শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ১২:২৫ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
আফগানিস্তানে মসজিদে বোমা হামলায় ৬২ জন নিহত ‘কঠিন চীবর দান’ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী ‘কঠিন চীবর দান’ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতির বাণী Foreign Minister calls upon German businesses to invest in Bangladesh প্রেমিকার সাথে ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ছবি হোয়াটসঅ্যাপে ভাইরাল, মানসন্মান নিয়ে টানাটানি বাবার বঙ্গবন্ধু ফিল্ম সিটিকে পর্যায়ক্রমে বিশ্বমানের ফিল্ম সিটিতে রূপান্তর করতে কাজ করছি শিশু নির্যাতন কিংবা হত্যাকারীদের কঠোর শাস্তি পেতে হবে -প্রধানমন্ত্রী “আমি মায়ের কাছে যাব” এটিই ছিল মৃত্যুর পূর্বে শেখ রাসেলের শেষ কথা -মুক্তিযোদ্ধা মঞ্জু ই-সিগারেট নিষিদ্ধ হওয়া প্রয়োজন -তথ্যমন্ত্রী এ সরকারের আমলে সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষ নিরাপদ -গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী

যশোর এম এসটিপি স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে সীমাহীন অভিযোগ

কলেজের অধ্যক্ষে

যশোর অফিস: অভিযোগের শেষ নেই যশোর তারাপ্রসন্ন মধুসূদন (এমএসটিপি) স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে। তিনি প্রতিষ্ঠানে যোগদান করার পর থেকে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়েছে। রাতারাতি যশোর শহরে দুটি বিলাসহবহুল বাড়ি নির্মানসহ নামে বেনামে লাখ লাখ টাকার মালিক বনে গেছেন। বড় অংকের লগ্নি করেছেন শহরের রেলরোডস্থ টিভিএস কোম্পানীর মোটর সাইকেল ডিলারে। তার একক অধিপত্য বিস্তারের কারণে প্রতিষ্ঠানটি পড়াশোনার পরিবেশ মারাত্বকভাবে বিঘ্ন হচ্ছে।

তারপরও তার বিরুদ্ধে কোন ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। এতে হতাশ হয়ে পড়েছে প্রতিষ্ঠানে অন্যান্য শিক্ষক ও অভিভাবকরা। শিক্ষক ও অভিভাবকদের অভিযোগে জানা যায়, যশোর তারাপ্রসন্ন মধুসূদন (এমএসটিপি) স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ খায়রুল খারুল আনাম এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পরিণত করে ফেলেছেন। শ্রেণী কক্ষের ধারণ ক্ষমতার অধিক ছাত্রী ভর্তি করানো হচ্ছে। তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন ভাবে আদায় করা হচ্ছে টাকা। প্রতিবছরই ঈদে মিলাদুন-নবী পালনের নামে চাঁদা তোলা হয়। কিন্তু আজও পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানে কোন দিন তা পালন করা হয়নি। ওই টাকার কোন হদিন নেই। একইভাবে প্রতিষ্ঠানে বার্ষিক ম্যাগাজিন প্রকাশের টাকা আদায় করা হলেও কোন বছরই ম্যাগাজিন চোখে দেখেনি প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থীরা। প্রতিষ্ঠানের আয় ব্যয় খরচের ভাউচার পাশ করানোর জন্য কোন কমিটি না থাকায় অধ্যক্ষ তার ইচ্ছামত যাবতীয় কাজ সম্পাদন করেন। তার পকেটের কিছু শিক্ষক দিয়ে অডিট করান।

ফলে সীমাহীন অনিয়ম করেও থেকে যাচ্ছেন ধঁরাছোয়ার বাইরে। সুত্র বলছে, ২০১৮ সালে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ তার পক্ষের কতিপয় সুবিধাভোগী লোকদের সমন্বয়ে একটি এডহক কমিটি গঠন করেন। নানা বির্তকের কারণে বোর্ড থেকে ওই কমিটি বাতিল করা হয়। তারপর থেকে আজও এডহক পর্যন্ত কোন কমিটি গঠন করা হয়নি। কতিয়পয় অসাধু শিক্ষকদের নিয়ে লুটপাট করে চলেছেন। সম্প্রতি ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রতিষ্ঠান থেকে প্রাচীন আমলের কিছু গাছ কেটে বিক্রি করে ফেলেছে। এ ক্ষেত্রে উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষে অনুমতি নেয়া হয়নি। ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে প্রতিষ্ঠানে প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। তখন বিভিন্ন সংস্থা ও ব্যক্তির কাছ থেকে শতবার্ষিকী উদযাপনের রশিদ দিয়ে টাকা আদায় করা হয়। কিন্তু ওই অনুষ্ঠানের আয় ব্যয়ের হিসাব না দিয়ে অধ্যক্ষ কয়েক লাখ টাকা অত্বস্বাত করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। দীর্ঘদিন যাবত প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত কার্যকরী পরিষদ না থাকায় অধ্যক্ষ অর্থ সংক্রান্তু কার্যকলাপ তার খুশিমত করে যাচ্ছেন।

সুত্র বলছে, সরকারী বিধিমোতাবেক বছরে দুটি পরীক্ষা নেয়ার নিয়ম রয়েছে। কিন্তু অধ্যক্ষ তা মানেন না। তিনি অতিরিক্ত অর্থ হাসিলের আশায় ৪টি পরীক্ষা নিয়ে থাকেন। প্রতিষ্ঠানে প্রায় ৪ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছে। তাদের কাছ থেকে প্রতি পরীক্ষা বাবদ দেড় শত টাকা ফি নেয়া হয়। সে হিসাবে প্রত্যেক পরীক্ষা বাবদ প্রায় ৬ লাখ টাকা ফি তোলা হয়। তার থেকে সামান্য পরিমান খরচ করা হয়। বাকি টাকা যায় অর্থলোভী অধ্যক্ষের পকেটে। সুত্র বলছে , প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার মান উন্নয়ন না করে অধ্যক্ষ ব্যস্ত আছেন অব কাঠামোর উন্নয়নের জন্য। কোন কমিটি না থাকার সুযোগে নানা উন্নয়নমুলক কাজ দেখিয়ে অধ্যক্ষ লাখ লাখ টাকা বানিজ্য করে যাচ্ছেন। সম্প্রতি অধ্যক্ষ ২য় তলা ফাউন্ডেশনের প্রশাসনিক ভবনের উপর আরও একতলা নির্মাণ করেছেন। ফলে ভবনটি যে কোন সময় দুর্ঘটনার কারন হতে পারে বলে অভিমত ব্যক্ত করেছে প্রতিষ্ঠানের অন্যান্য শিক্ষকেরা। একইভাবে প্রতিষ্ঠানে অবৈধভাবে নির্বাচিত সাবেক এক দাতা সদস্যকে সুবিধা

দিতে অধ্যক্ষ প্রতিষ্ঠানের মাঠ থেকে মাটি কেটে ওই দাতা সদস্যের পুকুর পাড় বাঁধানো সুযোগ করে দিয়েছেন। সুত্র বলছে, স্কুলে শিক্ষার্থী বাড়ানোর জন্য অধ্যক্ষ সর্বদা তৎপর। এটা শিক্ষার্থীর কাছ থেকে বিভিন্নভাবে টাকা আদায় কৌশল মাত্র । এজন্য কলেজ ছাড়াও উনুমুক্ত এবং অহেতুক বিভিন্ন শাখা খোলা হয়েছে। কিন্তু পড়ানোর মত যোগ্য শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়নি। খন্ডকালীন শিক্ষকই শিক্ষার্থীদের ভরসা। ফলে মান সম্মত শিক্ষার পরিবেবেশ মারাত্নকভাবে বিঘ্ন হচ্ছে। ঐতিহ্যবাহী এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিও জৌলুস হারাতে বসেছে। মেধাবী শিক্ষার্থীরা এ প্রতিষ্ঠান থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। যার ফলে প্রতি বছরই ফলাফলের অবনতি হচ্ছে।

সুত্র বলছে, ২০১৯ সালের ৮ই এপ্রিল প্রতিষ্ঠানের সহ প্রধান শিক্ষক অবসরে যান। তারপর থেকে ওই পদটি খালি রয়েছে। একক অধিপত্য বজায় রাখছে অধ্যক্ষ ওই চেয়ারে কাউকে বসাতে চান না। প্রতিবছর অধ্যক্ষের ইনক্রিমেন্ট বাড়লেও আজানা কারণে অন্যান্য শিক্ষকদের
ইনক্রিমেন্ট বন্ধ রয়েছে।

সুত্রবলছে, সরকারী বিধিমোতাবেক যে কোন একটি ব্যাংকে প্রতিষ্ঠানে টাকা জমা রাখার নিয়ম। কিন্তু অধ্যক্ষ ৪/৫ টি ব্যাংকে একাউন্ট খুলে প্রতিষ্ঠানের টাকা জমা রেখেছেন। নিজের ইচ্চামত টাকা তুলে ব্যববহার করেন। যশোর শহরের রেলরোডস্থ টিভিএস কোম্পানীর মোটর সাইকেল ডিলারের সাথে অধ্যক্ষ শেয়ারে ব্যবসা করছেন। এতে প্রতিষ্ঠান ফান্ডের টাকা বিনিয়োগ করছেন বলে বিশ্বস্তসুত্রে জানা গেছে।

সুত্র বলছে, মাত্র ৫/৬ বছর অধ্যক্ষ প্রতিষ্ঠানে যোগদান করেছেন। অল্প সময়ের মধ্যে তার ভাগ্যে চাকা খুলে যায়। যশোর শহরে মুড়লী জোড়া মন্দিরের পাশে বিলাসহবহুল দুইতলা বাড়ি নির্মান করেছেন। এর পাশেই রয়েছে আরও একটি বাড়ি। এছাড়া নামে বেনামে রয়েছে
তার লাখ লাখ টাকার সম্পদ। অভিযোগের ব্যাপারে যশোর তারাপ্রসন্ন মধুসূদন (এমএসটিপি) স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ খায়রুল আনামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এসব অভিযোগের কোন সত্যতা নেই।’ জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এসএম আব্দুল খালেক বলেন, ‘তার কাছে কেউ এ ব্যাপারে অভিযোগ করেনি। বিষয়টি যাচাই বাচাই করে উদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হবে।’

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit