শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:১০ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মাগুরায় যুবদলের মানববন্ধন রাজস্ব ঘাটতির শীর্ষে বেনাপোল কাস্টমস ওয়ার্ল্ড হিন্দু ফেডারেশন ও বাগীশিক এর উদ্যোগে ঝিগাতলায় গীতা শিক্ষা নিকেতন উদ্বোধন ভারতে পাচার হওয়া ১০ নারীকে ট্রাভেল পারমিটে বেনাপোলে হস্তান্তর মৌলভীবাজার জেলা হিন্দু ছাত্র মহাজোটের ১০১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন আশাশুনিতে দুর্গোৎসব উপলক্ষে মতবিনিময় সভা শিশু-কিশোরদেরকে আগামী দিনের সৈনিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে -মোস্তাফা জব্বার মুক্তিযুদ্ধের ন্যায় গেরিলা যুদ্ধ করে ষড়যন্ত্রকারীদের নিশ্চিহ্ন করতে হবে -ধর্ম প্রতিমন্ত্রী চিলমারীর মাদক সম্রাট খোকা গ্রেফতার নদীকে নিয়ে কিছু করার এখন সুবর্ণ সুযোগ -নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক চাপ মোকাবিলায় মিয়ানমারের পাশে চীন

রোহিঙ্গা সংকট ইস্যুতে আন্তর্জাতিক চাপ মোকাবিলায় মিয়ানমারের পাশে চীন

রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা সংকট ইস্যুতে আন্তর্জাতিক চাপ মোকাবিলায় মিয়ানমারের পাশে দাঁড়ানোর অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেছে চীন। গতকাল বৃহস্পতিবার মিয়ানমারের রাজধানী নেপিদোতে মিয়ানমারের কমান্ডার ইন চিফ বা সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইংয়ের সঙ্গে এক সাক্ষাতে এ কথা জানান সফররত চীনা দূত চেন হাই।

চীনা দূত ও মিয়ানমারের সেনাপ্রধানের মধ্যে বৈঠকের পর এ বিষয়ে এক যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করেছে মিয়ানমারের সেনাপ্রধানের কার্যালয়। গণমাধ্যম ইরাওয়াদির প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, বৈঠকে চীনের রাষ্ট্রদূত তিনটি বিষয়ের ওপর জোর দিয়েছেন। বিষয়গুলো হলো— রোহিঙ্গা ও মানবাধিকার বিষয়ে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপের বিরুদ্ধে চীনের অবস্থান; মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলীয় শান রাজ্য ও মান্দালায় অঞ্চলের গ্যারিসন শহরে সহিংস হামলা এবং জাতিগত বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে সম্ভাব্য শান্তি আলোচনা ও মিয়ানমার সরকারের গৃহীত শান্তি প্রক্রিয়ায় চীনের সহায়তা অব্যাহত রাখা।

বাংলাদেশে বর্তমানে ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়ে আছেন। তাদের বেশির ভাগই মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীগুলোর বর্বর অভিযান থেকে জীবন বাঁচাতে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।

রাখাইন রাজ্যে প্রত্যাবাসনের আগে যাচাইয়ের জন্য ২৯ জুলাই ছয় হাজার পরিবারের ২৫ হাজার রোহিঙ্গার নতুন একটি তালিকা মিয়ানমারের কাছে হস্তান্তর করে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের কাছ থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ৫৫ হাজার রোহিঙ্গার তালিকা পেয়েছে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ।

এদিকে প্রত্যাবাসন বিষয়ক যৌথ ওয়ার্কিং কমিটির মাধ্যমে মিয়ানমার সরকার বাংলাদেশ সরকারের কাছে তিন হাজার ৪৫০ রোহিঙ্গা শরণার্থীর নাম দিয়েছে, যারা মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে ফেরার ছাড়পত্র পেয়েছেন।

মিয়ানমারের এ সংযুক্তিকে ‘ইতিবাচক পদক্ষেপ’ হিসেবে দেখছে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা। কিন্তু স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসনের এ প্রস্তাব কোনো রোহিঙ্গাকে গ্রহণ করতে দেখা যায়নি।

স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসনে রোহিঙ্গারা রাজি কি না তা যাচাইয়ে বাংলাদেশি কর্মকর্তাদের সাথে ইউএনএইচসিআর জরিপ চালিয়েছে উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, ‘এখন পর্যন্ত, যাদের সাক্ষাতকার নেওয়া হয়েছে তাদের মধ্যে কেউ এ সময়ে প্রত্যাবাসনে সম্মতির ইঙ্গিত দেননি।’

বাংলাদেশ সরকারের ব্যাপক প্রস্তুতির পরও রোহিঙ্গাদের অনিচ্ছার কারণে গতকাল বৃহস্পতিবার আবারও আটকে যায় প্রত্যাবাসন শুরুর কার্যক্রম। শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের (আরআরআরসি) কমিশনার মোহাম্মদ আবুল কালাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘রোহিঙ্গারা রাজি না হওয়ায় আজ (বৃহস্পতিবার) প্রত্যাবাসন সম্ভব হচ্ছে না।’

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার ২০১৭ সালের ২৩ নভেম্বর চুক্তি সই করে। পরে দুই দেশ ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারি মাঠপর্যায়ে কার্যক্রম এগিয়ে নিতে ‘ফিজিক্যাল অ্যারেঞ্জমেন্ট’ নামে চুক্তি করে।

‘ফিজিক্যাল অ্যারেঞ্জমেন্ট’ অনুযায়ী, প্রত্যাবাসন শুরুর দুই বছরের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা ছিল।

রোহিঙ্গাদের প্রথম দলের ফেরার কথা ছিল গত বছরের ১৫ নভেম্বর। কিন্তু রাখাইনে অনুকূল পরিবেশ না থাকায় রোহিঙ্গারা ফিরতে রাজি না হওয়ায় এ কার্যক্রম স্থগিত করা হয়।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit