বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯, ০৭:৩৯ পূর্বাহ্ন

চিকিৎসার অভাবে বিছানায় কাতরাচ্ছে গোপালপুরের গোপাল

চিকিৎসার অভাব

আরিফ মোল্ল্যা,ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: অভাবের সংসারে জন্ম নিয়েও শৈশবে ২ ভাই গোপাল আর উত্তম ছিল অন্যদের মত দুরন্ত-চঞ্চল। বাল্য বন্ধুদের সাথে খেলাধুলা আর স্কুলে যেতো তারা। কিন্ত প্রাথমিক স্তর পার না হতেই সংসারের একমাত্র উপার্জনশীল ব্যক্তি বাবা হঠাৎ মারা যান। এরপর শিশু ২ সন্তানকে নিয়ে মা আরতি বিশ্বাস পড়েন চরম বিপাকে। সংসারের দায়িত্ব পড়ে তার কাঁধে। তিনি পরের বাড়ি কাজ করে সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিয়েছেন।

সে সময়ে অভাবের তাড়নায় পরিবারের সদস্যদের কখনও আধা পেটা খেয়ে আবার কখনও না খেয়ে দিন কেটেছে। বাধ্য হয়ে ২ ভাই কিশোর বয়সেই পরের সেলুনে কাজ শুরু করলে কোন রকমে চলছিল তাদের সংসার। কিন্ত এভাবে কিছুদিন যেতে না যেতেই গোপালের অসুস্থতা দেখা দেয়। তখন স্থানীয় চিকিৎসকদের পরামর্শে চিকিৎসা সেবা নিয়েও কোন কাজ হয়নি। পরবর্তীতে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার পরও কোন উন্নতি ঘটেনি।

গোপালের পরিবারের লোকজন বলছেন, সংসারের অভাব অনাটনের মধ্যদিয়েও প্রায় ১০ বছর আশপাশের চিকিৎসকেরা গোপালের রোগ নির্নয় করতে পারেননি। কিন্ত ক্রমশ সে দুর্বল হয়ে পড়ে। ২ বছর আগে কয়েক দফা পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে চিকিৎসকেরা বলেছেন খাদ্যনালীতে সমস্যা হয়েছে। অপারেশন করাতে পারলে সুস্থ করা সম্ভব। সে জন্য দরকার প্রায় ৩ লক্ষাধিক টাকা। কিন্ত গত ২ বছর যাবৎ এ টাকা জোগাড় করতে পারেননি তারা। এখন এক প্রকারের বিনা চিকিৎসায় বিছানায় শুয়ে কাতরাচ্ছে গোপাল। গোপাল ঝিনাইদহ কালীগঞ্জের ২ নং জামাল ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামের মৃত অধির বিশ্বাসের ছেলে।

গত বৃহস্পতিবার বিকালে গোপালের বাড়ি গিয়ে দেখা যায়, অস্তি চর্মিসার গোপাল বিছানায় শুয়ে কাতরাচ্ছে। তার চোখে মুখে বেঁচে থাকার আকুতি।

গোপালের বড় ভাই উত্তম বিশ্বাস জানান, ছোটবেলা থেকেই সংসারে এক প্রকারের যুদ্ধ করে বেঁচে আছি। বসতভিটের মাত্র ৮ শতক জমিই তাদের ২ ভাইয়ের একমাত্র সম্বল। বাবা মারা যাওয়ার পর ছোটবেলা থেকেই সংসারের প্রয়োজনে তাদেরকে পরের সেলুনের কাজে যেতে হয়েছে। ৩ বোনকে খরচ করে বিয়ে দিয়েছে। আর ভাই গোপালের জন্য নিয়মিত ঔষধ কিনতে হয়। আবার নিজের ৩ টি সন্তান রয়েছে। সব মিলিয়ে অনেক কষ্টের জীবন যাপন করতে হয়। রক্তের ভাইকে সুস্থ করতে গরীব মানুষ হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা করে যাচ্ছে। কিন্ত ঢাকাতে নিয়ে অপারেশনের টাকা জোগাড় করতে পারেনি। নিজে বেঁচে থাকা অবস্থায় টাকার জন্য ভাইয়ের অপারেশন করাতে পারছে না চোখের সামনেই কাতরাচ্ছে এটা ভাই হিসেবে কষ্টে বুক ফেঁটে যায়।

মা আরতি বিশ্বাস জানান, বড় ছেলে উত্তমের রোজগারে খুব অভাবে দিন কাটে। আর ছোট ছেলে গোপাল ৭/৮ বছর ধরে অসুস্থ। এখন সে শর্য্যাশায়ী। অভাবের সংসারে তার চিকিৎসার জন্য সম্পদ বলতে যা ছিল সব চলে গেছে। তারপরও বিছানায় শুয়ে সন্তানের ফ্যাল ফেলিয়ে চেয়ে থাকাটা একজন মা হিসেবে আমার সহ্য করা কঠিন। বর্তমানে আমার বয়স প্রায় ৭০ বছর। সন্তানের মুখের দিকে তাকালে আর কিছুই ভালো লাগে না। অসুস্থ সন্তানের জন্য এ বয়সে আমি স্থানীয় স্কুলের সামনের রাস্তার ধারে একটি টোং দোকান দিয়ে বসে থাকি। সারাদিন দোকানে বসে যা পয়সা রোজগার হয় তা দিয়ে গোপালের ঔষধের কিছু অংশ জোগাড় করি। তিনি কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন,মায়ের সামনে মৃত্যুর পথযাত্রী সন্তানের বেঁচে থাকার আকুতি বড় কষ্টকর ব্যাপার। যা একজন মা ছাড়া পৃথিবীর অন্য কারও বোঝানো যাবে না।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit