সোমবার, ২৭ মে ২০১৯, ০৩:০২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
রাজধানীর মালিবাগে ককটেল বিস্ফোরণে নারী পুলিশসহ আহত ৩ বিএনপি নেতারাই খালেদা জিয়াকে অসুস্থ বানিয়েছেনঃ তথ্যমন্ত্রী জাপানের সঙ্গে বড় ঋণচুক্তির আশা -প্রধানমন্ত্রী বেনাপোলে জমজমাট ঈদের বাজারে ব্যস্ত দোকানিরা বাগেরহাটে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে বিক্ষোভ নবীগঞ্জে সাংবাদিক মুজিবুর রহমানের পিতার দাফন সম্পন্ন,হাজারো মানুষের ঢল নবীগঞ্জে ব্যক্তিগত বিরোধের জের ধরে জমি দখলের পাঁয়তারা হাসিল করতে মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ বেনাপোল সীমান্ত থেকে ভারতীয় রুপি,ডলার ও ফেন্সিডিল উদ্ধার আটক ১ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে উঠে গেছে -শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আশাশুনিতে ইয়াবাসহ গ্রেফতার-২

৩০ কেজি চাউল বিতরণে দুর্নীতির প্রতিকারে ইউপি চেয়ারম্যানের আবেদন

দুর্নীতি প্রতিকার

সচ্চিদানন্দদেসদয়,আশাশুনি,সাতক্ষীরা: আশাশুনি উপজেলার বুধহাটায় ইউনিয়নে হত দরিদ্রদের জন্য নির্ধারিত স্বল্পমূল্যে কার্ডের মাধ্যমে খাদ্যশস্য বিতরণ কার্যক্রমে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এব্যাপারে প্রতিকার প্রার্থনা ও ডিলারদের ডিলারশীপ বাতিলের দাবী জানিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর আবেদন জানানো হয়েছে।

বুধহাটা ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিঃ আ ব ম মোছাদ্দেক ইউএনও বরাবর লিখিত অভিযোগে জানান, তার ইউনিয়নে হতদরিদ্রদের জন্য নির্ধারিত মূল্যে কার্ডের মাধ্যমে খাদ্যশস্য বিতরণ নীতিমালা-২০১৯ এর আওতায় উপকারভোগিদের মাঝে ৯টি ওয়ার্ডে চাউল বিতরণের জন্য ডিলার নিয়োগ করা হয় মিলন ও আলমগীর হোসেনকে।

১, ২, ৩, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডে ডিলার মিলন এবং বাকী ৪টি ওয়ার্ডে আলমগীর ডিলার হিসাবে নিয়োগ পান। কিন্তু তারা এখানে ডিলারশীপ পাওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত উপকারভোগিদের মাঝে চাউল বিতরণে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতি করে আসছেন। তিনি বহুবার তাদেরকে মৌখিকভাবে নিষেধ ও সতর্ক করেছেন কিন্তু তারা উপেক্ষা করে বহাল তবিয়তে অনিয়ম ও দুর্নীতি করে চলেছেন। অনিয়ম ও দুর্নীতির মধ্যে রয়েছে, উপকারভোগিদের নামের তালিকা প্রদানের পরও তারা তালিকায় নাম নেই বলে গরীব ও অসহায় মানুষদেরকে তাড়িয়ে দেয় ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। তালিকায় নাম থাকা স্বত্বেও ডিলার ছিদ্দিক ষড়যন্ত্র করে চেয়ারম্যান নাম কেটে দিয়েছে বলে নিরিহদের বঞ্চিত করে থাকেন।

তালিকা দোকানের দেওয়ালে টানিয়ে রাখতে বলা হলেও তারা রাখেনা। ছিদ্দিক ডিলার গোডাউনে যোগাযোগ করে ৩০ কেজি ওজনের বস্তার পরিবর্তে ৫০ কেজির বস্তা নিয়ে বস্তা ভেঙ্গে চাউল বিতরণের মাধ্যমে প্রত্যেক উপকারভোগিকে কমপক্ষে ৩ কেজি করে চাউল কম দিয়ে থাকে। গত ফেব্রুয়ারী মাসে ডিলার আলমগীর ও মিলন নিজেরা চাউল উত্তোলন না করে ছিদ্দিকের মাধ্যমে চাউল বিতরণের ব্যবস্থা করে। এ সুবাদে ছিদ্দিক ডিলার আলমগীরের অংশে ১০০ ও মিলনের অংশে ১২০ জনকে চাউল না দিয়ে আত্মসাৎ করে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। ডিলারশীপ আলমগীর ও মিলনের নামে থাকলেও ছিদ্দিক ও নজরুল পরিচালনা করে থাকেন। চাউল বিতরণের সময় শে^তপুর প্রাইমারী স্কুলের কাছে গোডাউনের সামনে বহু উপকারভোগিকে চাউল না পেয়ে কিংবা চাউল কম দেওয়ার কারণে প্রতিবাদ জানাতে দেখা গেছে।

কিন্তু তাদের ক্ষমতার দাপটে তারা মুখ খুলতে সাহস পায়না। পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ঘটনাস্থলে গেলেও তখন চাউল বিতরণ বন্ধ করে দেওয়ায় উপকারভোগিরা সেখানে উপস্থিত ছিলনা। অনিয়ম ও দুর্নীতিবাজদের ডিলারশীপ বাতিল করে নতুন ডিলার নিয়োগ ও উপকারভোগিদের নতুন (ভিন্ন রঙের) কার্ড সরবরাহের জন্য তিনি জোর দাবী জানিয়েছেন। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মীর আলিফ রেজা জানান, অভিযোগ পাওয়ার পার উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রককে তদন্তের জন্য দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে। রিপোর্ট পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit