শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ১২:২৫ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
আফগানিস্তানে মসজিদে বোমা হামলায় ৬২ জন নিহত ‘কঠিন চীবর দান’ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী ‘কঠিন চীবর দান’ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতির বাণী Foreign Minister calls upon German businesses to invest in Bangladesh প্রেমিকার সাথে ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ছবি হোয়াটসঅ্যাপে ভাইরাল, মানসন্মান নিয়ে টানাটানি বাবার বঙ্গবন্ধু ফিল্ম সিটিকে পর্যায়ক্রমে বিশ্বমানের ফিল্ম সিটিতে রূপান্তর করতে কাজ করছি শিশু নির্যাতন কিংবা হত্যাকারীদের কঠোর শাস্তি পেতে হবে -প্রধানমন্ত্রী “আমি মায়ের কাছে যাব” এটিই ছিল মৃত্যুর পূর্বে শেখ রাসেলের শেষ কথা -মুক্তিযোদ্ধা মঞ্জু ই-সিগারেট নিষিদ্ধ হওয়া প্রয়োজন -তথ্যমন্ত্রী এ সরকারের আমলে সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষ নিরাপদ -গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী

পঞ্চম শ্রেনীর ছাত্র-ছাত্রীর বিয়ে, বিয়ের পরেরদিনেই মা হলেন ছাত্রী

পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রীর বিয়ে

পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রীর বিয়ের একদিন পরই সন্তানের জন্ম দিলেন সদ্য বিবাহিত স্ত্রী সোনিয়া আক্তার। শুক্রবার রাত দুটোর দিকে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেয় সোনিয়া।

বৃহস্পতিবার রাতে বাগেরহাটের মোড়োলগঞ্জে নিশানবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলমের বাসবভবনে ডেকে নয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা সোনিয়াকে বিয়ে দেয়া হয় হাসিব মাল নামে ১২ বছরের পঞ্চম শ্রেণীর ওই স্কুল ছাত্রের সঙ্গে। তবে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দিতে না পারায় বিয়ের কাবিন নামা বাতিল করেছে বলে দাবী করেছেন কাজী আলতাফ হোসেন।

বিয়ের একদিনের মাথায় সন্তানের জন্মদেয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে শনিবার সকাল থেকে এলাকার লোকজন ভিড় করতে থাকে ওই নবজাতককে একনজর দেখার জন্য। অন্যদিকে কোমাজুরি গ্রামের আব্দুল হাকিম মালের ছেলে হাসিব মাল এই বিয়ে ও সন্তান কোন অবস্থাতেই মেনে নিতে পারছেন না।

হাসিবের দিন মজুর বাবা বলেন আমি গরীব, অসহায় মামলা চালানোর সামর্থ্য নেই আমার। তাই স্থানীয় লোকজন ও চেয়ারম্যানের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এই বিয়ে মেনে নিয়েছি। দুই মাস আগে একটি শালিসি বৈঠকে আমার কাছে ১৫ হাজার টাকা দাবি করছিলেন ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলম । ওই টাকা দিতে না পারায় সোনিয়াকে আমার শিশু ছেলের সঙ্গে জোর করে বিয়ে দেয়া হয়েছে।

সোনিয়ার মা বাবা বলেন আমার মেয়ে নিজেই একটা বাচ্চা, সেখানে একটা বাচ্চার জন্ম দেয়া কতটা ঝুঁকিপূর্ণ তারপর তাকে লালন পালন করা কতটা কঠিন কাজ সেটা কি কেউ ভেবে দেখেছেন। সোনিয়ার এখন একটা বাচ্চা হিসেবে যত্নের প্রয়োজন, দেখাশোনা করার প্রয়োজন সেখানে ও একটা বাচ্চাকে দেখাশোনা করবে এখন। হাসিব পড়াশোনা সহ নিজের যাবতীয় কাজ আগের মত করতে পারবে কিন্তু আমার মেয়ের ভবিষ্যৎ তো নষ্ট হয়ে গেল।

গ্রামের লোকজন বলে কি দিন এসেছে। এসব ছেলে মেয়েরা এখন বিয়ে, সংসার, বাচ্চার কি বোঝে? এই বয়সে যদি এরা এসব বোঝে তাহলে এদের পড়াশোনা হবে কিভাবে? আমাদের সমাজে এভাবে অপ্রাপ্ত সঙ্গমের ফলে জন্ম হয় অপুষ্ট, রুগ্ন শিশু। তাদের দ্বারা ভবিষ্যতে সমাজ ও দেশের কল্যানে কি আশা করা যায় ?

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit