বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯, ০৭:০৯ পূর্বাহ্ন

হ্যানয়ে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উদযাপন

হ্যানয়ে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস

ভিয়েতনামে হ্যানয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসে আজ যথাযোগ্য মর্যাদায় এবং ভাবগম্ভীর পরিবেশে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উদযাপন করা হয়। দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে ভিয়েতনামে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত সামিনা নাজ জাতীয় পতাকা আনুষ্ঠানিক ভাবে উত্তোলনের মাধ্যমে দিবসের কর্মসূচি সূচনা করেন।

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনানো হয়। দিনটি স্মরণ করে বিশেষ প্রার্থনা, আলোচনা সভা এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের ওপর একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়।

আলোচনা সভায় রাষ্ট্রদূত সামিনা নাজ বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে ১৭ই এপ্রিল এক অবিস্মরণীয় দিন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের মাধ্যমে পাকিস্তানি শোষক গোষ্ঠির বিরুদ্ধে মুক্তিসংগ্রামের যে পথ চলা শুরু হয় তা ১৯৭১ সালের ১০ই এপ্রিল সর্বকালের সর্বশেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাষ্ট্রপতি, সৈয়দ নজরুল ইসলামকে উপ-রাষ্ট্রপতি এবং তাজউদ্দিন আহম্মেদকে প্রধানমন্ত্রী করে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়ে স্বাধীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার গঠনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানিক রূপ লাভ করে।

মুজিব নগর সরকার গঠনের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনার জন্য ১৯৭০ এর নির্বাচনে জনগণ কর্তৃক নির্বাচিত প্রতিনিধিদের নেতৃত্বে একটি সাংবিধানিক সরকার আত্মপ্রকাশ করে। এ সরকার গঠনের ফলে বিশ^বাসী স্বাধীনতার জন্য সশস্ত্র সংগ্রামরত বাঙালিদের প্রতি সমর্থন ও সহযোগিতার হাত প্রসারিত করে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশি কূটনীতিকরা এক বিশেষ সাহসী ভূমিকা রাখেন। এমন কি ১৮ এপ্রিল ১৯৭১ সনে বিদেশের মাটিতে প্রথম বাংলাদেশের পতাকা আনুষ্ঠানিক ভাবে উত্তোলিত হয় কলকাতার তৎকালীন পাকিস্তান উপ-হাই কমিশনে বাংলাদেশের ডেপুটি হাই কমিশনার মরহুম হোসেন আলীর নেতৃত্বে ও বাংলাদেশি কূটনীতিকদের সমন্বয়ে। তিনি আরো স্মরণ করেন যে, সর্বপ্রথম কূটনীতিক রাষ্ট্রদূত মরহুম শেহাবউদ্দিন-কে যিনি পাকিস্তানের পক্ষ ত্যাগ করে ১৯৭১-এর ৬ই এপ্রিল বাংলাদেশের প্রতি আনুগত্য ঘোষণা করেন।

রাষ্ট্রদূত তাঁর বক্তব্যে ঐতিহাসিক এ দিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ চার জাতীয় নেতার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন এবং তাঁদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। তিনি শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহীদ এবং ২ লাখ নির্যাতিত মা-বোনকে। পরিশেষে এ দিনটি সম্পর্কে নতুন প্রজন্মকে সচেতন করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

আলোচনা অনুষ্ঠনে দূতাবাসের কর্মকর্তা, কর্মচারীগণ, প্রবাসী বাংলাদেশিগণ এবং ভিয়েতনামের স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit