সোমবার, ২৭ মে ২০১৯, ০৩:০৪ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
রাজধানীর মালিবাগে ককটেল বিস্ফোরণে নারী পুলিশসহ আহত ৩ বিএনপি নেতারাই খালেদা জিয়াকে অসুস্থ বানিয়েছেনঃ তথ্যমন্ত্রী জাপানের সঙ্গে বড় ঋণচুক্তির আশা -প্রধানমন্ত্রী বেনাপোলে জমজমাট ঈদের বাজারে ব্যস্ত দোকানিরা বাগেরহাটে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে বিক্ষোভ নবীগঞ্জে সাংবাদিক মুজিবুর রহমানের পিতার দাফন সম্পন্ন,হাজারো মানুষের ঢল নবীগঞ্জে ব্যক্তিগত বিরোধের জের ধরে জমি দখলের পাঁয়তারা হাসিল করতে মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ বেনাপোল সীমান্ত থেকে ভারতীয় রুপি,ডলার ও ফেন্সিডিল উদ্ধার আটক ১ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে উঠে গেছে -শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আশাশুনিতে ইয়াবাসহ গ্রেফতার-২

৭৫-এর পর যে এত বড় দায়িত্ব নিতে হবে সেটা কখনো ভাবিওনি- প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ছাত্রজীবন থেকেই আমার রাজনীতি শুরু। কিন্তু কোনো বড় পোস্টে ছিলাম না। কখনো বড় পোস্ট চাইওনি। পদ তৈরি করা এবং সবাইকে পদে বসানো— এই দায়িত্বই পালন করতাম। ’৭৫-এর পর যে এত বড় দায়িত্ব আমাকে নিতে হবে, সেটা আমি কখনো ভাবিওনি, চাইওনি। এমন দায়িত্ব নেওয়ার কথা চিন্তাতেও ছিল না।

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৩৯তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে দলীয় নেতাকর্মীরা শুক্রবার গণভবনে তাকে শুভেচ্ছা জানাতে এলে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় শেখ হাসিনা আরও বলেন, বাংলাদেশে যখন ফিরেছিলাম (১৯৮১ সালের ১৭ মে), সেদিন আকাশ মেঘে ঢাকা ছিল। প্রচণ্ড ঝড়-বৃষ্টি হচ্ছিল। বিমানটি বাংলার মাটিতে নামার পর ট্রাকে করে আমাদের নিয়ে আসা হচ্ছে। ওই সময় ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করে হাজার হাজার মানুষ এসেছিল। এয়ারপোর্ট থেকে সংসদ ভবন পর্যন্ত এত মানুষের ঢল যে এইটুকু পথ আসতে প্রায় চার ঘণ্টা সময় লেগেছিল।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনককে সপরিবারে হত্যার সেই নির্মম ঘটনার কথা উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, মাত্র ১৫ দিন আগে, জুলাই মাসের ৩০ তারিখে ছোট বোন রেহানাকে নিয়ে আমি জার্মানি গিয়েছিলাম। রেহানা পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। কলেজে গেলাম। সবাইকে রেখে গিয়েছিলাম, কামাল, জামাল, রাসেল…। মাত্র ১৫ দিনের মাথায় শুনলাম, আমাদের কেউ নেই, আমরা নিঃস্ব। আমাদের দেশেও আসতে দেওয়া হলো না। একপর্যায়ে চাচা এসে আমাদের নিয়ে যায়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি সিদ্ধান্ত নিলাম দেশে আসব। আমি জানি না কী করব, কোথায় থাকব, কই যাব। অনেক বাধা, অনেক বিপত্তি। তবু সিদ্ধান্ত নিলাম, আমাকে আসতেই হবে। দেশের জন্য কিছু করার তাগিদ থেকেই ফিরে এসেছিলাম।

বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক আদর্শের কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা আরও বলেন, রাজনীতির কাজ করে যেতাম আব্বার আদর্শ নিয়ে। তিনি দেশের জন্য কাজ করেছেন। বছরের পর বছর জেল খেটেছেন। আব্বাকে আমরা কখনো টানা দুই বছরও জেলের বাইরে পাইনি। এ নিয়ে আমাদের কোনো হা-হুতাশ ছিল না। আমার মা খুব চিন্তাশীল ছিলেন, তিনি বাসাও দেখতেন, বাইরেও দেখতেন। সাংসারিক কোনো ঝামেলা তিনি আব্বাকে দিতে চাইতেন না। আমাদের দাদা-দাদী, চাচারা পারস্পরিক সহযোগিতা করতেন।

দেশে ফেরার পর প্রতিকূল পরিস্থিতির কথা তুলে ধরে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, দেশে ফেরার পর থেকেই পদে পদে বাধা। যারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করে না, তারাই তখন ক্ষমতায়। ১৯৭৫ সাল থেকে ১৯৮২ সাল পর্যন্ত ১৯টি ক্যু হয়েছিল। এক সামরিক শাসকের মৃত্যুর পর আরেক সামরিক শাসক এলো। আমরা আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রের জন্য একটার পর একটা সংগ্রাম করেই গেছি। কারণ আমরা বিশ্বাস করি, গণতান্ত্রিক ধারা আর ব্যবস্থা ছাড়া দেশের উন্নয়ন করা সম্ভব না।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit