মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ০৪:০৫ অপরাহ্ন

বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান বিগত সাক্ষাৎকারের ফলাফল

বিশ্বকাপে ভারত

বিশ্বক্রিকেটের সবচেয়ে চর্চিত মহারণ। বিলেতের মাটিতে দুই এশীয় শক্তির ‘মার্কি ক্ল্যাশ’। আমের বনাম কোহলি, রিয়াজ বনাম রোহিত কিংবা বুমরাহ বনাম ফকর। ম্যাঞ্চেস্টার মহারণ ঘিরে যাবতীয় বারুদ মজুত, কেবল তা বিস্ফোরণের অপেক্ষায়।

বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান লড়াইয়ের শুরুটা ১৯৯২। চ্যাম্পিয়ন হলেও সেবার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের কাছে হার স্বীকার করতে হয়েছিল ইমরান খানের পাকিস্তানকে। এরপর বিশ্বক্রিকেটের মেগা আসরে আরও ৫বার মুখোমুখি হয়েছে যুযুধান দুই প্রতিপক্ষ। কিন্তু প্রত্যেকবারই ভারতের বিরুদ্ধে খালি হাতে ফিরতে হয়েছে পাকিস্তানকে। এযাবৎ বিশ্বকাপের আসরে ৬বার দু’দেশের মুখোমুখি সাক্ষাতে ভারতের পক্ষে ফলাফল ৬-০।

পরিসংখ্যানকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে এবার কি ফলাফল নিজেদের দখলে নিতে পারবে সরফরাজের পাকিস্তান, নাকি বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ১০০ শতাংশ জয়ের ধারা বজায় রেখে ফলাফল ৭-০ করবে বিরাটের ভারত। উত্তর জানতে অপেক্ষা আর কয়েকঘন্টার। তবে তার আগে বিশ্বকাপে ভারত-পাক ম্যাচের বিগত সাক্ষাৎকারের ফলাফল দেখে নেওয়া যাক একনজরে-

সিডনি, ১৯৯২- ভারত জয়ী ৪৩ রানে
বিশ্বজয়ের ৯ বছর বাদে বিশ্বকাপের মেগা আসরে প্রথমবার পাকিস্তানের মুখোমুখি হয় ভারত। ভারতের উইকেটেরক্ষক কিরন মোরেকে উদ্দেশ্য করে ব্যাট উচিয়ে পাক ব্যাটসম্যান জাভেদ মিঁয়াদাদের বিতর্কিত অঙ্গভঙ্গি অনুরাগীদের স্মৃতিতে এখনও টাটকা। অজয় জাদেজার ৪৬ রান সচিন তেন্ডুলকরের অপরাজিত ৫৪ রানে ভর করে প্রথমে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ২১৬ রান তোলে ভারত। জবাবে ওপেনার আমির সোহেলের ৬২ রান ও জাভেদ মিঁয়াদাদের ৪০ রান সত্ত্বেও ভারতীয় বোলারদের দাপটে ১৭৩ রানেই গুটিয়ে যায় পাকিস্তান।

বেঙ্গালুরু, ১৯৯৬- ভারত জয়ী ৩৯ রানে
প্রথমে ব্যাট করে ওপেনার নভজোৎ সিং সিধুর ৯৩ রান, মিডল অর্ডারে অজয় জাদেজার ৪৫ রান ভারতকে পৌঁছে দেয় ২৮৭ রানে। জবাবে দুরন্ত শুরু করেন দুই পাক ওপেনার আমির সোহেল ও সঈদ আনোয়ার। কিন্তু ভেঙ্কটেশ প্রসাদ ও অনিল কুম্বলের ৩ উইকেট পাকিস্তানের কাজ কঠিন করে তোলে। ভারতের ২৮৭ রানের জবাবে ২৪৮ রানের বেশি তুলতে পারেনি পাকিস্তান।

ম্যাঞ্চেস্টার, ১৯৯৯- ভারত জয়ী ৪৭ রানে
বিশ বছর আগে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে ম্যাঞ্চেস্টারেই মুখোমুখি হয়েছিল দুই দেশ। সচিন তেন্ডুলকরের ৪৫, রাহুল দ্রাবিড়ের ৬১, অধিনায়ক মহম্মদ আজহারউদ্দিনের ৫৯ রানকে প্ল্যাটফর্ম করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ২২৭ রান তোলে ভারত। এরপর বল হাতে জ্বলে ওঠেন ভেঙ্কটেশ প্রসাদ। প্রসাদের ৫ উইকেট, জাভাগাল শ্রীনাথের ৩ উইকেট ও অনিল কুম্বলের জোড়া উইকেট শিকারে ৪৫.৩ ওভারে ১৮০ রানে অল-আউট হয়ে যায় পাকিস্তান।

সেঞ্চুরিয়ন, ২০০৩- ভারত জয়ী ৬ উইকেটে
সঈদ আনোয়ারের শতরানে প্রথমে ব্যাট করে ২৭৩ রান তোলে পাকিস্তান। জবাবে সচিন তেন্ডুলকরের ৭৫ বলে ৯৮ রানে ফিকে হয়ে যায় পাক ওপেনারে ইনিংস। মাস্টার ব্লাস্টারের ধুন্ধুমার ইনিংস ছাড়াও পঞ্চম উইকেটে রাহুল দ্রাবিড় ও যুবরাজ সিংয়ের ৯৯ রানের অবিভক্ত পার্টনারশিপে মসৃণ জয় তুলে নেয় ভারত। দ্রাবিড় ৪৪ রানে ও যুবরাজ অপরাজিত থাকেন ৫০ রানে।

মোহালি, ২০১১- ভারত জয়ী ২৯ রানে
বিগ সেমিতে ব্যাট হাতে ফের নায়ক হয়ে ওঠেন সচিন রমেশ তেন্ডুলকর। মূলত তার ৮৫ রানে ভর করে মোহালিতে পাকিস্তানকে ২৬১ রানের টার্গেট দেয় ভারত। ওয়াহাব রিয়াজ নেন ৫ উইকেট। জবাবে মহম্মদ হাফিজের ৪৩ ও মিসবা উল-হকের ৫৬ রান সত্ত্বেও ভারতীয় বোলারদের দাপটে ২৩১ রানে অল-আউট হয়ে যায় গ্রিন ব্রিগেড। ২টি করে উইকেট নেন ভারতের পাঁচ সফল বোলার।

অ্যাডিলেড, ২০১৫- ভারত জয়ী ৭৬ রানে
সচিনোত্তর যুগে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপে ভারতের প্রথম সাক্ষাৎ। তবে প্রথম ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে শতরানের নজির গড়ে সচিনের অভাব পূরণ করেন বর্তমান অধিনায়ক বিরাট কোহলি। পাক বলার সোহেল খানের ৫ উইকেট সত্ত্বেও বিরাটের ১০৭ রানে চেপে ভারত স্কোরবোর্ডে ৩০০ রান তোলে। জবাবে আহমেদ শেহজাদের ৪৭ রান ও মিসবা উল-হকের ৭৬ রানেও পরিসংখ্যান বদলাতে পারেনি পাক শিবির। ৪৭ ওভারে ২২৪ রানেই গুটিয়ে যায় তাদের ইনিংস। ভারতের সবচেয়ে সফল বোলার মহম্মদ শামি নেন ৪ উইকেট।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit