সোমবার, ১৭ জুন ২০১৯, ০৬:৫৪ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
ভারতে পাচার ৬ বাংলাদেশী নারী, শিশুকেস্বদেশ প্রত্যাবাসনে বেনাপোলে হস্তান্তর ছাতকের বাগবাড়ী প্রাথমিকবিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে আবার নির্বাচন দিতে হবে : ফখরুল নির্বাচিত সংসদকে যারা অবৈধ বলে তারাই অবৈধ- কাদের বিকাশ-রকেটের ব্যালেন্স জানতে খরচ হবে ৪০ পয়সা বিশ্বকাপ সাতটি ম্যাচেই পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জয় ভারতের মুকুলের হাত ধরেই বিজেপিতে তৃণমূল বিধায়কসহ বহু কাউন্সিলর বিজেপিতে যোগ দিলেন সাত শতাধিক তৃণমূল নেতাকর্মী জনস্বাস্থ্য, নগর উন্নয়ন ও পল্লী উন্নয়নে সুইজারল্যান্ডের ভূমিকা উৎসাহব্যঞ্জক -স্থানীয় সরকার মন্ত্রী নারী নির্যাতন জাতীয় উন্নয়নের পথে সবচেয়ে বড় বাধা -আইনমন্ত্রী

প্রকল্পের কাজ নির্ধারিত সময়ে সমাপ্ত করার আহ্বান মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর

ঢাকা, ৩০ জ্যৈষ্ঠ (১৩ জুন) : আজ ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটারের সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশের নির্বাচিত এলাকায় কুচিয়া ও কাঁকড়ার চাষ এবং গবেষণা প্রকল্পের দিনব্যাপী এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মোঃ আশরাফ আলী খান খসরু প্রধান অতিথি হিসেবে কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিমন্ত্রী জুলাই-২০১৫ থেকে জুন-২০১৯ পর্যন্ত ৪ বছর মেয়াদী প্রকল্পটি যথাসময়ে সফলভাবে সমাপ্ত হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, উন্নয়ন প্রকল্পের সমাপ্তির পর সেসব প্রকল্পের কাজ যাতে অব্যাহত থাকে, তা নিশ্চিত করতে হবে। তিনি যথাসময়ে সকল প্রকল্পের কাজ নির্ধারিত সময়ে সমাপ্ত করে দৃষ্টান্ত স্থাপনের জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান।

সভায় জানানো হয়, প্রচলিত মৎস্যজাত পণ্যের পাশাপাশি বাংলাদেশে অপ্রচলিত মৎস্যপণ্য যেমন- কাঁকড়া ও কুচিয়ার উৎপাদন এবং রপ্তানি আয়ের পরিমাণ ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে মাছ চাষের সাথে সাথে অপ্রচলিত মৎস্যপণ্যের দিকে ঝুঁকছে খামারিরা। ২০১৩ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত চার বছরে দেশের ১০টি জেলা যেমন- সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, বরগুণা, পটুয়াখালী, ভোলা, নোয়াখালী, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারে সর্বমোট ২৫ হাজার ৬৪৩ দশমিক ৪২ মেট্রিক টন কাঁকড়া উৎপাদিত হয়।

উৎপাদনের পাশাপাশি ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ১২ হাজার ৪৯৩ দশমিক ৯৭ মেট্রিক টন কুচিয়া রপ্তানির বিপরীতে আয় হয়েছে ১৯৬ কোটি ৩৯ লাখ, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১২ হাজার ৪৫১ দশমিক ৫৯ টনের বিপরীতে ১৮৩ কোটি ৮৫ লাখ, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ১২ হাজার ৬৮৫ দশমিক ৯৮২ টনের বিপরীতে ২০৪ কোটি ৪৮ লাখ এবং ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৭ হাজার ২০২ দশমিক ৮০ মেট্রিক টন হিমায়িত ও জীবিত কাঁকড়া রপ্তানির বিপরীতে ৪০৪ কোটি ২০ লাখ টাকার বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়েছে।

অন্যদিকে মৎস্য অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রণে ৪ বছর মেয়াদী বাংলাদেশের নির্বাচিত এলাকায় কুচিয়া ও কাঁকড়ার চাষ এবং গবেষণা প্রকল্পের আওতায় দেশের ৮ বিভাগের ২১ জেলার ৩৬টি উপজেলায় কাঁকড়া ও কুচিয়া চাষ সম্প্রসারিত হয়েছে। ২০১৫-১৭ অর্থবছরে প্রকল্প এলাকার ৮৪৫টি প্রদর্শনী খামারে ১৯২ দশমিক ১৬ মেট্রিক টন কাঁকড়া এবং ২৬৪টি প্রদর্শনী খামারে ৬২ দশমিক ৩৭ মেট্রিক টন কুচিয়া আহরিত হয়েছে। এ সময় উভয় পণ্যের উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ২৬৫ দশমিক ৪৩ মেট্রিক টন নির্ধারিত হলেও উৎপাদিত হয়েছে ২৮১ দশমিক ৫০ মেট্রিক টন।

মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবু সাইদ মোঃ রাশেদুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় অন্যান্যের মধ্যে মন্ত্রণালয়ের সচিব রইছউল আলম ম-ল, অতিরিক্ত সচিব কাজী ওয়াসি উদ্দিন, প্রকল্পের কনসালটেন্ট ফিলিপাইনের অধিবাসী ড. এমিলিয়া টি কুইনটিনো এবং প্রকল্প পরিচালক মাসুদা খানম বক্তৃতা করেন।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit