সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ১১:১০ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :

এক মাসে পেরিয়ে গেলেও বেনাপোল চেকপোস্টে চালু হয়নি এনবিআর চেয়ারম্যানের উদ্বোধন করা ট্রলি

বেনাপোল চেকপোস্টে চালু হয়নি ট্রলি, এনবিআর চেয়ারম্যানের উদ্বোধন করা ট্রলি, এনবিআর চেয়ারম্যানের উদ্বোধন, চালু করা হয়নি ট্রলি, পাসপোর্টযাত্রীদের ভোগান্তি দূর করার জন্য ট্রলি উদ্বোধন, পাসপোর্টযাত্রীদের ভোগান্তি, ভোগান্তি দূর করার জন্য ট্রলি উদ্বোধন, আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল ভবন, প্যাসেঞ্জার চার্জস্লিপ

এক মাসে পেরিয়ে গেলেও বেনাপোল চেকপোস্টে চালু হয়নি এনবিআর চেয়ারম্যানের উদ্বোধন করা ট্রলি
এম,এ,জলিলঃ বিশেষ প্রতিনিধিঃ বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্টে  গত ৭ জুলাই এনবিআর চেয়ারম্যান পাসপোর্টযাত্রীদের ভোগান্তি দূর করার জন্য ট্রলি উদ্বোধন করলেও এখনও পর্যন্ত তা কার্যকর হয়নি। দীর্ঘ ১ মাস পেরিয়ে গেলেও এনবিআর চেয়ারম্যানের ট্রলি উদ্বোধনের পর তা চালু না করে বেনাপোল বন্দর কর্তৃপক্ষ চেয়ারম্যানকে উপেক্ষা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
সূত্র জানায়, গত এক মাস আগে এনবিআর চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বেনাপোল বন্দরের আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল ভবনে যাত্রীদের ল্যাগেজ বহনের সুবিধার্থে ট্রলি চালুর উদ্বোধন করেন। কিন্তু তিনি চলে যাওয়ার পর কোন এক অদৃশ্য কারনে সে ট্রলি চালু হয়নি। ট্রলি গুলো বন্দর কর্তৃপক্ষের প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল ভবনের দ্বিতীয় তলায় মজুদ রাখা হয়েছে। কিন্তু পাসপোর্ট যাত্রীদের কাছে ট্রলি সুবিধা দেওয়ার কথা বলে ঠিকই আদায়, করা হচ্ছে ৪৫ টাকা ট্র্যাক্স। রশিদে লেখা আছে ৪১.৭৫ টাকা। কিন্তু প্যাসেঞ্জার চার্জস্লিপ নামে আদায় হচ্ছে ৪৫ টাকা। যা বর্হিবিশ্বের কোথাও এমনটি নাই বলে দাবি করে সূত্রটি।
বাংলাদেশের ঢাকার পাসপোর্টযাত্রী সুমি বেগম জানান, আমাদের নিকট থেকে কি কারনে এই ৪৫ টাকা নিচ্ছে তা আমাদের বোধগম্য নয়। নেই বসার স্থান, রেষ্টুরেন্ট, শুধু রয়েছে অপরিচ্ছন্ন টয়লেট। রোদ বৃষ্টিতে দাঁড়িয়ে থাকতে হয় ঘন্টার পর ঘন্টা। আমাদের ভারত থেকে আসার পথে ট্রলি দিলে আমরা আমাদের ল্যাগেজ নিয়ে নিজেদের দায়িত্বে ইমিগ্রেশন কাস্টমসে প্রবেশ করতে পারি। এতে আমাদের ল্যাগেজ ঝুকিতে থাকে না। অপরদিকে এ পথে আমরা ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করলে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ঝামেলায় পড়তে হয়।  যশোরের পাসপোর্ট যাত্রী সোহরাব হোসেন বলেন, (পাসপোর্ট নং- বি ওয়াই ০৭৯৭৬২৭) ভারত থেকে তার অসুস্থ্য মাকে নিয়ে আসার সময় ট্রলি বা হুইল চেয়ারের জন্য অনুরোধ করলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আমাকে কোন ব্যবস্থা করে দেই নাই। আমি খুব কষ্টে মাকে নিয়ে নোম্যান্সল্যান্ড থেকে বাস স্টান্ড পর্যন্ত আসি।
এ ব্যাপারে বেনাপোল বন্দরের উপ- পরিচালক মামুন কবির তরফদারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার কাছে কাস্টমসের ১০০ ট্রলি দেওয়ার কথা । কিন্তু দিয়েছে মাত্র ৫০টি । ঈদের পর ট্রলি গুলোর নাম্বারিং করে পূর্ন মাত্রায় চালু করব বলে আশা করছি। এবং ট্রলি গুলো যাতে হারিয়ে না যায় সে ব্যাপারেও একজন নির্দিষ্ট লোক নিয়োগ দিতে হবে।যাতে ট্রলি গুলো সুন্দর থাকে বা যেন নষ্ট না হয়। তবে যত দ্রত সম্ভব পাসপোর্ট যাত্রীদের যাতে উপকার হয় সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit