শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:৫৩ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মাগুরায় যুবদলের মানববন্ধন রাজস্ব ঘাটতির শীর্ষে বেনাপোল কাস্টমস ওয়ার্ল্ড হিন্দু ফেডারেশন ও বাগীশিক এর উদ্যোগে ঝিগাতলায় গীতা শিক্ষা নিকেতন উদ্বোধন ভারতে পাচার হওয়া ১০ নারীকে ট্রাভেল পারমিটে বেনাপোলে হস্তান্তর মৌলভীবাজার জেলা হিন্দু ছাত্র মহাজোটের ১০১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন আশাশুনিতে দুর্গোৎসব উপলক্ষে মতবিনিময় সভা শিশু-কিশোরদেরকে আগামী দিনের সৈনিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে -মোস্তাফা জব্বার মুক্তিযুদ্ধের ন্যায় গেরিলা যুদ্ধ করে ষড়যন্ত্রকারীদের নিশ্চিহ্ন করতে হবে -ধর্ম প্রতিমন্ত্রী চিলমারীর মাদক সম্রাট খোকা গ্রেফতার নদীকে নিয়ে কিছু করার এখন সুবর্ণ সুযোগ -নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

এন আর সি নিয়ে তৃণমূল, সিপিআইএম, কংগ্রেস কেন এতো উদ্বিগ্ন?

তৃণমূল, সিপিআইএম, কংগ্রেস

এই একটা ইস্যুতেই সাপ আর নেউলকে এক মাচানে বসিয়ে দিয়েছে। তাদের কাছে পরিস্থিতি ভয়ংকর, রাতারাতি লক্ষ লক্ষ মানুষ কলমের এক খোঁচায় বিদেশী হয়ে যাবে। এটা তারা কিছুতেই হতে দেবে না। এন আর সি কে সমর্থন না করে কেন তারা এর বিরোধিতা করছে? এন আর সি করতে গিয়ে কাদের স্বার্থে ঘা পড়ছে। কিছুদিন দিন ধরে বাঙ্গালী বাঙ্গালী বলে একটা জিগির উঠেছে, সাথে চলেছে তীব্র হিন্দি বিশেষ করে উত্তর ভারত, রাজস্থান, গুজরাটের মানুষদের নিয়ে একটা ঘৃণার পরিবেশ তৈরি করার প্রয়াস। রাম দেবতা কিনা তার প্রমাণ দিতে গিয়ে অযথা মেঁড়ো, খোঁট্টা, গুজুর ইত্যাদি বিশেষণ প্রয়োগ করে তীব্র প্রাদেশিকতার উস্কানি দেওয়া হচ্ছে ।

যখন জাতীয় নাগরিক পঞ্জির দাবিতে যখন সারাদেশে তোলপাড় এবং সারা দেশে প্রতিটি রাজ্যে এটা লাগু করার জন্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শা সংসদে পরিষ্কার করে বুঝিয়ে বলে দিয়েছেন যে, ন্যাশনাল রেজিস্টার অফ সিটিজেন বা (NRC) লাগু হচ্ছে এবং কেন হচ্ছে তাও তিনি পরিষ্কার ভাষায় বলে দিয়েছেন। একদা যারা বাংলাদেশী অনুপ্রবেশ নিয়ে সংসদে ও রাজ্যে প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছিলেন তারই আজ তার তীব্র বিরোধিতা করে বিধান সভায় সর্বসন্মত হয়ে প্রস্তাব পাশ করছেন। কোন রকম যুক্তি পরিসংখ্যানের তোয়াক্কা না করে এক প্রকার গায়ের জোরে কেন্দ্রীয় সরকারের কাজে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছে। তাতেও ভরকাতে না পেরে পশ্চিমবঙ্গে বাঙ্গালী অবাঙ্গালী অর্থাত একমাত্র হিন্দীভাষী মানুষদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়ানো হচ্ছে। হঠাৎ এই উগ্র বাংগালী জাতীয়তাবাদের কারণ কি? এতে কাদের স্বার্থে আঘাত লাগছে? সেটা কোন পাপ ও ইতিহাসকে আড়াল করার প্রচেষ্টা? পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশী অনুপ্রবেশ নিয়ে প্রথম সরব হয় বামফ্রন্টের প্রথম সারির নেতারা। আর তাদের সময় থেকেই অনুপ্রবেশ তীব্র আকার ধারণ করে ।

অনুপ্রবেশ প্রথম শুরু হয় ১৯৭১ সালে কংগ্রেসের সিদ্ধার্থ রায়ের সময় থেকে, আব্দুল গনিখাঁন চৌধুরী মালদহে তার ভোট ব্যাঙ্ক ঠিক রাখার স্বার্থে বিপুল সংখ্যক বাংলাদেশী মানুষকে পুনর্বাসন দেয় এর পর আর অনুপ্রবেশকারীদের পিছনে ফিরে তাকাতে হয় নি ঝাঁকে ঝাঁকে আসা শুরু হয়। তারপর ১৯৭৭ সালে জ্যোতি বসুর সময় থেকে পশ্চিমবঙ্গ নামক সুমিষ্ট ফলটিকে ভেঙে খাওয়া শুরু হয়। এই কাজে দায়িত্ব দেওয়া হয় খিদিরপুরের মাফিয়া ডন কমরেড কালিমুউদ্দিন সামসকে। কংগ্রেসের সময় যে অনুপ্রবেশ টা ছিল চোরাগোপতা সিপিএমের আমলে যেটা হয়ে দাঁড়ায় বিধি সম্মত খেটে খাওয়া গরিব মানুষের স্বার্থে। এই অনুপ্রবেশ চূড়ান্ত আকার ধারণ করে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত। ১৯৯০ সালের ৬ই মে কেন্দ্রীয় সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কমরেড ইন্দ্রজিত গুপ্ত সংসদে দাঁড়িয়ে দ্বর্থহীন ভাষায় বলেছিলেন যে, “ভারতে ১ কোটির উপর বাংলাদেশী ছড়িয়ে পড়েছে”। তার ঠিক দু বছর পর খেটে খাওয়া মানুষের মহান নেতা কমরেড জ্যোতি বসু ১৯৯২ সালের ১১ই অক্টোবর গণশক্তি পত্রিকায় একটি প্রবন্ধে লিখলেন, ১৯৭৭ থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত বি এস এফ ২লাখ ৩৫ হাজারের বেশী বাংলাদেশীকে পুশব্যাক করে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিয়েছে। ২০০৪ সালে কংগ্রেসের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রকাশ জয়শোয়ল লোক সভায় প্রশ্ন উত্তর পর্বে জানালেন ভারতে মোট ১ কোটি ২০ লক্ষ ৫৩ হাজার ৯৫০ জন বাংলাদেশী অনুপ্রবেশ কারী আছে।

আর আমাদের মহান নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশী অনুপ্রবেশ নিয়ে সংসদ লন্ডভন্ড ও অচল করে দেওয়ার টাটকা উগ্রমূর্তি এখনও আমাদের চোখের সামনে ভাসছে। তিনি সংসদে দাঁড়িয়ে সদর্পে বলেছিলেন বাংলাদেশী না তারালে ও ভোটার তালিকা থেকে তাদের নাম বাদ না দিলে তিনি নির্বাচন হতে দেবেন না। সেদিন সংসদে স্পিকারের উদ্দেশ্য তিনি ভোটার লিস্টের কাগজ ছুড়ে মেরেছিলেন। আজ এই ক বছর পর সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তার দল তৃণমূল কংগ্রেস বাংলাদেশী অনুপ্রবেশকারীদের নিয়ে এই পশ্চিমবঙ্গকে পশ্চিম বাংলাদেশ করবার প্যান বাংলাদেশী পরিকল্পনায় মদত দিচ্ছেন। এই প্যান বাংলাদেশ প্রেমিরাই হঠাৎ করে পশ্চিমবঙ্গে বাঙ্গালী ও হিন্দীভাষী বিশেষ করে হিন্দু মারোয়ারি ও বিহারীদের মারপিট লাগাতে চাইছে। পশ্চিমবঙ্গে বাংলাভাষী ও হিন্দীভাষী মানুষ ছাড়া অন্য কোন ভাষাভাষীর মানুষ নেই না কি? যদি থাকে তাহলে তাদের চিহ্নিত করা হচ্ছেনা কেন? তারা রাম ভক্ত নয় বলে কি তারা আলোচনার বাইরে থাকবে? পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশী উর্দুভাষী রাজাকার বাহিনীর অনুপ্রবেশ ঘটে ১৯৭১ সালের পর থেকে যখন বাঙলাদেশ এদের দেশে রাখতে অস্বীকার করে। তারপর থেকে ক্ষেপে ক্ষেপে পশ্চিমবঙ্গে এদের ডাম্পিং করা শুরু করেন কমরেড জ্যোতি বসু। কলিউদ্দিন শামসের নেতৃত্বে সর্বহারার মহান নেতা জ্যোতি বসুর পৃষ্ঠপোষকতায় লাখ লাখ রাজাকার সপরিবারে ফিরে আসে কলকাতায় ও শহরতলীর নির্দিষ্ট কতকগুলি পকেটে। এদের প্রায় প্রত্যেকেই হিন্দু গণহত্যা ও ধর্ষণের কাজে যুক্ত ছিল।

তাদের বাপ ঠাকুরদা ১৯৪৬ সালের গ্রেট ক্যালকাটা কিলিংএর কাজেও যুক্ত ছিল। এদের বামফ্রন্ট তথা সিপিএম যেভাবে নি:শব্দে পুনর্বাসন দিয়েছিল তা এককথায় নজির বিহীন। পরবর্তীকালে ঠিক একই কায়দায় নেপালের উগ্র মাওবাদীদের পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন শহর ও শহরতলিতে আশ্রয় ও কাজের ব্যবস্থা করে দিয়ে ছিল এই সিপিএম। বিশেষ করে রাতে পাড়ায় পাড়ায় নাইট গার্ডের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। সবচেয়ে বড় কথা এই লক্ষ লক্ষ রাজাকারদের কলকাতা ও শহরতলি অঞ্চলগুলোতে পুনর্বাসন দেওয়া নিয়ে আজ পর্যন্ত কেউ মুখ খোলেনি বা সেটা নিয়ে কোন সার্ভেও হয়নি। সেই সময় কেউ সাহসও পায়নি মুখ খোলার। ১৯৭১ সালে সিদ্ধার্থ শঙ্কর রায়ের আমলে ইন্দিরা কংগ্রেসের সময়ে যে বিষবৃক্ষ রোপন করা হয়েছিল তা ১৯৭৭ সালে জ্যোতি বসুর আশীর্বাদে পাকাপাকি ভাবে তা বাগিচায় পরিনত হতে বিশেষ সময় নেয় নি।

এই উর্দু ভাষী রাজাকার জামাতিদের না বাংলাদেশ না পাকিস্তানে ফেরার অবস্থা ছিল, তাদের জন্য মাথা গোঁজার ব্যবস্থা করে দিলেন জ্যোতি বসু। আর সেই সময় থেকেই কলকাতার ফুটপাথগুলি জবর দখল করা শুরু হয়। এরা খোদ কলকাতার রাজাবাজার, কলুটোলা, পার্ক সার্কাস , বেকবাগান, এবং খিদিরপুর ও মোমিনপুর নামক স্থানগুলিতে নিজ জাতভাই দের সঙ্গে থাকতে শুরু করে এবং একদিন কলকাতা ও শহরতলির বাসিন্দা হয়ে যায়। এ ছাড়াও এরা মূলত উত্তর শহরতলীর চটকল অধ্যুষিত স্থানে, যেমন আলমবাজার, কামারহাটি, টিটাগড়, কাঁকিনাড়া, নৈহাটির হাওড়া, রিষড়া প্রভৃতি চটকল গুলিতে শ্রমিক হিসাবে কাজ করতে শুরু করে। এবং অনায়াসেই উত্তর বিহার, পশ্চিম উত্তরপ্রদেশ থেকে হিন্দীভাষী দের সঙ্গে মিশে যায়।কালক্রমে এরা আলাদা আলাদা বসতি বা মহল্লা তৈরী করে। উত্তর প্রদেশ , বিহার এবং অন্ধ্রের হিন্দু পুরুষরা অবসর নিয়ে বেশীরভাগই নিজেদের পুরনো স্থানে ফিরে যায় এবং জমি জিরেত বা গরু, মোষ কিনে নতুন ভাবে জীবিকা বেছে নেয় । এদের পরের প্রজন্মও আর পশ্চিমবঙ্গে ফিরে আসেনি । কিন্তু দেশের আর কোথাও যাওয়ার যায়গা ছিল না বলে এই বেশীরভাগ উর্দুভাষী মুসলমান মানুষ বংশানুক্রমে উল্লেখিত যায়গাগুলিতে থাকতে আরম্ভ করে এবং পরে বামফ্রন্ট বা কমিউনিস্ট মার্ক্সবাদী সরকারের বদান্যতায় রেশন কার্ড, ভোটার কার্ড ও নাগরিকত্ব , রেশনকার্ড উচ্চ মূল্যে হাতিয়ে নিয়ে পাকাপাকি ভাবে ভারতের নাগরিক বনে যায়। এদের মধ্যেই আজ হাতে অস্ত্র নিয়ে মহরম পালনের উগ্রতা বেশী এবং সাধারণভাবে অপরাধীর সংখ্যাও বেশি।

গরিষ্ঠাংশ আজো ভীষণ ভাবে পাকিস্তান সমর্থক । এই উর্দুভাষী বিহারী মুসলমানরা ৯০এর দশকে বাংগালীর সর্বনাশের মহান পিতা জ্যোতিবসুর আমলে কলকাতা প্রেস ক্লাবের সামনে একটা সভা করেছিল তারা সংখ্যায় ছিল প্রায় ৬০০০এর উপর । সেই সভার নেতৃত্ত্ব দিয়েছিল সেই সময় খিদিরপুরে আইপিএস অফিসার বিনোদ মেহেতা হত্যার অন্যতম নায়ক আসামী জ্যোতি বসুর অন্যতম ডানহাত মাফিয়া ডন কলিমুদ্দিন সামস । তাদের প্রধান দাবি ছিল ভারতের নাগরিকত্ব দিতে হবে , পুনর্বাসন দিতে হবে । সমস্ত সংবাদপত্রে ছবিসহ সেই সংবাদ বেরিয়েও ছিল । তারপর সব ধামাচাপা পড়ে যায় । ওই একই সময়ে খিদিরপুর ডকে এক জাহাজ ভর্তি উরদু কেতাব এসেছিল । পরে সেগুল কাস্টম বাজেয়াপ্ত করে । কলিমুদ্দিনের ব্যবস্হা অনুযায়ী খিদিরপুর , মমিনপুর , মেটেবুরুজ , সেলিমপুর , তিলজলা , তপসিয়া , ট্যাংরা , রাজাবাজার প্রভৃতি অঞ্চলে বাংলাদেশ থেকে আসা উর্দুভাষী মুনিমদের সংখ্যা বাড়তে থাকে । ভাঙ্গা টিনালোহা থেকে ধাপায় সব রকম ইতরশ্রেনীর কাজে এরা লিপ্ত হয়ে পড়ে । কলকাতা ময়দান মার্কেট প্রথমে ত্রিপল দিয়ে ঘিরে ফেলা হয় , তারপর আস্তে আস্তে মধ্য কলকাতার সমস্ত ফুটপাথ পার্ক স্ট্রিট থেকে নিউমার্কেট হয়ে লালবাজার পর্যন্ত একদিকে টিপু সুলতান মসজিদ অপরদিকে নাখোদা মসজিদকে কেন্দ্র করে বাংলার রাজধানী কোলকাতার বুকে বিশাল জিহাদী সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করে ফেলে । এই প্রক্রিয়া এখন গোটা পশ্চিমবঙ্গ নিয়ে চলছে । শত শত জামাত, আই এস আই চর সারা ভারতে ছড়িয়ে পড়ে নাশকতা চালাচ্ছে। অথএব তৃণমূল, সিপিআইএম, কংগ্রেস তো এক মাঁচানে এসে বসবেই। এখানেই তো তাদের অভিন্ন কর্মসূচী। এন আর সি নিয়ে কেন্দ্রের বিরোধিতা। বন্ধেমাতরম্।। ভারত মাতা কি জয়

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit