বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯, ০৭:৪১ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশ-চীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের ২য় বৈঠক অনুষ্ঠিত

বাংলাদেশ-চীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের ২য় বৈঠক

আজ চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের দ্বিতীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে ১৯ সদস্য বিশিষ্ট বাংলাদেশ দলের নেতৃত্ব দেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন এবং চীনের পক্ষে ১৪ সদস্যের দলের নেতৃত্ব দেন চীনের স্টেট কাউন্সেলর এবং জননিরাপত্তা মন্ত্রী Zhao Kezhi.

আজকের আলোচনায় চীনের মন্ত্রী দুই দেশের পুলিশ বাহিনীর মধ্যে ক্রমবর্ধমান সহযোগিতা জোরদারের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। এ সময় তিনি তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে দুই দেশের সহযোগিতা দেশ দুইটির উন্নয়নে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে অভিমত ব্যক্ত করেন এবং সাইবার অপরাধ ও সন্ত্রাসবাদ দমনে বন্ধুপ্রতিম দুই দেশের মধ্যে অধিকতর সহযোগিতার প্রয়োজন রয়েছে বলে মনে করেন।

তিনি উল্লেখ করেন, গত ১ বছরে বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ৭৫ জন কর্মকর্তাকে সন্ত্রাস দমন সংক্রান্ত বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ প্রদান করে চীন। এ ধরণের প্রশিক্ষণ সুবিধা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। তাছাড়া মাদক ও সাইবার অপরাধ দমনের জন্য বাংলাদেশের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ প্রদান করবেন মর্মে উল্লেখ করেন।

দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ২০১৬ সালে চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিংপিং এর সফল বাংলাদেশ সফরের কথা উল্লেখ করে সে সময়ে দুই দেশের মধ্যে আলোচিত সহযোগিতার ক্ষেত্রসমূহ আরো এগিয়ে নেয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করেন, যেখানে সন্ত্রাস দমনে দু’দেশের সহযোগিতার বিষয়টি গুরুত্বসহকারে আলোচিত হয়।

চীনের মন্ত্রী ভবিষ্যতে চারটি ক্ষেত্রে দু’দেশের মধ্যে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। সেগুলো হলো : (১) আন্তঃরাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস দমন (২) মাদক দমনে প্রশিক্ষণ সুবিধা প্রদান এবং তথ্য বিনিময় (৩) Belt and Road উদ্যোগে বাংলাদেশের সক্রিয় অংশগ্রহণে চীনের প্রত্যাশা (৪) দুই দেশের মধ্যকার পারস্পরিক সহযোগিতা সংক্রান্ত ওয়ার্কিং গ্রুপের নিয়মিত সভা আয়োজন। এ ব্যাপারে প্রয়োজনে যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনপূর্বক একটি প্রতিনিধিদল চীনে বাংলাদেশ থেকে প্রেরণ করতে পারবে বলে অভিমত দেন। তিনি বাংলাদেশে অবস্থানরত চীনা নাগরিকদের নিরাপত্তা প্রদানে বাংলাদেশের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।

বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের ভূমিতে যে কোন দেশের সন্ত্রাস এবং বিচ্ছিন্নতাবাদী বিদেশি গ্রুপ কোন কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবে না। একইভাবে চীনের ক্ষেত্রেও তা প্রযোজ্য মর্মে অভিমত ব্যক্ত করেন। তিনি মিয়ানমার কর্তৃক জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ হতে মিয়ামনারে ফেরৎ পাঠাতে চীনের সক্রিয় সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি দ্রুত প্রত্যাবাসন উপযোগী পরিবেশ সৃষ্টি করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। এ বিষয়েও তিনি চীনের আশু হস্তক্ষেপ প্রত্যাশা করেন।

চীনের মন্ত্রী বলেন, তাঁরা এ বিষয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করছেন। চীন মনে করে বিষয়টি সমাধানে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের আরো আলোচনা চালিয়ে যাওয়া প্রয়োজন এবং এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক সংস্থাসমূহ বিশেষ করে UNHCR এবং UNDP’র ইতিবাচক ভূমিকা পালন করা উচিত।

আলোচনায় দুই পক্ষই অভিমত ব্যক্ত করে, বন্ধুপ্রতিম বাংলাদেশ ও চীনের সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে পারস্পরিক সহযোগিতা ভবিষ্যতে অব্যাহত থাকবে এবং বাংলাদেশের অন্যতম উন্নয়ন সহযোগী দেশ হিসেবে চীন বাংলাদেশের পাশে থাকবে।

বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে ঢাকায় অনুষ্ঠিত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের প্রথম বৈঠকে আলোচিত বিষয়গুলো বাস্তবায়নের লক্ষ্যে উভয় পক্ষ অভিমত ব্যক্ত করেন।

সভা শেষে দুই দেশের মন্ত্রীর উপস্থিতিতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ এবং বেইজিং মিউনিসিপাল পাবলিক সিকিউরিটি ব্যুরো এর মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সহযোগিতার লক্ষ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে ঢাকায় দুই দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী পর্যায়ের ১ম বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit