শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:৩০ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
আশাশুনিতে শ্রীকৃষ্ণের শুভ জন্মাষ্টমী যথাযোগ্য মর্যাদায় সম্পন্ন অশুভ শক্তিকে সমাজ থেকে বিনাশ করতে হবে -লাবু চৌধুরী পঞ্চগড়ে আসমা হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন, প্রধান আসামী বাঁধনের আত্মসমর্পন উলিপুরে বন্যা কবলিত এলাকায় বিনামুল্যে স্বাস্থ্য সেবা ও ঔষধ বিতরণ সারাদেশে মহাসমারোহে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের শুভ জন্মাষ্টমী উৎসব পালিত টাকা ফেরত দিয়ে ক্ষমা চেয়ে এ যাত্রায় রক্ষা পেল পল্লীবিদ্যুৎ কুলাউড়ায় ‘শ্রীগীতা শিক্ষাঙ্গন’র জন্মাষ্টমী উদযাপন ঝিনাইদহ কালীগঞ্জে দুই মোটরসাইকেল চোর আটক, দুটি মোটরসাইকেল উদ্ধার ফরিদপুরে নানা কর্মসূচিতে জন্মাষ্টমী পালিত সালথায় শ্রী কৃষ্ণের জন্মষ্টমীতে বর্ণাঢ্য শোভা যাত্রা

স্বাধীন বাংলাদেশে হিন্দুদের করুণ পরিণতি

স্বাধীন বাংলাদেশে হিন্দুদের করুণ পরিণতি

বাংলাদেশে বসবাসরত হিন্দুরা ভারতের গংগা নদীর জলে ভাসতে ভাসতে ওপার থেকে এপারে এসে এই দেশে বসত গড়ে নাই… অথবা নেপালের হিমালয় পর্বতের কোল ঘেষে কোন সুরংগ পথে বাংলাদেশে প্রবেশ করে নাই।

বাংলাদেশের হিন্দুরা বর্তমানের বাংলাদেশ, তার আগে পাকিস্তানের পূর্ব পাকিস্তান, তার পূর্বে বৃটিশ আমলে ভারত উপমহাদেশের পূর্ব বাংলায় দাপটের সাথে চৌদ্দ পুরুষ থেকেই বসবাস করে আসছে, যুগের পর যুগ।
১৯৩০, ১৯৫০,১৯৬৪ সালের ভয়াবহ সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় বাবা মা ভাইবোন আত্মীয়স্বজন ঘরবাড়ি হারিয়ে সর্বশান্ত হয়েও অবশিষ্ট হিন্দুরা এই বাংলার মা মাটি মানুষকে ভালোবেসে ঘর বেধেছিলো।কিন্তুু এই বাংলা হিন্দুদের কোন বার ভালোবাসেননি তাই একবার নয় দুইবার নয় বারবার এই বাংলাতেই নির্যাতনের শিকার হতে হয়।যা আজও চলমান রয়েছে।।
সেই নবাব শায়েস্তা খানের আমলের সুখের দিনে এক টাকায় এক ধাম চাল কিনে পেট ভড়েছিল আবার এই বাংলার দুর্দিনে বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজুদ্দৌলার মসনদ রক্ষার জন্য সেনাপতি মীর মদন, মোহন লাল হাসিমুখে পলাশীর প্রান্তরে প্রান দিয়েছিলো কিন্তু মীরজাফর কৌশলে বেইমানি করে সিরাজকে হটিয়ে বৃটিশদের হাতে বাংলার স্বাধীনতা তুলে দিয়েছিল।
বৃটিশ সাম্রাজ্যের হাত থেকে এই বাংলাকে মুক্ত করার জন্য মংগল পান্ডে থেকে শুরু করে ঝাসীর রানী, খুদিরাম, সূর্যসেন, বীরকন্যা প্রীতিলতা,ভগৎ সিংদের জন্ম হয়েছিল হিন্দু সমাজের মধ্য থেকেই। তাদের আত্মত্যাগ আর সংগ্রামের বিনিময়ে ১৯৪৭সালে ভারতবর্ষ স্বাধীনতা লাভ করলেও সাম্প্রদায়িক শক্তির কাছে পরাজিত হয়ে ভারতবর্ষ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে,এতে কোটি কোটি হিন্দু ভুমিপূত্র থেকে ভূমিহীন হয়ে পরে।।
মুলত জাতিগত দ্বন্দ্বে ভাগ করার মুল উদ্দেশ্যে ছিল পাকিস্তান ও পূর্ব পাকিস্তানে থাকা হিন্দুদের ৭০% ভুমি কব্জা করা।।
জাতিগত বিভেদের মধ্যে দেশ ভাগ হলেও বাঙালি হিন্দু মুসলিম তা মেনে নিতে পারেনি এবং দিন দিন বাঙালিদের অত্যাচার, শোষিত,বঞ্চিত হাত থেকে রক্ষার্থে আন্দোলনে নেমে আসতে বাধ্য হয়।
১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের মধ্যে দিয়ে শুরু হয় স্বাধীন বাংলার সপ্ন,১৯৭১সালে পাকিস্তানের ২৫ মার্চ ঢাকায় নিরিহ মানুষের উপর নৃশংসতা ভাবে গুলি চালিয়ে হত্যা শুরু করলেও পরে বেছে বেছে হিন্দু পাড়াগুলোতে হামলা চালিয়েছে নির্মমভাবে পুরুষ ও বাচ্চাদের হত্যা করে হিন্দু যুবতী ও মহিলাদের সেনাকেম্পে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে খুন করা শুরু করে।।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের ডাকে স্বাধীনতা যুদ্বে  হিন্দুদের রক্তেও মাতম উঠেছিলো একটা স্বাধীন দেশের আশায়। দেশ স্বাধীন হওয়ার পূর্বে ৩০ লক্ষ মানুষের মধ্যে ২৪ লক্ষ হিন্দু নিহত এবং দুই লক্ষ ধর্ষিত যুবতী ও মহিলার মধ্যে অধিকাংশ মহিলা ও যুবতী হিন্দু ছিল।।
এত ত্যাগের বিনিময়ে স্বপ্ন একটাই ছিল ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকলকে নিয়ে স্বাধীন ভাবে বেঁচে থাকার স্বপ্ন, ধর্মনিরপেক্ষ স্বাধীন দেশের।
যে দেশে হিন্দু মুসলিম কোন ভেদাভেদ থাকবেনা, যে দেশে হিন্দুদের গায়ে লাগবেনা কোন সংখ্যালঘুর তকমা।
দেশ স্বাধীন হয়েছে, একের পরে এক সরকার পরিবর্তন হয়েছে কিন্তু স্বাধীনতার সপ্ন ঘুমিয়ে থাকা সপ্নে পরিনত হয়েছে,পাকিস্তান আমলের ন্যায় স্বাধীন বাংলায় আজও হিন্দুরা নির্যাতিত নিপীড়িত,দিন দিন মাত্রা কমে না বরং বেড়ে যায়।
কোন সরকারের আমলেই সাম্প্রদায়িকতার কালো থাবা থেকে হিন্দুরা রেহাই পায় না।স্বাধীনতার চার দশক পরে এখনো যদি ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার তালিকা বাদ দিয়ে প্রকৃত আসল মুক্তিযোদ্ধা খোজা হয়, সেখানে হিন্দু মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা অনেক বেড়ে যাবে।
৭১” সালে পাকিস্তানি বাহিনী, জামাত রাজাকারের হাতে নির্যাতিত স্বামীহারা সন্তানহারা বিরাংগনাদের মধ্যেও হিন্দু মহিলাদের সংখ্যা অনেক। নবাব সিরাজুদ্দৌলার আমল থেকে আজ পর্যন্ত বাংলাদেশের প্রতিটি রাজনৈতিক পট পরিবর্তন, আন্দোলন সংগ্রামে এই বাংলার মাটি যেমন মুসলিম সম্প্রদায়ের রক্তে রঞ্জিত হয়েছে, তেমনি হিন্দুদের রক্তেও ভিজেছে এই ভুখন্ড,একবার নয়, বারবার।
তবে আজ কেন হিন্দুরা নির্যাতিত হচ্ছে প্রতিনিয়ত?কেন মন্দিরের প্রতিমা ভাংগা হচ্ছে অহরহ ? আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে? হিন্দুদের বাড়িঘর দোকানপাট ব্যাবসা বানিজ্য দখল করে নেয়া হচ্ছে বিনা বাধায়? নিরব প্রশাসন! নিরব সরকার! অধিকাংশ ক্ষেত্রে প্রশাসনের পরোক্ষ সহযোগিতায় ঘটছে এইসব দখলদারি।
জোড়করে ধর্মান্তরিত, ধর্ষণ, হত্যা গুম আজ হিন্দুদের জন্য আতংক ত্রাস হয়ে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশে। বিরোধী দলহীন বাংলাদেশে আজ অধিকাংশই একছত্র সরকারি দলের দীর্ঘমেয়াদি তাবেদার, তাই সরকারি দলের নেতাকর্মীরাও আজ উদাসীন, কেউ আর আজ হিন্দুদের ব্যাংক ভোট আমলে আনেনা।
সরকারি দলের নজর আজ হেফাজতের মতো সাম্প্রদায়িক দলের ভোটার সংখ্যার দিকে। তাই সরকারি দলের স্থানীয় হাইব্রিড নেতাকর্মীদের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহনে বাংলাদেশে চলছে হিন্দু মুক্ত দেশ করার কৌশল। কোথায় যাবে হিন্দুরা আজ? কার কাছে জানাবে বিচার? কে করবে বিচার??
তাই অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হয়ে  রুখে দাড়াতে হবে আজ সকলকেই,আমাদের নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষার তাগিদে, আমাদের নিজেদের এই জমিনের উপরেই, বাপদাদার জন্মভুমির মাটির উপরে শক্ত পায়ে দাড়াতে হবে,একসাথে, সম্মলিতভাবে। আমাদের সাথে থাকবে স্বাধীন বাংলাদেশের কোটি কোটি হিন্দু মুসলিম বৌদ্ধ খৃষ্টান নাগরিক,যারা মুসলিমকে মুসলিম ভাবেনা, হিন্দুকে হিন্দু ভাবেনা, মনেপ্রাণে ভাবে সবাই বাংলাদেশের নাগরিক। তারা থাকবে, থাকতেই হবে, এইটাই বাংলার সংস্কৃতি, বাংলার রাজনৈতিক সম্মিলিত গৌরবগাথা।একসাথে একত্রিতভাবে সব বিপদ আপদ মোকাবিলা করার।এই বাংলার জমিন, এই জমিনেই ১৯৭১ সালে আহত মুসলিম মুক্তিযোদ্ধাকে রাত্রের অন্ধকারে সেবাশুশ্রূষা করে আবার যুদ্ধে পাঠিয়েছিলো পাশের বাড়ির হিন্দু জেঠীমা সুরবালা অথবা পাকবাহিনীর লালসার স্বীকার ধর্ষিতা হিন্দু কন্যাকে নিজের মেয়ের মতোই বুকে তুলে নিয়ে গ্লানির জ্বালা মুছে দিয়েছিলো মুসলিম চাচা আকবর আলী।আজও সুরবালা আকবর আলীরা মরে যায় নাই।

ধীক ধীক করে হলেও ইতিহাস তার গৌরবগাথা এখনো বিলিয়ে বেড়াচ্ছে। হিন্দু হত্যা, হিন্দু নির্যাতন, ধর্ষন, হিন্দু সম্পত্তি দখল,হিন্দু মুক্ত বাংলাদেশ গড়ার এই অপকৌশলের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াবার এখনই সময়। নির্যাতন অত্যাচারে পিছু হটতে হটতে যখন ইট পাথরের দেয়ালে পিঠ ঠেকে যায়, পিছনে আর যাবার জায়গা থাকেনা, ঠিক তখনই মাটিতে শক্তভাবে সোজা হয়ে দাড়াতে হয়।।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit