শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:০৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
আশাশুনিতে দুর্গোৎসব উপলক্ষে মতবিনিময় সভা শিশু-কিশোরদেরকে আগামী দিনের সৈনিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে -মোস্তাফা জব্বার মুক্তিযুদ্ধের ন্যায় গেরিলা যুদ্ধ করে ষড়যন্ত্রকারীদের নিশ্চিহ্ন করতে হবে -ধর্ম প্রতিমন্ত্রী চিলমারীর মাদক সম্রাট খোকা গ্রেফতার নদীকে নিয়ে কিছু করার এখন সুবর্ণ সুযোগ -নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী মাদক ও অনিয়মের বিরুদ্ধে অভিযান চলবে -তথ্যমন্ত্রী প্রতিবেশীর পায়ে উঠলো শিশু লিমনের মরদেহ যশোর এম এসটিপি স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে সীমাহীন অভিযোগ নির্মানাধীন ঝিনাইদহ পৌর শপিংমল’র বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে সাংবাদিক সম্মেলন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন

সনাতন ধর্মে নারীর মর্যাদা

সনাতন ধর্মে নারীর মর্যাদা

পল্লব চৌধুরীঃ পুরুষতান্ত্রিক যে সমাজে নারীনির্যাতন নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার, নারীকে যথেচ্ছা সম্ভোগ, প্রহার বা তাড়িয়ে দেওয়ার বিধানও যে সমাজ অনুমোদন করে, সেই সমাজ যে ক্রমেই বিনাশপ্রাপ্ত হবে -এটাই তো স্বাভাবিক। বিশ্বের প্রতিটি নারীর ব্যক্তিগত জীবনের সুরক্ষা, নিরাপত্তা ও সর্বাঙ্গীন মঙ্গলের লক্ষ্যে, নারীর অপমান ও বৈষম্যের বিরুদ্ধে মহর্ষি মনু যে দৃপ্ত বাণী উচ্চারণ করেছেন, তাতে তো মনুকে বরং কট্টর নারীবাদী বলেই মনে হয়, তাই না?

সনাতন ধর্মের অন্যান্য শাস্ত্রে নারীর অধিকার ও মর্যাদা সম্পর্কে যা বলা আছে-

নারী হলো মঙ্গলময়ী লক্ষ্মী।।
(অথর্ববেদ ৭/১/৬৪)
নারী হলো জ্ঞানের ধারক।।
(অথর্ববেদ ৭/৪৭/২)
নারী শিক্ষা গ্রহণ শেষে পতিগৃহে যাবে।।
(অথর্ববেদ ১১/৫/১৮)
নারীর যেন দুঃখ কষ্ট না হয়।।
(অথর্ববেদ ১২/২/৩১)
নারীকে উপহার হিসেবে জ্ঞান উপহার দাও।।
(অথর্ববেদ ১৪/১/৬)
গর্ভজাত সন্তান ছেলে হোক আর মেয়েই হোক তাকে সমান যত্ন করতে হবে।। (অথর্ববেদ ২/৩/২৩)
“যে স্বামী তার স্ত্রীকে সন্তুষ্ট রাখে না, সে তার সমগ্র পরিবারের জন্য দুর্দশা বয়ে আনে। আর যদি স্ত্রী পরিবারের প্রতি সুখী থাকেন, তবে সমগ্র পরিবার শোভাময় হয়ে থাকে”। (মনুসংহিতা ৩/৬২)

“স্ত্রী লোকেরা সন্তানাদি প্রসব ও পালন করে থাকে। তারা নতুন প্রজন্ম বা উত্তরসুরির জন্ম দেয়। তারা গৃহের দীপ্তি বা প্রকাশস্বরূপ হয়। তারা সৌভাগ্য ও আশীর্বাদ বয়ে আনে। তারাই গৃহের শ্রী”। (মনুসংহিতা ৯/২৬)

“প্রজন্ম থেকে প্রজন্মোন্তরে স্ত্রীরাই সকল সুখের মূল। কারণ, সন্তান উত্পাদন, ধর্ম পালন, পরিবারের পরিচর্যা, দাম্পত্য শান্তি এসব কাজ নারীদের দ্বারাই নিষ্পন্ন হয়”। (মনুসংহিতা ৯/২৮)
“নারী ও পুরুষ একে ভিন্ন অপরে অসম্পূর্ণ। এজন্য বেদে বলা হয়েছে ধর্মকর্ম পত্নীর সাথে মিলিতভাবে কর্তব্য”। (মনুসংহিতা ৯/৯৬)

“জ্ঞানী ব্যক্তিগণ কখনো মাতা-পিতা, ভগিনী, পুত্রবধূ, পুত্র, স্ত্রী, কন্যা ও ভৃত্যবর্গ –এদের সাথে বিবাদ করবেন না। (মনুসংহিতা ৪/১৮০)

“যে পিতা কন্যাকে বিবাহযোগ্য সময়ে কন্যাকে পাত্রস্থ না করেন, যে স্বামী স্ত্রীর ন্যায্য দাবী পূরণ না করেন এবং যে সন্তান তার বিধবা মাতার রক্ষণাবেক্ষণ করেন না, তারা সকলেই নিন্দার পাত্র হন”। (মনুসংহিতা ৯/৪)

❏ # বহুবিবাহ পাপঃ —
“পতি ও পত্নী মৃত্যু পর্যন্ত একসাথে থাকবেন। তারা অন্য কোন জীবনসঙ্গী গ্রহণ করবেন না বা ব্যাভিচার করবেন না। এই হলো নারী-পুরুষের পরম ধর্ম”। (মনুসংহিতা ৯/১০১)

❏ স্ত্রীলোকের # স্বাতন্ত্র্যঃ —
“নারীদের টাকা- পয়সা ঠিকমত হিসাব করে জমা রাখা এবং খরচ করা, গৃহ ও গৃহস্থালী শুদ্ধ রাখা, ধর্ম-কর্ম সমূহের আয়োজন করা, অন্ন প্রস্তুত করা ও শয্যাসনাদির তত্ত্বাবধান করা –এসব কাজে স্ত্রীলোকদের স্বাতন্ত্র্য ও নেতৃত্ব দানে স্বাধীনতা প্রদান করবে। (মনুসংহিতা ৯/১১)

“যে স্ত্রী দুঃশীলতা হেতু নিজে আত্মরক্ষায় যত্নবতী না হয়, তাকে পুরুষগণ ঘরে আটকে রাখলেও সে ‘অরক্ষিতা’ থাকে। কিন্তু যারা সর্বদা আপনা-আপনি আত্মরক্ষায় তত্পর, তাদের কেউ রক্ষা না করলেও তারা ‘সুরক্ষিতা’ হয়ে থাকে। তাই স্ত্রীলোকদের আটকে রাখা নিষ্ফল। স্ত্রীজাতির নিরাপত্তা প্রধানত তাদের নিজস্ব সামর্থ্য ও মনোভাবের উপর নির্ভরশীল”। (মনুসংহিতা ৯/১২)

❏ নারীর # নিরাপত্তা বিধানঃ —
“স্ত্রীলোককে রক্ষণরূপ ধর্ম সকল বর্ণের পক্ষে শ্রেষ্ঠ ধর্ম, অর্থাৎ শ্রেষ্ঠ কর্তব্য। তাই অন্ধ, পঙ্গু ও দুর্বল স্বামীরাও নিজ নিজ স্ত্রীকে যত্নপূর্বক রক্ষা করবে”। (মনুসংহিতা ৯/৬)
“স্ত্রীলোক কখনো পিতা, স্বামী বা পুত্রের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হবেন না। কারণ তা পিতৃকুল ও পতিকুল উভয়কুলকেই কলঙ্কিত করে তোলে”। (মনুসংহিতা ৫/১৪৯)

❏ নারীদের # সম্পত্তিতে অধিকারঃ —
পিতার সম্পত্তিতে নারী ও পুরুষের সমান অধিকার রয়েছে।। (ঋকবেদ ৩/৩১/১)
“কন্যা পুত্রের সমান। তার উপস্থিতিতে কেউ তার সম্পত্তিতে অধিকার ছিনিয়ে নিতে পারেন না”। (মনুসংহিতা ৯/১৩০)
“মাতার যা স্ত্রীধন থাকবে, তা কুমারী কন্যারই থাকবে”। (মনুসংহিতা ৯/১৩১)
“যদি কোন নারীকে সুরক্ষা দেবার জন্য পুত্র বা কোন পুরুষ পরিবারে না থাকে, অথবা যদি সে বিধবা হয়ে থাকে, যে অসুস্থ অথবা যার স্বামী বিদেশে গেছে, তাহলে রাজা তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করবেন। যদি তার সম্পত্তি তার কোন বন্ধু বা আত্মীয় হরণ করে, তাহলে রাজা দোষীদের কঠোর শাস্তি দেবেন এবং সম্পত্তি ঐ নারীকে ফেরত দেবেন”। (মনুসংহিতা ৮/২৮-২৯)
❏ যৌতুক # দানে নিষেধঃ —

☞ অথর্ববেদ ১৪.১.৬ এ বলা হয়েছে,
” মেয়েকে বিয়ের সময়ে অর্থসম্পত্তির যৌতুক দিওনা, তাকে জ্ঞান সম্পদের যৌতুক দান কর(সুশিক্ষিত করে বিয়ে দাও)।”
অনুবাদঃ- একমাত্র বৈদিক শাস্ত্র ই নারীদেরকে পুরুষের সমান আসনে অধিষ্ঠিত করেছে।বিবাহের সময় কন্যার পিতা বরপক্ষকে নয় বরং বরপক্ষ ই সম্মানপূর্ব কন্যাকে ধন দ্বারা আদৃত করবেন।
“যাসাং নাদদতে শুলকং জ্ঞাতয়ো ন স বিক্রয়ঃ।
অর্হণং তত্ কুমারীণামানৃশংস্যঞ্চ কেবলম্।।

☞ মনুসংহিতা ৩.৫৪
অনুবাদঃ- কন্যার পিতা প্রভৃতি আত্মীয়স্বজন যেখানে কন্যাকে বরপক্ষপ্রদত্ত ধন গ্রহন করে না,সেখানে অপত্ত ত্যাগ হয় না। কন্যাকে সম্মানপ্রদানপূর্বক বরপক্ষকে কন্যার পিতার নিকট এই ধন প্রদান করতে হয়।

“পিতৃভির্ভ্রাতৃভিশ্চৈতাঃ পতিভির্দেবরৈস্ত থা।
পূজ্যা ভূষয়িতব্যশ্চ বহুকল্যাণমীপ্সু ভিঃ।।
অনুবাদঃ- তবে বিবাহকালে বরই শুধু কন্যাপক্ষকে কন্যার প্রতি সম্মানপূর্বক ধন দেবেন এমন নয়।বিবাহোত্তর কালে কন্যার পিতা, ভ্রাতা ইত্যাদি যদি কন্যার সুখের জন্য কিছু দান করতে অভিলাষী হন, সেক্ষেত্রে বর কনেকে নিমন্ত্রনপূর্বক ভোজনাদি বা কন্যাকে বস্ত্রালঙ্কারাদি দ্বারা ভূষিত করবে।

☞ মনুসংহিতা ৩.৫৫
❏ # বিধবা বিবাহ —
ইয়ং নারী পতি লোকং বৃণানা নিপদ্যত উপত্ব্য মর্ন্ত্য প্রেতম্।
ধর্মং পুরাণমনু পালয়ন্তী তস্ম্যৈ প্রজাং দ্রবিণং চেহ ধেহি।।

➢ অথর্ব্ববেদ ১৮/৩/১
বঙ্গানুবাদঃ- হে মনুষ্য! এই স্ত্রী পুনর্বিবাহের আকাঙ্ক্ষা করিয়া মৃত পতির পরে তোমার নিকট আসিয়াছে। সে সনাতন ধর্ম্মের পালয়িএী। তাহার জন্য ইহলোক সন্তান ও ধন দান কর।❏ বিধবা # বিবাহ —
উদীষর্ব নার্ষ্যভি জীবলোকং গতাসুমেতহমুপশেষ এহি।
হস্তাগ্যাভস্য দিধিষোস্তবেদং পত্যুর্জনিত্বমভি সংবভূব।।

➢ অথর্ব্ববেদ ১৮/৩/২
বঙ্গানুবাদঃ- হে নারী! তুমি এই মৃত পতির পার্শ্বে কেন শয়ন করিয়া আছ। ওখান হইতে উঠিয়া জীবিত মানুষ্যদের নিকটে এখানে এস। তোমার পাণি গ্রহণকারী পতির সঙ্গে সেই পত্নীত্ব টুকুই জন্মিল।
যথেমাং বাচং কল্যাণীমাবদানি জনেভ্যঃ
ব্রহ্মরাজন্যাভ্যাং শূদ্রায় চার্য্যায় চ স্বায় চারণায়।।
প্রিয়ো দেবানাং দক্ষিণায়ৈ দাতুরিহ ,ভূয়াসময়ং মে কামঃ সমৃধ্যতামুপ মাদো নমতু ।।

➢ যজুর্বেদ ২৬/২
বঙ্গানুবাদঃ- হে মনুষ্যগন আমি যেরূপে ব্রাক্ষণ, ক্ষত্রিয় ,বৈশ্য ,শূদ্র , স্ত্রীলোক এবং অন্যান্য সকল জনগনকে এই কল্যানদায়িনী পবিত্র বেদবানী বলিতেছি, তোমরাও সেই রূপ কর। যেমন বেদবানীর উপদেশ করিয়া আমি বিদ্বানদের প্রিয় হয়েছি, তোমরাও সেইরুপ হও। আমার ইচ্ছা বেদ বিদ্যা প্রচার হোক। এর দ্বারা সকলে মোক্ষ এবং সুখ লাভ করুক।

❏ নারীদের # ক্ষতিকারীদের কঠোর শাস্তিঃ —
“নারী অপহরণকারীদের মৃত্যুদণ্ড হবে”। (মনুসংহিতা ৮/৩২৩)
“যারা নারী, শিশু ও গুণবান পণ্ডিতদের হত্যা করে, তাদের কঠিনতম শাস্তি দিতে হবে”।

(মনুসংহিতা ৯/২৩২)
“যারা নারীদের ধর্ষণ করে বা উত্যক্ত করে বা তাদের ব্যাভিচারে প্ররোচিত করে তাদের এমন শাস্তি দিতে হবে যাতে তা অন্যদের মধ্যে ভীতি সঞ্চার করে এবং কেউ তা করতে আর সাহস না পায়”।

(মনুসংহিতা ৮/৩৫২)
“যদি কেউ মা, স্ত্রী বা কন্যার নামে মিথ্যা দোষারোপ করে তবে তাকে শাস্তি দিতে হবে”।

(মনুসংহিতা ৮/২৭৫)
“যদি কেউ কোন ন্যায়সঙ্গত কারণ ছাড়া মা, বাবা, স্ত্রী বা সন্তান ত্যাগ করে, তাকে কঠিন দণ্ড দিতে হবে”। (মনুসংহিতা ৮/৩৮৯)

❏ নারীর # অগ্রাধিকারঃ —
“বাহনে বা যানে আরোহী ব্যক্তির পক্ষে বয়স্ক ব্যক্তি, ক্লান্ত ব্যক্তি, ভারবাহী ব্যক্তি, বর, রাজা, স্নাতক এবং স্ত্রীলোকদের পথ ছেড়ে দেয়া কর্তব্য”। (মনুসংহিতা ২/১৩৮)

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit