শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:০৮ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মাগুরায় যুবদলের মানববন্ধন রাজস্ব ঘাটতির শীর্ষে বেনাপোল কাস্টমস ওয়ার্ল্ড হিন্দু ফেডারেশন ও বাগীশিক এর উদ্যোগে ঝিগাতলায় গীতা শিক্ষা নিকেতন উদ্বোধন ভারতে পাচার হওয়া ১০ নারীকে ট্রাভেল পারমিটে বেনাপোলে হস্তান্তর মৌলভীবাজার জেলা হিন্দু ছাত্র মহাজোটের ১০১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন আশাশুনিতে দুর্গোৎসব উপলক্ষে মতবিনিময় সভা শিশু-কিশোরদেরকে আগামী দিনের সৈনিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে -মোস্তাফা জব্বার মুক্তিযুদ্ধের ন্যায় গেরিলা যুদ্ধ করে ষড়যন্ত্রকারীদের নিশ্চিহ্ন করতে হবে -ধর্ম প্রতিমন্ত্রী চিলমারীর মাদক সম্রাট খোকা গ্রেফতার নদীকে নিয়ে কিছু করার এখন সুবর্ণ সুযোগ -নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

আশাশুনিতে নেশার জগতে নতুন সংযোজন “ডান্ডি”

নেশার জগতে নতুন নাম ডাণ্ডি

সচ্চিদানন্দদেসদয়,আশাশুনি, : আশাশুনিতে এখন সর্বনাশা মরণ নেশা ডান্ডি সেবনে শতশত শিশুরদের জীবন যাচ্ছে অন্ধকার পথে। সর্বনাশা মাদকের ছোবলে যুবক ও বয়স্কদের পাশাপাশি আসক্ত হয়ে পড়ছেন আশাশুনির শতশত শিশু ও যুবক। এসব শিশু ও যুবকরা মাদকে নির্ভর হয়ে চলে যাচ্ছে অন্ধকার জীবনে। যাদের বেশির ভাগের বয়স ১০ থেকে ২৫ বছরের মধ্যে। দেশে নেশার বাজারে প্রতিনিয়তই যোগ হচ্ছে নতুন নতুন নেশার নাম। যেমন-হেরোইন, মদ, গাঁজা, ফেনসিডিল, ইয়াবার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে পলিথিন আর গামের (টলুইন) সমন্বয়ে তৈরি নতুন নেশা ‘ডান্ডি’সেবীদের সংখ্যা।

জানা গছে, পলিথিন ব্যাগের ভিতরে ‘আইকা’ বা জুতোয় ব্যবহৃত এক ধরনের আঁঠা ব্যাগের ভীতরে ঢুকিয়ে কয়েক বার ঝাঁকি দিলেই প্রস্তত “ডান্ডি”। এর পর শুধু নাক লাগিয়ে ঘ্রাণ নেয়া। কম দামের এ নেশার নাম ডান্ডি। ‘ডান্ডি’ নামে অধিক পরিচিত নেশাটি স্বল্প মূল্যের কারণে শিশু,যুবক ও ছিন্নমূল নারী-পুরুষ সবচেয়ে বেশি আসক্তে ঝুকিয়ে পড়ছে এই নেশায়। এ ডান্ডি নেশা এখন আশাশুনি রাস্তা-ঘাট ও নির্জন এলাকায় চলছে নির্বিঘেœ সেবন। বুধহাটার শশ্মান ঘাট এলাকা,কাছারিবাড়ী,গোলাবেড়,শে^তপুর জোড়া আম তলা এলাকা,বল ফিল্ড,ইঁভাটা সংলগ্ন,বুধহাটা সোনালী সিনেমা হল এলাকা,কুল্যার মোড় এলাকায় এর ব্যাপকতা লাভ করেছে।এসব নেশাখোররা আবার উঠতি মস্তানে পরিনত হচ্ছে কেইকেউ।

আশাশুনির এসব নেশাখোর রা নিজেদের বাঁচিয়ে রাখতে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছে, ময়লা- আবর্জনা থেকে বোতল ভাঙারি খোঁজা, কাঁচা বাজারের কুলি, হোটেলে পানি দেওয়া, হোটেল বয়, ভিক্ষাবৃত্তি, পরিবহনের কাজ, ভাসমান যৌনকর্মী, মাদক বিক্রেতা, মাদক গ্রহণ করা, ধান্দাবাজ, চুরি করা ও পকেট কাটার মত ভয়াবহ অপরাধ মূলক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ছে। ডান্ডি নেশার সাথে
জড়িত অধিকাংশ নাম পরিচয় হীন উঠতি বয়সের যুবক।এদের অধিকাংশ সময় কাটে অলস আড্ডায় নতুবা রাস্তার মোড়ে চায়ের দোকানে।

অনেকেরই নাম আছে কিন্তু পরিচয় নেই। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তাদের সবাই মাদকাসক্ত। বিভিন্ন ধরনের সস্তা নেশায় আসক্ত তারা। এসব নেশাগ্রস্তরা মাদক সেবনের টাকা যোগান দিতে অনেক সময় জড়িয়ে পড়ছে চুরি, ছিনতাই, এমন কি দিনমুজুর কৃষক ও ভিক্ষুককে কিল ঘুষি দিয়ে, টাকা ছিনিয়ে নিয়ে তারা নেশা করছেন । এছাড়া নানা ধরনের আইনি অপরাধে তারা জড়িয়ে যাচ্ছে।

ডান্ডি-সেবন করলে কি হয় এমন প্রশ্নের জবাবে জানা যায়, ডান্ডি সেবনের পর প্রচুর ঘুম আসে এবং ক্ষুধামান্দ্য দেখা যায়। ডান্ডি নেওয়ার ফাঁকে পলিথিনের ভেতরে জুতো কিংবা ফোমের কাজে ব্যবহৃত আঠা রয়েছে। এই আঠা থেকে একধরনের গন্ধ বের হয়। ওই গন্ধ বারবার টানলে নেশা হয়। এতে মাথা ঝিম ঝিম করে। নেশায় মনে হয় আকাশে উড়ছি।গ্রামগঞ্জের ছোট বড় দোকান সহ হার্ডওয়্যারের দোকানে পাওয়া যায় সলিউশন গামের কৌটা ‘ডান্ডি’। জুতো পলিশওয়ালা, মোটরসাইকেল বা সাইকেল মেরামতের দোকানিদের কাছ থেকেও এটা কিনে নেয় তারা। এটা ২০ টাকা বিক্রি হলেও এখন তা ৮০ থেকে ৯০ টাকায় দোকানিরা বিক্রি করছেন বলে জানা গেছে।

মনোরোগ বিশঞ্জের কাজ থেকে জানা যায়, ডেনড্রাইট (ডান্ডি) স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। জুতো তৈরির আঠায় টলুইন নামের একধরনের তরল পদার্থ থাকে, যা বাষ্পীভূত হয়ে নিশ্বাসের সঙ্গে
সেবনকারীদের দেহে ঢোকে। টলুইন সেবনে ক্ষণস্থায়ীভাবে ঝিমুনি, মাথাব্যথা, ক্ষুধা না লাগা ও নিয়ন্ত্রণহীনতার উদ্রেক করে। নিয়মিত এ নেশা গ্রহণে লিভার, কিডনিসহ ব্রেইনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ নিষক্রিয় করে ফেলে ডান্ডিসেবীদের। বেনজিন মিথাইলের প্রভাবে মস্তিস্ক বিকৃতির আশঙ্কা রয়েছে শতভাগ।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit