মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ০৪:০৮ অপরাহ্ন

বাসস্ট্যান্ডে যাত্রী ছাউনী না থাকায় রোদ-বৃষ্টিতে যাত্রীদের চরম ভোগান্তি

ইমদাদুল হক,পাইকগাছা,খুলনাঃ পাইকগাছায় জনগুরুত্বপূর্ণ জিরো পয়েন্ট বাস বাসস্ট্যান্ড এলাকায় যাত্রী ছাউনী না থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে যাত্রী সাধারণের। অপরদিকে সরকারিভাবে একটি পাবলিক টয়লেট স্থাপন করা হলেও এখনও সেটি ব্যবহার করার জন্য উন্মুক্ত করা হয়নি। এদিকে দিনদিন দখল হচ্ছে সরকারি সম্পত্তি। সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নেওয়ায় দিন যত গড়াচ্ছে রাস্তার পাশের জায়গা ততই কমে যাচ্ছে। পাবলিক টয়লেট ও যাত্রী ছাউনি না থাকায় প্রতিদিন চরম বিপাকে পড়ছেন মহিলাসহ যাত্রীসাধারন। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে জন্য সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে স্থানীয় এলাকাবাসি, যাত্রীসাধারন ও পথচারীরা।

জানা গেছে, পাইকগাছা উপজেলার শিববাটী ব্রীজ চালু হওয়ার পর থেকে পৌর বাসস্ট্যান্ড থেকে তেমন কোন যাত্রী উঠানামা আগেরমত আর করে না। পাইকগাছা-কয়রা (শিববাটী ব্রীজের সংযোগ সড়ক) ও পাইকগাছা-খুলনা সড়কটির মিলনস্থলটি পৌর জিরো পয়েন্টে নামে পরিচয় লাভ করে। পাইকগাছা, কয়রা ও পার্শ্ববর্তী আশাশুনিসহ বিভিন্ন এলাকার হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন ঢাকা, খুলনাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যাতায়াত করে থাকে উক্ত স্থান থেকে। সে কারনে যাতায়াতের সময় প্রত্যেক যাত্রীকে জিরো পয়েন্টে যাত্রা বিরতি করে যানবাহন পরিবর্তন করতে হয়। এ সময় দুরপাল্লার যাত্রীদের এক দিকে যেমন বিশ্রাম নেয়ার প্রয়োজন হয়, অপরদিকে প্রয়োজন হয় বাথরুমের। বর্তমানে জিরো পয়েন্ট এলাকাটি জনগুরুত্বপূর্ণ ব্যস্ততম এলাকায় পরিণত হওয়ায় এখানে পুলিশ মোতায়েন থাকে। দীর্ঘ সময় একই স্থানে অবস্থান করার কারণে অনেক সময় তাদেরও বাথরুমের প্রয়োজন হয়। অথচ সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষ গুরুত্বপুর্ণ এ স্থানে নির্মাণ করেননি কোন যাত্রী ছাউনী। যদিও একটি পাবলিক টয়লেট অতি সম্প্রতি নির্মান করা হয়েছে। তবুও সেটি এখনও পর্যন্ত ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করা হয়নি। নেই কোন গণশৌচাগার। ফলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে যাত্রী সাধারণকে।

এ ব্যাপারে খুলনা বিভাগীয় বাস-মিনিবাস সমিতির লাইন সেক্রেটারী শেখ জাহিদুল ইসলাম জানান, জিরো পয়েন্টর আশ-পাশ এলাকায় সড়ক ও জনপদ বিভাগের সরকারী অনেক জায়গা রয়েছে। দিন দিন এ সকল জায়গা দখল করে নিচ্ছে এক শ্রেণীর লোকজন। ফলে রাস্তার পাশের জায়গা দিন দিন কমে যাচ্ছে। শ্রমিক নেতা শেখ মিথুন মধু জানান, সড়ক ও জনপদ বিভাগের জায়গা দখল করে তৈরী হচ্ছে দোকান ঘর। কতৃপক্ষ এখনই যদি কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করেন তাহলে হয়তো দখলদারদের উচ্ছেদ করা সম্ভব হবেনা। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সরকারী জায়গার উপর যাত্রী ছাউনী ও একটি গণশৌচাগার নির্মাণ করতে পারেন বলে শ্রমিক নেতৃবৃন্দ জানিয়েছেন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, জিরো পয়েন্টে গণশৌচাগার কিংবা পাবলিক টয়লেট ব্যবস্থা না থাকার কারনে অনেক সময় বাড়ীতে লোকজন ঢুকে পড়ে। যে কারনে তাদেরকেও অনেক সময় নানা অসুবিধায় পড়তে হয়। যাত্রী সাধারনসহ মটর শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ অনতিবিলম্বে জিরো পয়েন্টে যাত্রী ছাউনি ও নির্মানকৃত পাবলিক টয়লেটটি ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করার জন্য সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানিয়েছেন।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit