শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ১২:২৯ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
আফগানিস্তানে মসজিদে বোমা হামলায় ৬২ জন নিহত ‘কঠিন চীবর দান’ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী ‘কঠিন চীবর দান’ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতির বাণী Foreign Minister calls upon German businesses to invest in Bangladesh প্রেমিকার সাথে ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ছবি হোয়াটসঅ্যাপে ভাইরাল, মানসন্মান নিয়ে টানাটানি বাবার বঙ্গবন্ধু ফিল্ম সিটিকে পর্যায়ক্রমে বিশ্বমানের ফিল্ম সিটিতে রূপান্তর করতে কাজ করছি শিশু নির্যাতন কিংবা হত্যাকারীদের কঠোর শাস্তি পেতে হবে -প্রধানমন্ত্রী “আমি মায়ের কাছে যাব” এটিই ছিল মৃত্যুর পূর্বে শেখ রাসেলের শেষ কথা -মুক্তিযোদ্ধা মঞ্জু ই-সিগারেট নিষিদ্ধ হওয়া প্রয়োজন -তথ্যমন্ত্রী এ সরকারের আমলে সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষ নিরাপদ -গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী

বিজ্ঞান, পুরাণ ও যোগ-বিজ্ঞানের আলোকে একাদশীর উপবাস

একাদশীর উপবাস

একাদশী তিথিতে উপবাস থাকার বৈজ্ঞানিক যুক্তিঃ অমাবস্যা ও পূর্ণিমা তিথির কাছাকাছির দিনগুলিতে চাঁদ পৃথিবীর কিছুটা নিকটে আসার ফলে পৃথিবীর ওপরে চাঁদের আকর্ষণ বেড়ে যায়। তাই ওই দিনগুলোতে লক্ষ্য করা যায় দেহের জলীয় ও গ্যাসীয় পদার্থগুলো উপরের দিকে উঠে বুক ও মাথায় একটা অস্বস্থিকর অবস্থার সৃষ্টি করে। যাদের হাত ও পায়ে ব্যাতের ব্যাথা আছে তা বেড়ে যায়।

তাছাড়া মানুষের হীন বৃত্তিগুলির প্রাবাল্যও ওই সময়ে বেড়ে যায়। ফলে সমাজের অপরাধের মাত্রাও বেড়ে যায়। তাই ঐ সময়ে পাকস্থলীতে আহার না পড়লে দেহের জলীয় ও গ্যাসীয় পদার্থগুলো উপরে উঠে বুক ও মাথায় অস্বস্থিকর অবস্থার সৃষ্টি করতে পারে না। বাতের প্রকোপ নিয়ন্ত্রিত থাকে আর হীন বৃত্তির প্রকোপও কম হয়।

আবার উদ্ধৃত্ত শুক্র মনের হীন বৃত্তিগুলিকে জাগিয়ে দেয়। বিধিমত উপবাস করলে শুক্র উদ্ধৃত্ত হতে পারে না। ফলে মনের হীন বৃত্তিগুলি অবদমিত থাকে আর মন উচ্চতর বৃত্তির দ্বারা পরিচালিত হয়।

উপবাসের ফলে শরীরের অনাবশ্যক দূষিত পদার্থ তথা রোগ জীবাণূও নষ্ট হয়ে যায়। আর ভুক্ত আহার হজমের জন্য শরীরের যে শক্তিটা ব্যয়িত হয়, সেটাকে অন্য কাজে লাগানো যেতে পারে।

তবে সবচেয়ে বড় কথা হলো মানুষ অন্ন প্রধান নয়, সে মন প্রধান জীব। উপবাসের দ্বারা খাবার থাকা সত্ত্বেও মানসিক সংকল্পের দ্বারা সে না খেয়ে থেকে এটা সে প্রমাণ করতে পারে। ফলে তার মানসিক শক্তি প্রচন্ড ভাবে বেড়ে যায়। তাছাড়া উপবাসের সময়টা সাধনার জন্যে প্রকৃষ্ট সময়।

পদ্মপুরাণে উল্লেখিত শাস্ত্রীয় ব্যাখ্যাঃ পরমেশ্বর ব্রহ্ম, বিশ্ব সৃষ্টির প্রারম্ভে পৃথিবীতে সৃষ্ট মানুষের পাপের প্রতীক হিসেবে বিভিন্ন প্রকার পাপের সমন্বয়ে একটি ‘পাপপুরুষ’ নির্মান করেন। তারপর পাপিষ্ঠ মানুষদের ঠিকানা নরক দর্শনে যান এবং পাপের ফল হিসেবে শাস্তি স্বরূপ পাপি মানুষদের আর্ত চিৎকার শুনতে পান এবং ভাবেন মানুষ ভুলবশত কোনো পাপ করলেও অনুতপ্ত হলে সেই পাপের শাস্তি যাতে তারা না পায়, সেজন্য কোনো একটি উপায় থাকা উচিত; তারপর তিনি ভুলবশত করা পাপের শাস্তি নিরসনে একাদশী দেবী নামে এক দেবীর জন্ম দেন, যে দেবী মাসের নির্দিষ্ট দুটি দিনে, তার শরণে আসা সমস্ত পাপীদের পাপ শোষণ করে তাদেরকে ভালো থাকার পথ দেখাবে।

এই বিষয়টি জানার পর পাপপুরুষ পরমেশ্বরের কাছে গিয়ে বলে, আপনি একাদশী দেবীকে দিয়ে যদি সমস্ত মানুষের পাপ শোষণের ব্যবস্থা করেন ই তাহলে আমার আর দরকার কী ? আমি থাকবো কোথায় ? তাছাড়া দেবী একাদশী মানুষের পাপ মোচন করতে গিয়ে পাপের কারণ এই আমাকে কী ক্ষমা করবে? আমাকেও তো ধ্বংস করে দেবে। তার চেয়ে আপনই আমাকে এখনই ধ্বংস করে দিন। পরমেশ্বর বলে, মানুষ পাপ করে ভ্রান্তিতে পড়ে, তাদের সেই পাপ মোচনের ব্যবস্থা থাকা উচিত, তাই আমি একাদশীকে সৃষ্টি করেছি, যারা একাদশী তিথিতে একাদশী দেবীর স্মরণ নেবে শুধু তারাই তাদের পাপ থেকে মুক্ত হবে। এই একাদশীর দিন মানুষ ভক্ষণযোগ্য অন্য সব কিছু খেলেও পাঁচ প্রকার রবিশস্য খাবে না, তুমি সেই একদশী তিথিতে সেই পাঁচপ্রকার রবিশস্যের মধ্যে লুকাবে, নিষিদ্ধদ্রব্যের মধ্যে অবস্থান নেওয়ায় একাদশী তোমায় কিছু বলবে না, এইভাবে পৃথিবীতে তোমার অস্তিত্ব তুমি রক্ষা করতে পারবে।

পৃথিবীতে মানুষ পাপও করবে গোপনে বা লুকিয়ে লুকিয়ে, তাই একাদশী তিথিতে পঞ্চশস্যের মধ্যে তোমারও লুকিয়ে থাকতে আশা করি তোমার কোনো আপত্তি নেই বা অসুবিধা হবে না।

উপরে উল্লেখ করেছি্ একাদশী তিথিতে পাঁচ প্রকার রবিশস্যের মধ্যে রোগ ব্যাধি জমা হয়, তাই সেগুলো খাওয়া নিষেধ। কিন্তু এই গল্পে আবার পেলাম পাঁচ প্রকার রবিশস্যের মধ্যে পাপ লুকিয়ে থাকার কথা। আসলে রোগ ব্যাধি ও পাপ আলাদা কিছু নয়। যা মানুষকে কষ্ট দেয়, শাস্তি দেয়- তাই পাপ। তো রোগ ব্যাধি হলেও তো মানুষ কষ্টই পায়, সেই হিসেবেই এটাকে বলা হয়েছে পাপ। কিন্তু বিজ্ঞানের দৃষ্টিতে, একাদশী তিথিতে পঞ্চশস্যের ভেতরে রোগ ব্যাধি লুকিয়ে থাকে, এটাকে নিছক গাল গল্প মনে হলেও লেখাটি পড়া শেষ হলে বুঝতে পারবেন আসলে রোগ-ব্যাধিটা কোথায় এবং দেবী নামের একাদশী তিথিটি কিভাবে মানুষকে রোগমুক্ত রেখে পাপস্বরূপ যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দেয় বা মুক্ত রাখে ?

যা হোক, উপবাসের সময় কিন্তু ফল বা মূল জাতীয় খাবার এবং জল, খুব প্রয়োজন হলে খাওয়ার বিধান রয়েছে।

যোগ-বিজ্ঞানের আলোকে একাদশী উপবাসের ব্যাখ্যাঃ
উপ-বস-ঘঞ প্রত্যয়ে উপবাস এর প্রকৃত অর্থ ‘সামীপ্য বাস’ অর্থাৎ ভগবৎ সমীপে বাস করার নামই উপবাস। পাঁচটি কর্মেন্দ্রিয় ও পাঁচটি জ্ঞানেন্দ্রিয় এই দশ ইন্দ্রিয় ও মন স্থির করে ভগবৎ সমীপে উপবেশন করাই একাদশী উপবাসের প্রকৃত অর্থ। কেবল অনাহার বা অভুক্ত অবস্থায় ধর্মকর্মাদি করলেই এই ইন্দ্রিয় স্থির করা সম্ভব নয়। শুদ্ধ খাবার ও যোগাভ্যাসের মাধ্যমে ইন্দ্রিয়াদির স্থিরত্ব লাভ করতে পারলেই ইন্দ্রিয় সংযম স্থায়ী হয়। তখন আর বাইরের অনিত্য সুখ-ভোগের কামনা বাসনা ও মায়া মোহে চিত্তকে অভিভূত করতে পারে না। সেই অবস্থায় সাধকের ক্ষুধা তৃষ্ণা আপনা আপনি হ্রাস পেতে থাকে। সাধক সর্ব্বদা আত্মানন্দে বিভোর থাকাতে স্থিত প্রজ্ঞারূপ পারণ বা পূর্ণভাবে “তৎপরায়ন” অবস্থায় বাইরের কর্ম্মানুষ্ঠান করলেও সাধক কর্ম্মে আবদ্ধ বা ভবিষ্যত প্রারদ্ধেরও সৃষ্টি হতে হয় না।

একাদশ রুদ্র হলেন মানব শরীরের দশ চালিকা শক্তি এবং এক আত্মা। বৃহদারন্যক উপনিষদে একাদশ রুদ্র হলেনঃ প্রাণ, অপান, উদান, ব্যান, সমান, নাগ, কুর্ম্ম, কৃকল, দেবদত্ত, ধনঞ্জয় ও আত্মা।

মানব দেহের দশ চালিকা শক্তি কি ও নিয়ন্ত্রণের উপায়ঃ প্রাণ বায়ু হৃদয়ে অবস্থান করে না‌সিকার মাধ্য‌মে নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস প্রবা‌হিত হয়। এই বায়ু অন্যান্য বায়ুর ক্রিয়াকে পরিচালিত করে তাই এই বায়ুকে প্রধান বায়ু বলা হয়। আর অপান বায়ু গুহ্যে অবস্থান করে মলাশয় দি‌য়ে মল নিষ্ক্রমণ ক‌রে। এই দুই বায়ু নিয়ন্ত্রণ করার কৌশল একমাত্র প্রাণায়াম।

উদান বায়ুর অবস্থান কণ্ঠে। কন্ঠনালী দি‌য়ে প্রবা‌হিত হয় এবং যার অব‌রো‌ধের ফ‌লে শ্বাসরোধ হয়, তা‌কে উদান বায়ু বলে। আর ব্যান বায়ু সর্ব শরীরে অবস্থান করে। এদের নিয়ন্ত্রণ করার কৌশল মহামুদ্রা।

সমান বায়ুর অবস্থান নাভিমূলে। উদ‌রে খাদ্যদ্রব্য সং‌যোজন করে এবং কখনও কখনও শব্দ ক‌রে ঢেকুর তোলায় তা‌কে সমান বায়ু বলে। এই বায়ু স্থির করার উপায় নাভি ক্রিয়া।

নাগ বায়ুঃ যা চক্ষু, মুখ ইত্যা‌দি‌কে বিস্তার কর‌তে সাহায্য ক‌রে, তা‌কে ব‌লে নাগ বায়ু। মুদ্রা ও প্রাণায়ামের দ্বারা এই বায়ু স্থির করা যায়।

কৃকর বায়ু– যে বায়ু ক্ষুধা বৃ‌দ্ধি ক‌রে, তা‌কে ব‌লে কৃকর বায়ু। খেচরী মুদ্রা ও প্রাণায়ামের দ্বারা এই বায়ুকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

কূর্ম বায়ু– যে বায়ু সং‌কোচ‌নে সাহায্য ক‌রে, তা‌কে ব‌লে কূর্ম বায়ু। এই বায়ুকেও নিয়ন্ত্রণ করার উপায় প্রাণায়াম।

দেবদত্ত বায়ু– যে বায়ু হাই তোলার মাধ্য‌মে ক্লা‌ন্তি দূরীকর‌ণে সাহায্য ক‌রে, তা‌কে ব‌লে দেবদত্ত বায়ু। কিছু আসন ও প্রাণায়ামের দ্বারা এই বায়ুকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

ধনঞ্জয় বায়ু– যে বায়ু পু‌ষ্টি সাধ‌নে সাহায্য ক‌রে, তা‌কে ব‌লে ধনঞ্জয় বায়ু। যোগ সাধন ও প্রাণায়ামের দ্বারা একে স্থির করা যায়।

মানব দেহের দশ চালিকা শক্তি ও মন অর্থাৎ একাদশ রুদ্রের কথা ভাগবতের ৩/৬/৯ উল্লেখিত রয়েছে।

যোগী পিকেবি প্রকাশ, পরিচালক, আনন্দম্‌ ইনস্টিটিউট অব যোগ এণ্ড যৌগিক হস্‌পিটাল। মেইলঃ yogabangla@gmail.com

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit