সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:১৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
বুধহাটায় কেওড়া পার্কের উদ্বোধন করলেন ইউএনও কুড়িগ্রামে ধানক্ষেত থেকে রাজা মিয়ার মরদেহ উদ্ধার ঝিনাইদহে ট্রাক ও মাহেন্দ্র সংঘর্ষে ২ নারী নিহত, আহত-৮ আগৈলঝাড়া উপজেলা মহিলা আ.লীগের ২৩ ও আ.লীগের কাউন্সিল ২৯ অক্টোবর বগুড়ায় ‘বাংলাদেশে নারীর নিরাপদ অভিবাস’ শীর্ষক দিনবাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত খুলনা রেঞ্জ ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট-২০১৯ কলকাতা মহাত্মা গান্ধী স্মৃতি পুরস্কার পেলেন নবকাম কলেজের অধ্যক্ষ ফরিদপুরে সাংবাদিক নেতার বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন ঐক্যফ্রন্ট ‘বিগত যৌবনা’ -চট্টগ্রামে তথ্যমন্ত্রী নদী তীরের অবৈধ স্থাপনা অপসারণ কাজ চলমান থাকবে -নৌসচিব

বেনাপোল বন্দরে সামান্য বৃষ্টিতে হাটু পানি

বৃষ্টিতে হাটু পানি

মোঃ মাসুদুর রহমান শেখঃ স্থল বন্দর বেনাপোলের অবকাঠামো  উন্নয়ন এর জন্য কোটি কোটি টাকা ব্যায় হলেও উন্নয়নের কোন ছোয়া নজরে পড়ে না। সামান্য বৃষ্টি হলে বন্দরের ভিতর হাটু পানি হয়ে যায়। সেখানেবেনাপোল বন্দরে সামান্য বৃষ্টিতে হাটু পানি কর্তৃব্যরত নিরাপত্তা প্রহীরা দ্ঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে নিরাপপ্তার দায়িত্ব পালন করছে  রোদ বৃষ্টিতে ভিজে ।
বেনাপোল বন্দরের নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত আনাছার সদস্য রবিউল ইসলাম বলেন, আমাদের দায়িত্বরত গেটে বন্দরের সকল ইয়ার্ডে কোন পোস্ট নেই। আর যা দুই একটি আছে সেখানে বৃষ্টি হলে হাটু পানিতে ভরে যায়। আমাদের বসার জন্যও নেই কোন টুল বা চেয়ার। আমরা ভাংগা চোরা ভারত থেকে আমদানিকৃত শোলা দিয়ে দড়ি দিয়ে বেধে টুল বানিয়ে একটু বিশ্রাম নেই। যে কয়টি পোস্ট আছে নেই সেখানে কোন ফ্যান লাইট। যদি একনাগাড়ে দুই ঘন্টা বৃষ্টি হয় সেখানে বৃষ্টিতে ভিজে দাড়িয়ে দায়িত্ব পালন করতে হয়।
বেনাপোল বন্দরের শ্রমিকরা অবিযোগ করে বলেন আমাদের সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কাজ করতে হয় বন্দরের শেডে। সেখানে আমাদের জন্য নেই কোন পানিও টয়লেটের ব্যবস্থা। নেই বসার জন্য কোন বিশ্রামাগার। অথচ বন্দরে সম্প্রতি ১১১ কোটি টাকা ব্যায়ে শুনেছি কাজ হয়েছে ! কিন্তু আমরা তো কোন কাজ চোখে দেখছি না। আর বৃষ্টি হলেতো দাড়ানোর কোন জায়গা নেই।
বেনাপোল স্থল বন্দরের একজন দায়িত্বরত কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন আমাদের পরিচালক মহোদয় প্রদোষ কান্তি দাস তিনি কোন উন্নয়ন দেখছে না। তিনি এখান থেকে সহকারী পরিচালক সঞ্জয় এর মাধ্যমে বিভিন্ন শেড থেকে সাপ্তাহিক বিমান ভাড়ার টাকা নিয়ে উড়াল দেয়। তিনি বন্দরের উন্নয়নের জন্য কোন চিন্তা ভাবনা করছে না। টাকা নেওয়ার মধ্যে উল্লেখ যোগ্য হচ্ছে ৩৭ নং শেড ৩১ নং ইয়ার্ড রাজস্ব শাখা উল্লেখ যোগ্য।
এ ব্যাপারে পরিচালক প্রদোষ কুমার দাসকে কয়েকবার ফোন দিলে তিনি ফোন না ধরে কেটে দেন।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit