সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ১০:০৮ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
বিলুপ্ত ছিটমহল দাসিয়ারছড়া এখন আলোকিত জনপদ কালীগঞ্জ উপজেলা আইনশৃংখলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্টিত ঝিনাইদহ কালীগঞ্জে ২০১৯-২০ অর্থ বছরে রাজস্ব খাতের আওতায় মাছের পোনা অবমুক্ত ফরিদপুরে ডেঙ্গু রোগে ইমামের মৃত্যু বেনাপোল পৌর বিএনপি সভাপতি নাজিম নারীসহ গ্রেফতার বেগম জিয়ার দুর্নীতির গন্ধ ছড়াবে এবার বিদেশেও -তথ্যমন্ত্রী জনগণের চাহিদা পূরণে আন্তরিক হয়ে কাজ করুন -বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী একুশে আগষ্ট গ্রেনেড হামলার দন্ডপ্রাপ্ত আসামীদের রায় কার্যকরের দাবীতে মানববন্ধন সালথায় মাছের পোনা অবমুক্তকরণ মন্ত্রিপরিষদে সরকারি ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কোম্পানি “স্টার্টআপ বাংলাদেশ লিমিটেড” এর অনুমোদন

মেয়ে বা মহিলাকে উত্যক্ত করলে তার জীবন আমি উত্তপ্ত করে দেবো

নড়াইলের পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি■: (১৬,জুলাই) ২৭৪: কোন মেয়েবা মহিলাকে কেউ উত্যক্ত করার চেষ্টা করলে আমি তার জীবন উত্তপ্ত করে দিবো। রবিবার সকালে কালে তিনি এমন হুঁশিয়ারি দিয়ে জানিয়েছেন।

নড়াইলের পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার), তার বক্তব্যে বলেন, ইয়াবা ব্যবসায়ীদের নির্মূলসহ জঙ্গিবাদ দমনে ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি আরো বলেন, আমার শেষ নিশ্বাসের আগেও ঘুষ ও দুর্নীতির এক টাকা হারাম খেতে চাই না: পুলিশের ইতিহাসে ঘুষ বিহীন চাকরী, মানবতার কল্যাণে নিয়োজিত এই নড়াইলের পুলিশ সুপার।

তিনি বলেন একজন পুলিশ সুপার হয়েও আমার মনের ভিতরে থাকা লুকানো পুঞ্জিভূত আকাঙ্খার জন্যই আমি পুলিশে চাকুরী নিয়েছি। মানুষের জন্য কাজ করার ইচ্ছাটা ছিল আমার স্বপ্ন, আমার ভালবাসা।

আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায় জানান, আল্লাহ আমার সেই আশা পূরণ করেছে পুলিশ বাহিনীতে চাকুরী প্রদানের মাধ্যমে। নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার) আসার পর থেকেই তার মেধা মননশীলতা ও কর্মপরিকল্পনা দিয়ে নড়াইলের মানুষকে রেখেছেন শান্তিতে। জেলার আইনশৃংখলা পরিস্থিতির উন্নন ও পুলিশের কার্যক্রমকে বেগবান করার জন্য কমিউনিটি পুলিশিং এবং বিট পুলিশিং এর কার্যক্রমকে গতিশীল করেছেন। জেলা পুলিশের পাশাপাশি এর নড়াইলে ছিল।

নারী নির্যাতন, নাশকতার ইভটিজিং, বাল্য বিবাহ, মাদক প্রতিরধ, যৌতুক, জুয়া, জমি-জমা সংক্রান্ত ছোটখাট বিরোধ নিষ্পত্তি, ট্রাফিক আইন সম্পর্কে ধারণা দেয়া, জঙ্গি তৎপরতা প্রোতিরোধ, অসামাজিক কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণসহ এলাকার সার্বিক আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। এখানকার মানুষের জন্য নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন ক্লান্তিহীনভাবে। এ জেলার মানুষকে সেবা দিতে তিনি মাঠে ঘাটে, চরাঞ্চলে ছুটে চলেছেন কখনো নৌকায়, কখনো পায়ে হেঁটে কখনোবা রিক্সায় চড়ে। নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার) তিনি যোগদানের পর থেকে জেলায় সকল প্রকার সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বন্ধ করে ফেলেছেন। আবার অনেকেই ভয়ে এলাকা ছাড়াও হয়েছেন।

সাধারণের মানুষের মতে, নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার) হস্তক্ষেপে বর্তমানে শান্তির জেলা হিসেবে রয়েছে শীর্ষে। এই মানুষটি বর্তমানে জেলায় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু বলা চলে। মহাসড়কে দুর্ঘটনা প্রতিরোধে তার উদ্ভাবিত ‘ড্রাইভারদের জন্য রিফ্রেশমেন্ট’ দুর্ঘটনা প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। কয়েকদিন পুর্বেই ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেখে এক অসহায় বৃদ্ধা ভিক্ষুকের ভাতাসহ আবাসনের ব্যবস্থা করে দেন তিনি। এছাড়াও তিনি এ এলাকার অসহায় অনেক মানুষের দুর্দিনে পাশে এসে দাঁড়িয়ে নজির স্থাপন করেছেন। সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত কমিউনিটি পুলিশিং সদস্য পরিবারকে তার নিজস্ব তহবিল থেকে নগদ টাকা প্রদান করে অসহায় পরিবারটির পাশে এসে দাড়িয়েছেন।পরিবার সহ দূর্ঘটনায় নিহত পুলিশ সদস্যদের পরিবারকেও উপহার হিসেবে ঈদ সামগ্রী ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন। এমন সুন্দর মহানুভব মানুষটিকে পুলিশ সুপার হিসেবে পেয়ে নড়াইলের মানুষ আজ খুব আনন্দিত।

নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার) আমার শেষ নিশ্বাসের আগেও ঘুষ ও দুর্নীতির এক টাকা হারাম খেতে চাই না: এমন চমৎকার মানবতায় এখন এখানকার মানুষ তাকে আলোকিত মানুষ হিসেবে জানেন। পুলিশ বাহিনীতে এমন মানুষ সত্যিই বিরল বলে জেলাবাসী মনে করেন। ঘুষ ছাড়াই নড়াইল জেলায় এবার পুলিশে লোক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। চাকরী পেয়েছেন ২০ জন। এদের প্রত্যেকের খরচ হয়েছে মাত্র ১০০ টাকা। চাকরী প্রাপ্তদের মধ্যে অধিকাংকশরই পিতা দিনমজুর। কারো পিতা মৎস্যজীবী, কেউ রাজ মিস্ত্রি, কেউ রিকসা ভ্যান চালক, কেউ এতিম কেউবা কৃষক, কেউবা রুটি। অর্থ বিত্তের জোরে এবার চাকরী হয়নি কারো। দালাল চক্র ভিড়তে পারেনি ধারে কাছে।

মেধা ও যোগ্যতার বলে বিনা ঘুষে পুলিশে চাকরী পেয়েছেন ২০ জন। চাকরী পাওয়ার ঘোষনা শুনে খুশিত কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন অনেকের পিতা-মাতা। আর পরিচ্ছন্ন নিয়োগের কারিগর হচ্ছে নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার)’র। তথ্য নিয়ে জানা গেছে, পুলিশের কনস্টেবল পদে চাকরীর জন্য। তার মধ্যে লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেন। চুড়ান্ত ভাবে উত্তীর্ণ হন ২০ জন। পুলিশ সুপারের ঘোষনা অনুযায়ী স্বচ্ছভাবে নিয়োগের সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। নড়াইলের পুলিশের ইতিহাসে ঘুষ বিহীন চাকরী প্রদান করায় বিভিন্ন মহল থেকে অভিনন্দন জানিয়েছেন নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার)কে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ বিভিন্ন গনমাধ্যমে তিনি প্রশংসায় ভাসছেন।

পুলিশের ইতিহাসে ঘুষ বিহীন চাকরী বিভিন্ন মহল থেকে অভিনন্দন: আমার শেষ নিশ্বাসের আগেও ঘুষ ও দুর্নীতির এক টাকা হারাম খেতে চাই না: নড়াইল পুলিশ সুপার ‘টাকা ছাড়া চাকরি হবে, কখনো ভাবতে পারিনি ’শেষ পর্যন্ত পুলিশ কনস্টেবলে চাকরি পাওয়া সাকিবুরের মা সাবিনা ইয়াসমিন এভাবেই প্রতিদিন ভ্যানে করে বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে সবজি বিক্রি করেন। মায়ের পাশে সাকিবুর ও তাঁর ছোট ভাইবোন। সাকিবুর রহমানরা তিন ভাইবোন। সাকিবুর এইচ এসসি পরীক্ষা দিয়েছেন। অন্য দুই ভাইবোনের মধ্যে একজন দ্বাদশ শ্রেণিতে, আরেকজন সপ্তম শ্রেণিতে পড়ে। তাঁদের বাবা নেই। মা সাবিনা ইয়াসমিন ভ্যানে করে বাড়িতে বাড়িতে সবজি বিক্রি করেন। সেই উপার্জনে চলে তাঁদের চার সদস্যের সংসার। ‘টাকা ছাড়া চাকরি হবে সাকিবুর পুলিশ কনস্টেবলের চাকরি পেয়েছেন। তাই সুনির্দিষ্ট আয়ের উৎসের নাগাল পাওয়া অসহায় পরিবারটিতে বইছে খশির বন্যা। এ যেন সাকিবুরের চাকরিতে হাসছে তাঁর পরিবার। নড়াইলে পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগের চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করা হয়।

পুলিশ লাইন মিলনায়তনে ফলাফল ঘোষণা করেন নড়াইলের পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নিয়োগ প্রক্রিয়া পরিচালনায় জড়িত যশোর জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সালাউদ্দিন শিকদার ও খুলনা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. নূর আলম সিদ্দিকী। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ৮০ জন প্রার্থী ও তাঁদের অভিভাবকদের সামনে এ ফলাফল ঘোষণা করা হয়। সাকিবুরদের কোনো জমিজমা নেই। বসবাস করেন নড়াইল শহরের বরাশুলায় সরকারের দেওয়া খাসজমিতে, ঝুপড়িতে। ভ্যানচালক বাবা হৃদ্রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন তিন বছর আগে। সেই থেকে অসহায় পরিবারটির হাল ধরেন মা সাবিনা ইয়াসমিন। খুশির অভিব্যক্তি প্রকাশ করত গিয়ে আবেগে কাঁদছিলেন সাবিনা। আনন্দে চোখ ছলছল করছিল সাকিবুরেরও। অশ্রু সজল হয়ে ওঠেন এসপি জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার) ও। শুধু সাকিবুরের পরিবারই নয়, নিয়োগ পেয়ে আনন্দের জোয়ার বইছে পৃথা বিশ্বাস ও সুপ্তিকনা বিশ্বাসদের পরিবারেও। পৃথার বাবা প্রদীপ বিশ্বাস দিনমজুর। সেই উপার্জনে চলে সংসার। সুপ্তির বাবা সমির বিশ্বাস নড়াইল শহরে রুটি বিক্রি করে সংসার চালান। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নিয়োগ পাওয়া একজন পোষ্য। অন্যরা হতদরিদ্র ও দরিদ্র কৃষক পরিবারের। পুলিশে

পরিবারের নব্য সদস্য পরিচ্ছন্ন নিয়োগের কারিগর পুলিশ সুপার জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার)!! দক্ষ করতে মেধাবী নিয়োগের বিকল্প নেই। তাই ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনায় কোনো তদবির ছাড়াই যোগ্যদের কনস্টবল ট্রেইনি পদে চূড়ান্তভাবে নির্বাচন করা হয়েছে। ২৯জুন থেকে ৬জুলাই মেডিকেল শেষ পর্যন্ত কয়েক ধাপে পরীক্ষা শেষে সহস্রাধিক প্রার্থীর মধ্যে ২০ জনকে চূড়ান্ত নির্বাচন করা হয়েছে। যার মধ্যে নারী ও পুরুষ। সদ্য নিয়োগ প্রাপ্তরা মেধার পরিচয় দিয়ে আগামী দিনে পুলিশ বাহিনীর ভাবমুর্তিকে আরো উজ্জল করবে বলেও মন্তব্য। এদের প্রত্যেকের খরচ হয়েছে মাত্র ১০০ টাকা। চাকরী প্রাপ্তদের মধ্যে অধিকাংকশরই পিতা দিনমজুর। কারো পিতা মৎস্যজীবী, কেউ রাজ মিস্ত্রি, কেউ রিকসা ভ্যান চালক, কেউ এতিম কেউবা কৃষক, কেউবা রুটি। অর্থ বিত্তের জোরে এবার চাকরী হয়নি কারো। দালাল চক্র ভিড়তে পারেনি ধারে কাছে। মেধা ও যোগ্যতার বলে বিনা ঘুষে পুলিশে চাকরী পেয়েছেন ২০ জন। চাকরী পাওয়ার ঘোষনা শুনে খুশিত কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন অনেকের পিতা-মাতা। আর পরিচ্ছন্ন নিয়োগের কারিগর হচ্ছে নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার)’র।

তথ্য নিয়ে জানা গেছে, পুলিশের কনস্টেবল পদে চাকরীর জন্য। তার মধ্যে লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেন। চুড়ান্ত ভাবে উত্তীর্ণ হন ২০ জন। পুলিশ সুপারের ঘোষনা অনুযায়ী স্বচ্ছভাবে নিয়োগের সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। নড়াইলের পুলিশের ইতিহাসে ঘুষ বিহীন চাকরী প্রদান করায় বিভিন্ন মহল থেকে অভিনন্দন জানিয়েছেন নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার)কে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ বিভিন্ন গনমাধ্যমে তিনি প্রশংসায় ভাসছেন। উল্লেখ্য এর আগে নড়াইলের অনেক যুবক ভিটেবাড়ি বিক্রি করে চাকরী গ্রহনের ইতিহাস রয়েছে। সাবেক অনেক পুলিশ সুপার এমন অনৈতিক কাজের সাথে জড়িত ছিলেন। আবার কেও দালালদের ফাঁদে পড়ে নিঃস্ব হয়েছেন এমন কথাও শোনা গেছে। নড়াইলে মাত্র ১শ টাকায় পুলিশ কনেস্টবল পদে নিয়োগ পেয়েছে দরিদ্র পরিবারের ২০ জন ছেলে-মেয়ে। শারীরিক, লিখিত ও ভাইভা পরীক্ষা উত্তীর্ণ হওয়ার পর নিয়োগপ্রাপ্ত ২০ জনের নাম ঘোষণা করেন নিয়োগ বোডের সভাপতি ও নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার)। এ সময় নিয়োগ বোডের সদস্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সহকারী পুলিশ সুপার উপস্থিত ছিলেন।

এ ছাড়া পুলিশ বিভাগের অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। অপরদিকে গত ২৯ জুন পুলিশ লাইন্সে প্রায় ১ হাজার চাকরী প্রার্থী শারীরিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। এদের মধ্যে শারীরিক পরীক্ষায় ৬২৪ জন উত্তীর্ণ হয়ে ৩০ জুন লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ৮০ জনের মধ্যে ভাইভা পরীক্ষায় চুরান্তভাবে উত্তীর্ণ হয়। পরে পুলিশ সুপার কনেস্টবল পদে এই ২০ জনের নাম ঘোষণা করেন। এদের অধিকাংশই দিনমজুর, রিক্সা ভ্যান চালক ও খেটে খাওয়া পরিবারের সন্তান। মাত্র ১শ টাকায় দরিদ্র পরিবারের ২০ জন কনেস্টবল পদে চাকরী পেয়ে অনেকেই খুশিতে কেঁদে ফেলেন। নিয়োগ হয়েছে পুলিশ কনস্টেবল পদে। চাকরী পেয়ে খুশিতে কান্না ধরে রাখতে পারলেন না। বলেন,আমি একজন দরিদ্র পরিবারের সন্তান। আমার মা একজন সামান্য ভ্যান চালিয়ে সবজি বেচে। আমি কখনো ভাবিনি আমার চাকরী হবে। অনেকে অনেক ধরনের কথা বলছে। টাকা ছাড়া চাকরী হবে না এ কথাও বলছে। আমি আল্লাহর ওপর ভরসা করে নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করি। আজ আমার চাকরী হয়েছে। ১শ টাকা ছাড়া আমার কোন টাকা লাগে নাই। এজন্য আজকে আমি খুশি ও আনন্দিত। বিনা টাকায় চাকরী দেওয়ার জন্য আমি পুলিশ সুপার স্যারকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। মতো আরো অনেকেই টাকা ছাড়া চাকরী পাওয়ার গল্প শোনান। যারা সবাই দরিদ্র পরিবার থেকে এসেছে। চাকরী পেতে কোন টাকা না লাগায় তারা সকলেরই পুলিশ সুপারকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

আজ যারা এখানে পুলিশ কনেস্টবল চাকরী পেয়েছে তারা সকলেই দরিদ্র পরিবারের সন্তান। এই দরিদ্র পরিবারের ছেলে-মেয়েদের বিনা টাকায় চাকরী দিতে পেরে আমি গর্বিত। কারণ যাদের টাকা পয়সা আছে, তারা অনেক ভাবে আরাম আয়েশ করতে পারে। দামি জামা প্যান্ট জুতা পড়তে পারে। ভালো খাবার খেতে পারে, ঘুরতে পারে। কিন্তু যারা দরিদ্র পরিবারের সন্তান তাদের ইচ্ছা থাকলেও ভালো দামি একটা শার্ট কিনতে পারে না, ইচ্ছে করলেই দাবি খামার খেতে পারে না। তাই আমি এই দরিদ্র ছেলে-মেয়েদের চাকরী দিতে পেরে গর্ববোধ করছি। হতদরিদ্র পরিবারের সদস্য হয়েও পুলিশে নিয়োগ পেয়েছেন অনেকেই। মেধাকে মূল্যায়ন করায় এমন হতদরিদ্র পরিবারের লোকজন চাকরির সুযোগ পেয়েছেন বলে দাবি স্থানীয়দের।

নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার), আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধিকে জানান, পুলিশ বাহিনীকে দক্ষ করতে মেধাবী নিয়োগের বিকল্প নেই। তাই ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনায় কোনো তদবির ছাড়াই যোগ্যদের কনস্টবল ট্রেইনি পদে চূড়ান্তভাবে নির্বাচন করা হয়েছে। ২৯জুন থেকে ৬ জুলাই পর্যন্ত কয়েক ধাপে পরীক্ষা শেষে সহস্রাধিক প্রার্থীর মধ্যে ২০ জনকে চূড়ান্ত নির্বাচন করা হয়েছে। যার মধ্যে নারী ও পুরুষ। সদ্য নিয়োগ প্রাপ্তরা মেধার পরিচয় দিয়ে আগামী দিনে পুলিশ বাহিনীর ভাবমুর্তিকে আরো উজ্জল করবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

নড়াইল পুলিশ সুপার ‘সেবাই পুলিশের ধর্ম-এই স্লোগানে ওয়াদাবদ্ধ হয়ে একটি বাহিনী গঠিত হয়েছে সেটিই বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী। মানবের মাঝেই আমি বাঁচিবারে চাই। পুলিশ বাহিনীতে যেভাবে মানুষের কাছে থেকে মানব সেবা করা যায় আমার মনে হয় আর কোন পেশা থেকে এমন সেবা দেয়া সত্যিই দুরুহ। উপরোক্ত কথাগুলো বলেছেন নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার)। এর লেখাপডার পাঠ চুকিয়ে চাকুরী নেন বাংলাদেশ পুলিশে।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit