বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
শার্শা’র গোগা ইউনিয়নের কালিয়ানি ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জ পৌরসভার কর মেলা উদ্বোধন শুধু জঙ্গিদের নয়, জঙ্গিবাদকেই দমন করতে হবে -মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা ফুটবলের সেমি ফাইনাল অনুষ্ঠিত আশাশুনিতে মাদকের অপব্যবহার ও পাচার বিরোধী র‌্যালী ও সভা রেলওয়ে স্টেশনে তেলে ট্যাঙ্কারবাহী ট্রেন আটকা জনদুর্ভোগ চরমে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল হাজিরা শুরু ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ৬ শতাধিক শিক্ষার্থীদের মাঝে ৯ লক্ষাধিক টাকার শিক্ষাবৃত্তি ও অনুদান প্রদান প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে গাছ কাটা ও বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ বেনাপোল কাস্টমসে স্কানিং মেশিন অচল

বিএনপিরকে আওয়ামীলীগের কাছ থেকে শিষ্টাচার শিখতে হবে

তথ্যমন্ত্রী

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ২০১৪ সালে নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে গণভবনে আমন্ত্রণ জানিয়ে টেলিফোন করেছিলেন।

টেলিফোনে বেগম জিয়া যে ভাষায় কথা বলেছেন, সেটি সমস্ত শিষ্টাচার বহির্ভূত। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, তিনি এমন একটি দলের মহাসচিব যে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার পুত্র আরাফাত রহমানের মৃত্যুর খবর পেয়ে সহমর্মিতা জানানোর জন্য দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাড়ির সামনে ১৫-২০ মিনিট দাঁড়িয়ে ছিলেন কিন্তু তিনি দরজা খোলেননি।

কোনো শত্রুও যদি মৃত্যুর খবর পেয়ে সহমর্মিতা জানানোর জন্য কারো বাড়িতে হাজির হয় তাহলে এ ধরণের আচরণ করতে পারেন না। তিনি প্রশ্ন করেন, এটি বেগম খালেদা জিয়ার কি ধরণের শিষ্টাচার? যে দলের চেয়ারপারসনের শিষ্টাচার সম্পর্কে নূন্যতম জ্ঞান নেই, সেই দলের মহাসচিব কিভাবে শিষ্টাচার নিয়ে কথা বলে। বিএনপির মহাসচিবের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, শিষ্টাচার বিএনপির কাছ থেকে আওয়ামী লীগকে শিখতে হবে না, বরং বিএনপিকেই শিখতে হবে এবং বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে শিখাতে হবে।

মন্ত্রী আজ মন্ত্রণালয়ে তাঁর অফিস কক্ষে গতকাল রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গণভবনে সংবাদ সম্মেলনের পর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপি’র রাজনৈতিক দৈন্যদশা এমন পর্যায়ে গেছে একজন সন্ত্রাসের দায়ে যাবজীবন দ-প্রাপ্ত আসামী তারেক রহমান তাদের দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান এবং মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ দলেরই মহাসচিব। এটি বিএনপির জন্য প্রচ- লজ্জাস্কর।

মন্ত্রী আরো বলেন, সরকারের দায়িত্ব হচ্ছে কোনো সাজা প্রাপ্ত আসামীর সাজা কার্যকর করা। এটি রাষ্ট্রের দায়িত্ব। তারেক রহমান দুর্নীতি মামলায় ১০ বছর সাজাপ্রাপ্ত, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা যাবজীবন কারাদ-প্রাপ্ত। ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের ২৪ জন নেতাকর্মীকে হত্যা করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নিজে গুরুতর আহত হয়েছিলেন, তাঁর শ্রবণশক্তি লোপ পেয়েছিল।

চক্রান্ত করা হয়েছিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করার এবং আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শূন্য করার জন্য। সেই মামলা তারেক রহমান যাবজীবন দ-প্রাপ্ত আসামী। কারো বিরুদ্ধে আদালত যদি দ- দেয়, সে যেই হোক, হোক সরকারি কর্মকর্তা, এমনকি সরকার দলীয় কোনো এমপিও যদি হন, তার বিরুদ্ধে শাস্তি কার্যকর করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। বাংলাদেশের আদালত স্বাধীন। তারেক রহমানের বিরুদ্ধে শাস্তি কার্যকর করা হবে রাষ্ট্রের দায়িত্ব। তথ্যমন্ত্রী বলেন, একদিন তারেক রহমানের বিচার কার্যকর হবে।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit