বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:৪৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
বেনাপোলে “দৈনিক আলোকিত সকাল” পত্রিকার দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত বিজিবি’র হাতে ভারতীয় ইয়াবা ট্যাবলেটসহ এক পাচারকারী আটক শিশু নির্যাতন বন্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে -লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল ভোলায় আখের ফলন ভাল, দাম কম পূজোর সময় নৃত্যকরতে বাধা দেওয়ায় হিন্দু যুবক খুন সর্ষের মধ্যেই ভুত, পাঁচ বছরের তুহিনের খুনি স্বয়ং তার বাবা ও চাচা শেখ হাসিনাকে মানব প্রেমিক হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে” হাসিনা ডটারস টেল” মুভিতে অবৈধ উপায়ে টাকা আয় করেন ইমরান দাবী প্রাক্তন স্ত্রী রেহামের ভোলার নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাছ ধরায় ১৩ জেলের জেল-জড়িমানা জলে-স্থলে-অন্তরীক্ষে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের বিজয়কেতন -তথ্যমন্ত্রী

আইনকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে বুড়িগঙ্গা্র ৩৫০ একর জমি বেদখল

বুড়িগঙ্গা্র ৩৫০ একর জমি বেদখল

বুড়িগঙ্গা দক্ষিণ-পশ্চিমে শাখার দুই তীর দখলে আবার মেতে উঠেছে চিহ্নিত ভূমিদস্যুরা। বুড়িগঙ্গা এভাবে দখল হতে থাকলে রাজধানীর নিম্নাঞ্চলে দীর্ঘস্থায়ী জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে।

এক সময়ের খর স্রোতা বুড়িগঙ্গার শব্দ দুই থেকে তিন মাইল দূর থেকে শোনা যেত। আর এখন লালবাগ, হাজারীবাগ, মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধের কোলঘেঁষা বুড়িগঙ্গার এই শাখা নদী দখলদারদের অত্যাচারে মানচিত্র থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে। বুড়িগঙ্গার দক্ষিণ-পশ্চিমের শাখা নদীর লালবাগ, কামরাঙ্গীরচর, হাজারীবাগ ও মোহাম্মদপুরে বিস্তীর্ণ এলাকার প্রায় ২৪ হাজার ৫শ’ কাঠা (৩৫০ একর) একর বেদখল ইতোমধ্যেই হয়ে গেছে।

জানা যায় প্রধানমন্ত্রী ও উচ্চ আদালতের বারবার কঠোর নির্দেশের পরও বুড়িগঙ্গার এই আদি চ্যানেলটি প্রতিনিয়তই দখল হচ্ছে। জলাধার সংরক্ষণ আইনকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে প্রায় তিন যুগ ধরে চলছে এ দখলযজ্ঞ।

আদি চ্যানেলের শাখা নদীর প্রায় ৩৫০ একর জায়গা বেদখল হয়ে গেছে। এ দখল প্রক্রিয়ার কৌশল হিসেবে সিটি কর্পোরেশনের বর্জ্য, বালু ফেলে ভরাট করে নদীর বুক সংকুচিত করা হয়। পরে এসব জায়গায় গড়ে তোলা হয়, শিল্পকারখানা, আবাসন প্রকল্প ও রিক্সা-ট্রাকস্ট্যান্ড। বিভিন্ন ধরনের স্থাপনা তৈরি করে সাপ্তাহিক/মাসিক হারে মোটা অঙ্কের অর্থ আদায় করে সংঘবদ্ধ চক্র। মাঝেমধ্যে ডিসির উদ্যোগে সিটি কর্পোরেশনসহ বিভিন্ন সরকারী সংস্থা বুড়িগঙ্গার আদি চ্যানেল রক্ষায় নদীর দুই তীর দখলমুক্ত করতে উচ্ছেদ অভিযান চালায়। অভিযানে স্থায়ী ব্যবস্থা না নেয়ায় আবার ভূমিদস্যুদের রাহুগ্রাসে চলে যায় বুড়িগঙ্গা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দিনের পর দিন এভাবে দখল-দূষণ চলতে থাকলে পয়োনিষ্কাশন ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ে দ্রুততম সময়ের মধ্যেই পুরান ঢাকায় ভয়াবহ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হতে পারে। তারা জানান, নদী দখলদারদের রোধ করতে হলে তাদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চালিয়ে জেল জরিমানা আদায় করলে নদী দখলমুক্ত করা সম্ভব।

এদিকে জেলা প্রশাসন ও ডিএসসিসি বলেছে, বুড়িগঙ্গাসহ ঢাকার সব খাল-জলাধার দখলমুক্ত করতে প্রায়ই অভিযান চালানো হচ্ছে। অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের পর ওইসব স্থানে ওয়াকওয়ে নির্মাণসহ সৌন্দর্যবর্ধনের নানা প্রকল্প নেয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে সরেজমিনে কথা বলে জানা গেছে, বাবুবাজার ব্রিজ থেকে গাবতলী পর্যন্ত রাজধানীর দক্ষিণ-পশ্চিমের বেড়িবাঁধের কোলঘেঁষে বয়ে যাওয়া  লালবাগ-চকবাজারের বেড়িবাঁধ সংলগ্ন কামালবাগ-আলীরঘাট, শহীদনগর, আমলীগোলা, কামরাঙ্গীরচরের মুসলিমবাগ ঠোঁটা থেকে বেড়িবাঁধ ঘেঁষা লোহারপুল, রহমতবাগ, ব্যাটারিঘাট, কুড়ারঘাট, পূর্ব রসুলপুর, নবাবগঞ্জ সেকশন, কোম্পানীঘাট পাকা ব্রিজ ঘেঁষা বালুমাটি আর সিটি কর্পোরেশনের বর্জ্য ফেলে নদী ভরাট করে দোকানপাট, ট্রাক-লেগুনা স্ট্যান্ড গড়ে তোলা হয়েছে।

এসব অবাধ দখল রোধ না করলে অচিরেই পুরান ঢাকার বাসিন্দাদের বড় রকমের জলাবদ্ধতার কবলে পড়তে হতে পারে। তাই তারা সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের কাছে আবেদন জানায় তারা যেন দ্রুত এই দখল রোধের পাকাপাকি ব্যবস্থা নেয়। পুরান ঢাকার বাসিন্দারা মনে করেন সংশ্লিষ্ট ভূমি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিলে নদী, খাল, দখলমুক্ত করা সম্ভব।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit