মূলাধার ভেদ করে স্বাধিষ্ঠানে স্থাপন। সপ্তমীতিথিতে স্বাধিষ্ঠান ভেদ করে মনিপুর চক্রে অবস্থিত হয়। অষ্টমীতিথিতে দ্বাদশদল অর্থাৎ হৃদপদ্মে অনাহতচক্রে অবস্থিত বিষ্ণুগ্রন্থির ভেদ। নবমী পূজার দ্বারা ভ্রুমধ্যে দ্বিদলচক্রে অবস্থিত রুদ্রগ্রন্থির ভেদ। এইপর্য্যন্ত সগুণ রূপদর্শন। এরপর দশমী পূজার দ্বারা নাম ও রূপই রূপের বিসর্জন অর্থাৎ ক্রিয়ার দ্বারা কুণ্ডলিনী শক্তি ষট্‌চক্র ও গ্রন্থিত্রয় ভেদ করে সহস্রসারে ব্রহ্মরন্ধ্রে লীন হলে সর্ববৃত্তিনিরোধরূপ সমাধি দ্বারা মায়ের নির্গুণ চৈতন্যস্বরূপের উপলব্ধি। এই অবস্থায় জীবাত্মা আর পরমাত্মায় মিলে একাকার হয়ে একত্বের অনুভব হয়। সাধকের সমাধিভঙ্গের পর “সর্বং ব্রহ্মময়ং জগৎ” অর্থাৎ সমস্তই ব্রহ্মময় অনুভব করেন এবং তখন আত্মভাবে সকলকে প্রেমে আলিঙ্গন করতে থাকেন। এজন্যই আমাদের দেশে মুর্ত্তিবিসর্জনের পর আলিঙ্গনের প্রথা প্রচলিত আছে।

কুণ্ডলী উপনিষদে উল্লেখ আছে-

“জ্বলনাঘাত পবনাঘাতোরুন্নিদ্রিতোহহিরাট্‌।

ব্রহ্মগ্রন্থিং ততো ভিত্ত্বা বিষ্ণুগ্রন্থিং ভিনত্ত্যতঃ।।

রুদ্রগ্রন্থিং চ ভিত্ত্বৈর কমলানি ভিনত্তি ষট্‌

সহস্র কমলে শক্তিঃ শিবেন সহ মোদতে

সৈবাবস্থা পরা জ্ঞেয়া সৈব নিবৃত্তিকারনী।।

যোগী পিকেবি প্রকাশ, পরিচালক, আনন্দম্‌ ইনস্টিটিউট অভ যোগ এণ্ড যৌগিক হস্‌পিটাল। মেইলঃ yogabangla@gmai.com

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit